পাট আবার সুদিনে ফিরেছে : বস্ত্র ও পাট মন্ত্রী

প্রকাশিত: ১০:৪৩ পূর্বাহ্ণ, মার্চ ৭, ২০২০

পাট আবার সুদিনে ফিরেছে : বস্ত্র ও পাট মন্ত্রী


পাট হারিয়ে গেছে, এ ধারণা থেকে বাংলাদেশ বেরিয়ে এসেছে মন্তব্য করে বস্ত্র ও পাট মন্ত্রী গোলাম দস্তগীর গাজী বীরপ্রতীক বলেছেন, সবাই ভেবেছিল পাটের সুদিন শেষ। কিন্তু পাট হারিয়ে যায়নি, আবারও পাটের সুদিন ফিরেছে। যার বড় প্রমান বাংলাদেশে চলতি অর্থবছরে পাটখাতে বিপুল পরিমান বৈদেশিক মুদ্রা অর্জণ।
শুক্রবার রাজধানীর অফিসার্স ক্লাবে পাট দিবস উপলক্ষে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে বস্ত্র ও পাট মন্ত্রী এ কথা বলেন।
বস্ত্র ও পাট মন্ত্রী গোলাম দস্তগীর গাজী, বীরপ্রতীক,এমপি বলেন, প্রতিবছর ৬ মার্চকে জাতীয় পাট দিবস ঘোষণা দেওয়ায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে অনেক কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ জানায়। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনায় দেশীয় এবং আন্তর্জাতিক বাজারে পাট পণ্যের বিস্তার ঘটেছে। অনেকে আগে বলতো পাট মরে গেছে, কিন্তু এখন থেকে মনে করতে হবে পাঠ জেগে উঠেছে। কারণ চলতি অর্থবছরের জুলাই থেকে জানুয়ারি পর্যন্ত সময়ে পাট ও পাটজাত পণ্যে ৬শ ১৬ দশমিক ২০ মিলিয়ন মার্কিন ডলারের রপ্তানি আয় করেছি আমরা। এই আয় গত অর্থবছরের একই সময়ের চেয়ে ২০ দশমিক ৮২ শতাংশ বেশি।
তিনি আরও বলেন, প্লাষ্টিকের অতি ব্যবহারের ফলে পরিবেশের ক্ষতি বেড়েছে। পরিবেশ রক্ষায় পাটের তৈরি বহুমুখী পাটপণ্য উৎপাদন করছে বাংলাদেশ। আমরা ইতোমধ্যে ২৮২ টি বহুমুখী পণ্য উৎপাদন করছি। যা অনেকেই জানেন না। তাদের কাছে অনুরোধ আপনারা পাট মেলায় যাবেন এবং পাট সম্পর্কে জানবেন। সেখানে গেলে কোনো না কোনো পণ্য আপনাদের পছন্ত হবেই। এ বিশ্বাস আমাদের আছে।
এ সময় পাটখাতের সাথে সংশ্লিষ্ট অংশীজন সকলের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন মন্ত্রী।
বাণিজ্যমন্ত্রী টিমু মন্সী বলেন, একটা সময় আমরা পাট দিয়ে বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন করতাম। কিন্তু আমরা সে অবস্থান ধরে রাখতে পারিনি। এখন আমরা আবারও ঘুরে দাঁড়িয়েছি। আমাদের পাটের সোনালী আঁশের স্বপ্ন শুরু হয়েছে। এটি আমরা নিশ্চিত করবো। আর বেশি দিন নেই যেখানে বিশ্ব বাজারে পলিথিন ব্যবহার নিষিদ্ধ করা হবে।
বাণিজ্য মন্ত্রী বলেন, আমাদের অনেকের ধারণা ছিল পাট দিয়ে বস্তা-ছালা এসব হয়। কিন্তু এখন ধারণা পাল্টেছে। এখন পাট দিয়ে বিভিন্ন রকমের গিফট আইটেম তৈরি হয়। আমাদের দেশে যখন বিদেশী কোন কুটনীতিক আসে তখন আমরা তাদেরকে পাটের তৈরি বিভিন্ন গিফট আইটেম দিয়ে থাকি। তারা সেগুলো সে দেশে নিয়ে যায় এব বিশ্বময় এগুলো তুলে ধরেন। এটাও আমাদের একটা অর্জন।

