নির্বাচন কমিশনকে জানাতে হবে রোববারের মধ্যে

প্রকাশিত: ১০:৩১ পূর্বাহ্ণ, নভেম্বর ১০, ২০১৮

নির্বাচন কমিশনকে জানাতে হবে রোববারের মধ্যে

কামরুজ্জামান হিমু
জোটের ছোট শরিককে বড় দলের প্রতীক ব্যবহারের সুযোগ দিতে চাইলে তা নির্বাচন কমিশনকে জানাতে হবে রোববারের মধ্যে ।

শুক্রবার ইসির জনসংযোগ পরিচালক এস এম আসাদুজ্জামান এক বিজ্ঞপ্তিতে জানান, একাধিক নিবন্ধিত দল মিলে নির্বাচনী জোট গঠন করা হলে, সেই জোটের যে কোনো একটি দলের প্রতীক জোটভুক্ত দলগুলোর প্রার্থীদের বরাদ্দ করা যাবে। তবে সেজন্য তিন দিনের মধ্যে তা কমিশনে জানাতে হবে।ইসির যুগ্মসচিব ফরহাদ আহাম্মদ খান জানিয়েছেন, তফসিল ঘোষণার পর নিবন্ধিত ৩৯ দলের সভাপতি/সাধারণ সম্পাদক বরাবর এ সংক্রান্ত চিঠি দেওয়া হয়েছে ।

বৃহস্পতিবার একাদশ সংসদ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নূরুল হুদা।

ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী, মনোনয়নপত্র দাখিল করা যাবে ১৯ নভেম্বর পর্যন্ত। ২২ নভেম্বর বাছাইয়ের পর ২৯ নভেম্বর পর্যন্ত প্রত্যাহারের সুযোগ থাকবে। এরপর ৩০ নভেম্বর প্রতীক বরাদ্দ হলে শুরু হবে আনুষ্ঠানিক ভোটের প্রচার। ভোট হবে ২৩ ডিসেম্বর।

রাজনৈতিক দলের নিবন্ধন চালু হওয়ার হওয়ার পর ২০০৮ সালে নবম সংসদ নির্বাচনে জাসদ ও ওয়ার্কার্স পার্টি জোটের বড় দল আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীকেই ভোটে অংশ নেয়।

এরপর ২০১৪ সালে দশম সংসদ নির্বাচনে জাসদ ও ওয়ার্কার্স পার্টির সঙ্গে বাংলাদেশ তরিকত ফেডারেশনও নৌকা প্রতীক ব্যবহার করে।

তবে জাতীয় পার্টি এই জোটে থাকলেও ভোট করে নিজেদের লাঙ্গল প্রতীকে। সে বারে অধিকাংশ রাজনৈতিক দলের বর্জনে দশম সংসদে জাতীয় পার্টি প্রধান বিরোধী দলের জায়গা পায়।

নবম সংসদে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের সঙ্গে জোট করে বাংলাদেশ খেলাফত আন্দোলন একটি আসনে হাতপাখা প্রতীকে ভোট করে। বিকল্পধারা সঙ্গে জোট করে পিডিপি কুলা প্রতীক ব্যবহার করে কিছু আসনে। এই দলগুলোও দশম সংসদ নির্বাচন বর্জন করে।

অন্যদিকে নবম সংসদ নির্বাচেনে বিএনপি নেতৃত্বাধীন জোটের নিবন্ধিত দল বিজেপি, ইসলামী ঐক্যজোট, জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ ও জাতীয় গণতান্ত্রিক পার্টি প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে বিএনপির ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে। আরেক জোটসঙ্গী জামায়াতে ইসলামী ভোট করে নিজেদের প্রতীক দাঁড়িপাল্লায়।

বিএনপি ও শরিকরা দশম সংসদ নির্বাচন বর্জন করে; জামায়াত নিবন্ধন হারায়।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন সামনে রেখে আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রধান বিরোধী জোট জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সঙ্গে সংলাপের পাশাপাশি শরিক দলগুলোর সঙ্গেও আলোচনা করেছেন।

বিএনপিকে সঙ্গে নিয়ে কামাল হোসেনের নেতৃত্বে গঠিত ছয় দলের জাতীয় ঐক্যজোট খালেদা জিয়ার মুক্তি, সংসদ ভেঙে দিয়ে নির্দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনসহ সাত দফা দাবিতে আন্দোলন চালিয়ে আসছে। আগামী নির্বাচনে অংশ গ্রহণের বিষয়ে স্পষ্ট কোনো সিদ্ধান্ত শুক্রবার পর্যন্ত তারা দেয়নি।

অন্যদিকে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের বড় শরিক জাতীয় পার্টি বলে আসছে, নির্বাচনে তারা জোটে যাবে, না আলাদাভাবে ভোট করবে তা নির্ভর করবে বিএনপির ওপর। বিএনপি গতবারের মত এবারও ভোট বর্জন করলে জাতীয় পার্টি ৩০০ আসনেই প্রার্থী দেবে।

ঐক্যফ্রন্ট বা বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের কোনো দল ধানের শীষ প্রতীক ব্যবহার করতে চাইলে সে সিদ্ধান্ত জানাতে সময় থাকছে রোববার পর্যন্ত। তবে জোটগতভাবে ভোট করার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে তাদের হাতে আরও সময় থাকছে।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

লাইভ রেডিও

Calendar

April 2024
S M T W T F S
 123456
78910111213
14151617181920
21222324252627
282930