নুসরাত হত্যা মামলা ,এ মাসেই অভিযোগপত্র

প্রকাশিত: ৭:১২ অপরাহ্ণ, মে ৪, ২০১৯

নুসরাত হত্যা মামলা ,এ মাসেই অভিযোগপত্র

মাদ্রাসাছাত্রী নুসরাত জাহান রাফিকে পুড়িয়ে হত্যার মামলার তদন্ত শেষ পর্যায়ে ।পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন পিবিআই জানিয়েছে , তারা এই মাসেই অভিযোগপত্র দিতে যাচ্ছে।

অভিযোগপত্রে মোট ১৬ জনকে আসামি করা হচ্ছে বলে ইঙ্গিত দিয়েছেন পিবিআই প্রধান বনজ কুমার মজুমদার।

মাদ্রাসার অধ্যক্ষ সিরাজ-উদ দৌলার বিরুদ্ধে যৌন নিপীড়নের মামলা প্রত্যাহার করতে রাজি না হওয়ায় গত ৬ এপ্রিল নুসরাতের গায়ে আগুন ধরিয়ে দেওয়া হয়েছিল।

অগ্নিদগ্ধ নুসরাত ১০ এপ্রিল মারা যাওয়ার পর দেশজুড়ে বিক্ষোভ-প্রতিবাদের মধ্যে মামলার তদন্তভার থানা পুলিশ থেকে নিয়ে দেওয়া হয়েছিল পিবিআইকে।

পিবিআই প্রধান বনজ মজুমদার শনিবার ঢাকায় এক অনুষ্ঠানে সাংবাদিকদের প্রশ্নে বলেন, তদন্ত কাজ মোটামুটি শেষ। কিছু কাগজপত্র তৈরি করে চলতি মাসের যে কোনো দিন আসামিদের বিরুদ্ধে আদালতে চার্জশিট জমা দেওয়া হবে।

তিনি বলেন, নুসরাত হত্যার ঘটনায় এখন পর্যন্ত ১৬ জনের সম্পৃক্ততা পেয়েছে পিবিআই তদন্ত দল।

সোনাগাজীর ইসলামিয়া সিনিয়র ফাজিল মাদ্রাসার আলিমের ছাত্রী নুসরাতের পরিবারের করা যৌন নিপীড়নের মামলায় গত ২৭ মার্চ গ্রেপ্তার হয়েছিলেন ওই মাদ্রাসার অধ্যক্ষ সিরাজ।

কারাগারে থেকেই তিনি নুসরাতের গায়ে অগ্নিসংযোগের নির্দেশনা দিয়েছিলেন বলে পিবিআইর তদন্তে উঠে এসেছে। নুসরাতের গায়ে আগুন দেওয়ার পর ৮ এপ্রিল তার ভাই মাহমুদুল হাসান নোমান অধ্যক্ষ সিরাজকে প্রধান আসামি করে ৮ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত পরিচয়ের আরও ৪/৫ জনকে আসামি করে মামলা করেন। নুসরাতের মৃত্যুর পর তা হত্যামামলায় রূপান্তরিত হয়, যার তদন্ত করছে পিবিআই।

নুসরাত হত্যাকাণ্ডে জড়িত অভিযোগে এই পর্যন্ত ১৬ জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ; তাদের মধ্যে নুসরাতের দুই সহপাঠী, ওই মাদ্রাসার কয়েক ছাত্র এবং স্থানীয় আওয়ামী লীগের দুই নেতাও রয়েছেন।

বনজ মজুমদার বলেন, “এরকম একটি জঘন্যতম হত্যাকাণ্ডের দায় জড়িত সকলকে নিতে হবে। এ ঘটনার আগে ও পরে যারা মদদ জুগিয়েছে, তারাও যাতে শাস্তি পায়, সেজন্য পুলিশের অন্য সংস্থাগুলোও কাজ করছে।”

নুসরাতের পরিবারের প্রথম মামলার পর সোনাগাজী থানার তৎকালীন ওসি মোয়াজ্জেম হোসেনসহ জেলা পুলিশের কিছু কর্মকর্তার গাফিলতির বিষয়টি বাহিনীর নিজস্ব তদন্তে উঠে এসেছে। ওসি মোয়াজ্জেমের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলাও হয়েছে।

পিবিআই কর্মকর্তা বনজ মজুমদার বলেন, মোয়াজ্জেম হোসেনের বিরুদ্ধে করা আইসিটি মামলার তদন্ত কাজ শেষ হতে আরও কিছুটা সময় লাগবে। আদালতে তারা সময়ের আবেদন করেছে।

তবে ইতিমধ্যে ওসি ও এসআইয়ের মোবাইল ফোন দুটি জব্দ করা হয়েছে বলে জানান তিনি।