নির্বাচনে কারচুপির অভিযোগ ঐক্যফ্রন্টের

প্রকাশিত: ১:১৮ পূর্বাহ্ণ, ডিসেম্বর ৩১, ২০১৮

নির্বাচনে কারচুপির অভিযোগ ঐক্যফ্রন্টের

নির্বাচনে কারচুপির অভিযোগ তুলেেছেন ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতা কামাল হোসেন।
নির্বাচন বাতিল করে নির্দলীয় সরকারের অধীনে নতুন নির্বাচনের দাবি জানিয়েছেন তিনি।

রোববার একাদশ সংসদ নির্বাচনের ভোটগ্রহণ শেষে রাতে এক সংবাদ সম্মেলনে এই দাবি জানান ।

তিনি বলেন, দেশের প্রায় সব আসন থেকেই একই রকম ভোট ডাকাতির খবর এসেছিল। এ পর্যন্ত আমাদের শতাধিক প্রার্থী নির্বাচন বর্জন করেছে। আমরা নির্বাচন কমিশনের প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি, অবিলম্বে এই প্রহসনের নির্বাচন বাতিল করা হোক। এই নির্বাচনের কথিত ফলাফল আমরা প্রত্যাখ্যান করছি এবং সেই সঙ্গে নির্দলীয় সরকারের অধীনে পুনঃনির্বাচন দাবি করছি।

রোববার সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত ঢাকাসহ সারা দেশের ২৯৯টি সংসদীয় আসনে একটানা ভোটগ্রহণ হয়। ভোটে বাধা দেওয়া, এজেন্টদের কেন্দ্র থেকে বের করে দেওয়া এবং কারচুপির অভিযোগ তুলে বিএনপি-জামায়াত জোট ও জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের অন্তত ৩১ জন প্রার্থী দুপুরেই নির্বাচন বর্জনের ঘোষণা দেন।

দুর্নীতির মামলায় কারাবন্দি খালেদা জিয়ার অবর্তমানে তার দল বিএনপি এবার গণফোরাম সভাপতি কামাল হোসেনের নেতৃত্বে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট গড়ে নির্বাচনে অংশ নেয়।

বিএনপি-জামায়াত নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের পাশাপাশি ঐক্যফ্রন্টে যুক্ত হওয়া নাগরিক ঐক্য, কৃষক-শ্রমিক-জনতা দল ও জেএসডির নেতারা ধানের শীষ প্রতীকে ভোটের লড়াইয়ে অংশ নেন।

ভোট শেষে রাতে বেইলি রোডে কামাল হোসেনের বাসায় বৈঠক করেন ঐক্যফ্রন্ট নেতারা। ওই বৈঠকের পর সংবাদ সম্মেলন আসেন কামাল হোসেন।

দাবি না মানলে আপনারা কী করবেন- প্রশ্নের জবাবে কামাল হোসেন বলেন, আগামীকাল আমরা বসে বিস্তারিত আলোচনা করে আমাদের করণীয় ঠিক করব এবং গণতন্ত্রকে প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দেওয়ার আন্দোলন অব্যাহত থাকবে। বিস্তারিত দিকগুলো কাল জানাবো।