নিশ্চিন্তে নির্ভাবনায়

প্রকাশিত: ১:০৮ পূর্বাহ্ণ, আগস্ট ১৩, ২০২৩

নিশ্চিন্তে নির্ভাবনায়

হাসিদা মুন

 

আকাশের একপ্রান্তে এসে দাঁড়ালো যৌবন
একটি স্বপ্ন ছিলো সে এখন মিনারের চূড়ায় দাঁড়ানো
পৃথিবী যেখানে আন্তরিকতা হারানো
লৌহ ফটকের ফাঁদ আঁটা
স্বদেশের গতি নিয়মনীতি –
গাছের অমুকুলিত শাখা প্রতিনিয়ত বদলে যাচ্ছে
যাচ্ছে তো যাচ্ছেই নিয়মের অনিয়মে অদল বদল হয়ে …

 

পা’ প্রতি পদক্ষেপে রাখা যায়না নিশ্চিন্ত সুখে
থাকা যায়না মুখ গুজে -আরামে শঙ্কিত বুকে
জলমহলের সমুদ্র প্রাচীর তোলা চতুর্দিকে
সন্দেহের শৈবালে ঢাকা প্রায় সবার চোখ
সময়ের দুঃসহ বিষাক্ত বাতাস হে’ !
তাও দেয়না সঙ্গতিতে সঙ্গ
হায় বঙ্গ …

 

নাবিক ঈশ্বর ! বলো কোন দিকে তীরচিহ্ন আঁকো ?
সাত সাতটা ছিদ্রযুক্ত মাথা ঝিমঝিম করে
হু হু হতাশার বাতাস বয়ে যায়
যার ভিতর ঘুরে বেড়ায় ঘর বেঘর –
ঘোরের ভিতর সমাজ – সংসার …

 

ধুর, কতোদুর চলে এলাম ?
অপ্রত্যাশিত স্থান
নিমজ্জিত আলো
ভূত ভবিষ্যৎ কালো কালো
কে হাসে ?!
শব্দহীন মৃত্যু ভাসে আশেপাশে ….

 

সবাই চায় অন্যরকমে অন্য হৃদয় সুখী করা
নিজেকেই শতছিন্ন করে শতবার জোড়া
উহু, মোটেই না
তবে কেনো এই কদাকার বেশ
সদস্য পদ নিচ্ছো রক্তচক্ষুধারী অপহন্তার ?
ধিক্কার মানব জন্ম তোমার
কেনো হও উদাসীন অপরাধী অবহেলায়
সময় যায় ভুল পাশা খেলায় …

 

আমরা যথেষ্ট বিশুদ্ধ বাতাস চাই
হতেও চাইনা নিরুপায় অসহায়
নিরীক্ষার কাঁচের নলের মতো দুই দিকে খোলা
সরল মাথা চাই –
আমরা মানুষ তাই…..

 

বুকের মধ্যে দেশপ্রেম চাই
ধান্দাবাজির ধুম্রজাল পুড়ানো মানবতা চাই
পাঁজরের ভিতর আলো ধরার স্ফুলিঙ্গ চাই
নিজেরাই হাজার ওয়াটের বাতি হতে চাই
সবুজ বনানী মাখা সুন্দরবন’ চাই
জালিয়াতি ,ভূয়া’,অসঙ্গতি ছাড়া -স্বর্গীয় এক ভূমি চাই
মরতে চাই নিশ্চিন্তে নির্ভাবনায় ….