তিনি আরও বলেন, আমরা জানি অনেক কষ্টে চাষিরা এ পাটের শিল্পকে টিকিয়ে রেখেছেন। এজন্য আমাদের প্রধানমন্ত্রী এ বিষয়ে অনেক সচেষ্ট। তাই এ পাঠের উৎপাদন যেন আরও বাড়ানো যায় সেজন্য পাট মন্ত্রণালয়কে যথেষ্ট দিক নির্দেশনা দিয়ে যাচ্ছেন। এতে আমার বিশ্বাস খুব শীঘ্রই আমরা পাটের সোনালী দিন ফিরিয়ে আনতে পারব। আজকে জাতীয় পাট দিবসে সোনালী আঁশ যেন আমাদের মনে আশা জাগায় সে প্রত্যাশা আমাদের।
বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয়ের সচিব লোকমান হোসেন মিয়া বলেন, এ দেশে এক সময় সোনালী আঁশ ছিল পাট। কিন্তু ৭৫ পরোবর্তী সময়ে পাট শিল্প অবহেলিত খাতে পরিণত হয়। পরে বর্তমান সরকার ক্ষমতায় আসার পর পাটকে নিয়ে নতুন ভাবনা শুরু হয় এবং পাটের সোনালী ভবিষ্যৎ কিভাবে কাজে লাগানো যায় সেটি নিয়ে কাজ শুরু হয়। আর এতে গত ১৬ সালের পর থেকে পাটের উৎপাদন এবং সরবরাহসহ বিশ্বব্যাপী চাহিদা বাড়তে থাকে। তাই বিশ্বব্যাপী ৬৫টি দেশে পাটকে ব্যবহার নিশ্চিত করতে পলিথিন ব্যবহার বন্ধ করা হয়েছে। বিশ্ব ফুটবলার রোনালদোর পায়ের সু বাংলাদেশের পাট দিয়ে বাংলাদেশে তৈরি হয়। যেটি আর কোথাও বিক্রি হয় না। সরাসরি তাদের কাছে পাঠিয়ে দেয়া হয় উৎপাদনের পর। তাই সবার কাছে অনুরোধ আমরা যখন প্রিয়জনকে উপহার দিই এবং বিদেশীদের কে গিফট আইটেম পাঠায় সেসময় যেন পাটের পণ্য দেয়া হয়। এতে পাটের বিস্তার ঘটবে।
এ সময় বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি মির্জা আজম,এমপি, পাট অধিদপ্তরের মহাপরিচালক (ডিজি) সওদাগর মুস্তাফিজুর রহমানসহ বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন দপ্তর/সংস্থার কর্মকর্তা-কর্মচারীগণ উপস্থিত ছিলেন।
অনুষ্ঠানের শেষে ৫ দিনব্যাপী বহুমুখী পাটপণ্যের মেলার উদ্বোধন ঘোষণা করেন বস্ত্র ও পাট মন্ত্রী গোলাম দস্তগীর গাজী বীরপ্রতীক। এসময় তিনি মেলা প্রাঙ্গন ঘুরে দেখেন। এর আগে বস্ত্র ও পাট খাতে বিশেষ অবদানের জন্য ১১ টি ক্যাটাগরিতে ১১ জনকে পুরস্কৃত করা হয়।
শুক্রবার সকালে ‘সোনালি আঁশের সোনার দেশ, মুজিববর্ষে বাংলাদেশ’- স্লোগানে জাতীয় পাট দিবস উপলক্ষ্যে এক বনার্ঢ্য র‌্যালী অনুষ্ঠিত হয়েছে। সকাল সাড়ে আটটার দিকে সচিবালয় প্রাঙ্গন থেকে র‌্যালীটি শুরু হয়। এরপর র‌্যালীটি জিপিও মোড় হয়ে, পল্টন ও কাকরাইল সড়ক দিয়ে ঢাকা অফিসার্স ক্লাবে গিয়ে শেষ হয়। এর আগে বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয়ের সচিব লোকমান হোসেন মিয়া ফিতা কেটে এবং পায়রা ও বেলুন উড়িয়ে র‌্যালী জাতীয় পাট দিবসের শুভ উদ্বোধন ঘোষণা করেন।
এ সময় উপস্থিত ছিলেন- পাট অধিদফতরের মহাপরিচালক (ডিজি) সওদাগর মুস্তাফিজুর রহমান, অতিরিক্ত সচিব আবুল কালাম আজাদ, বিটিএমসির চেয়ারম্যান বিগ্রেডিয়ার জেনারেল মো. কামরুজ্জামান প্রমূখ।
ঘোড়ার গাড়ি ও ব্র্যান্ড পার্টির বর্ণিল আয়োজনে র্যালীতে পাট অধিদপ্তর, বাংলাদেশ পাটকল করপোরেশন, জেডিপিসি, বিজেএমএ, বাংলাদেশ জুট গুডস এসোসিয়েশন, বিজিএ সহ সারাদেশের সরকারি ও বেসরকারি বিভিন্ন পাটকল কারখানার শ্রমিক এবং সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা-কর্মচারীগণ অংশ নেন।

ছড়িয়ে দিন

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

Calendar

December 2021
S M T W T F S
 1234
567891011
12131415161718
19202122232425
262728293031