প্রতিবন্ধকতা জয় করেছেন ঠাকুরগাঁওয়ের ব্যাংকার চন্দন

প্রকাশিত: ৮:৪৯ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ১৪, ২০২১

প্রতিবন্ধকতা জয় করেছেন ঠাকুরগাঁওয়ের ব্যাংকার চন্দন

 

গৌতম চন্দ্র বর্মন, ঠাকুরগাঁওঃ

 

অনেকের জীবন নাকি শেষ হয়ে যায় বন্ধুর পাল্লায় পড়ে। এক্ষেত্রে আমি ব্যতিক্রম। কারণ আমাকে উঁচুতে তুলে ধরতে মই হিসেবে কাজ করেছে আমার বন্ধুরা’ বলেন চন্দন কুমার বনিক।

অন্য ১০টা মানুষের চেয়ে বেড়ে ওঠার গল্পটা একটু আলাদা ঠাকুরগাঁও সোনালী ব্যাংকের সফল ব্যাংকার চন্দন কুমার বনিকের। অন্য মানুষের মতো স্বাভাবিক না হওয়ায় সাইকেল চালিয়ে কলেজে যেতে পারতেন না তিনি। বন্ধুরা তাকে সাইকেলের সামনে বসিয়ে কলেজে নিয়ে গেছেন। ক্লাস শেষ না হওয়া পর্যন্ত তারা চন্দনের জন্য অপেক্ষা করতেন। ক্লাস শেষে তারা আবারও চন্দনকে সাইকেলে চড়িয়ে বাসায় পৌঁছে দিয়ে বাড়ি গেছেন। এভাবে স্মৃতিচারণ করছিলেন চন্দন কুমার বনিক।

তিনি বলেন, ‘এরপর আবার প্রাইভেটের সময় তারা আমার বাসায় এসেছে। আমাকে নিয়ে প্রাইভেটে গেছে। প্রাইভেট শেষে আবারও বাসায় পৌঁছে দিয়ে তারা তাদের বাড়ি গেছে। আমার সফলতার গল্প বলতে গেলে সবার আগে আমার বন্ধুদের কাছে কৃতজ্ঞতা স্বীকার করতে হবে। কারণ তাদের আন্তরিকতা এবং সহযোগিতায় আজ আমি সফল।’

‘অনেকের জীবন নাকি শেষ হয়ে যায় বন্ধুর পাল্লায় পড়ে। এক্ষেত্রে আমি ব্যতিক্রম। কারণ আমাকে উঁচুতে তুলে ধরতে মই হিসেবে কাজ করেছে আমার বন্ধুরা’ উল্লেখ করেন চন্দন বনিক।

মঙ্গলবার (১০ নভেম্বর) বিকেলে নিজ অফিসে বসে এভাবেই বন্ধুদের সহযোগিতার কথাগুলো উল্লেখ করে কৃতজ্ঞতা স্বীকার করছিলেন ঠাকুরগাঁও সোনালী ব্যাংকের এই কর্মকর্তা।

বলছিলেন, সেই ছোটবেলা থেকে নিভু নিভু প্রদীপের মাঝে কীভাবে নিজেকে টিকিয়ে রেখেছেন তারই গল্প। নিজের গল্প শোনানোর আগে তিনি জানিয়ে দিলেন, তার কিছু স্বপ্নের কথা, যে স্বপ্নগুলো বাস্তব করতে অনেক কষ্ট করেছেন। তাই তিনি চান না একই কষ্ট তার মতো অন্যরা করুক।

স্বপ্নের কথাগুলো বলতে গিয়ে সবার আগে তিনি বলেন, ‘ঠাকুরগাঁওয়ে একটি প্রতিবন্ধী কল্যাণ ট্রাস্ট গড়ে তুলতে চাই। সেই কল্যাণ ট্রাস্টের সহযোগিতায় মেধাবী প্রতিবন্ধীরা লেখাপড়া করে শিক্ষিত হয়ে উঠবে।’

তিনি বললেন, ‘আমাদের সমাজে প্রতিবন্ধীরা এখনো অনেক অবহেলিত। অভিভাবকরা প্রতিবন্ধী সন্তানদের নিয়ে সব সময় বিপাকে থাকেন। সমাজের কাছে সহযোগিতা পেলে প্রতিবন্ধীরা এগিয়ে যাবেই যাবে।’

চন্দন কুমার বনিক বর্তমানে সোনালী ব্যাংকের ঠাকুরগাঁও প্রিন্সিপাল অফিসের কর্মকর্তা। সকল প্রতিবন্ধকতাকে জয় করে ২০১৫ সালে চাকরি পেয়েছেন তিনি। তার উচ্চতা তিন ফুট। স্ট্রেচারের সাহায্য ছাড়া হাঁটা-চলা করতে পারেন না। জন্মের পর থেকেই এমন। এই শারীরিক প্রতিবন্ধকতা নিয়েই ঠাকুরগাঁও সরকারি কলেজ থেকে হিসাববিজ্ঞানে অনার্স ও মাস্টার্স সম্পন্ন করেছেন।

অদম্য এই মানুষটিকে জীবনে অনেক কঠিন পথ পারি দিতে হয়েছে। হাজারো কটূক্তি শুনেও থেমে যাননি। শুধুমাত্র মেধা আর নিরলস প্রচেষ্টার জোরে বলার মতো একটা পর্যায়ে এসেছেন। আর্থিক ও পারিবারিক সঙ্কটকে রূপান্তর করেছেন শক্তিতে। চন্দন বনিক এখন পর্যন্ত ২০টি চাকরির পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করেছেন। এর মধ্যে দশটি পরীক্ষা তিনি সুদূর ঠাকুরগাঁও থেকে ঢাকায় এসে দিয়েছেন। সোনালী ব্যাংকসহ চারটি ভাইভা দিয়ে আগের তিনটি চাকরি পাননি। কিন্তু তিনি থেমে যাননি। কোথাও কোনো কোচিংও করেননি। আবার নতুন করে শুরু করলেন। সোনালী ব্যাংকে প্রিলি ও লিখিত পাস করলেন। অবশেষে জীবনের চতুর্থ ভাইবা দিয়ে সফল হলেন; চাকরি পেলেন।

একবার ভাবুন তো- যে মানুষটি শারীরিকভাবে স্বাভাবিক নয়, স্ট্রেচার ছাড়া হাঁটতে পারেন না; পারিবারিক ও সামাজিক নানা প্রতিবন্ধকতা পেরিয়ে তিনি যদি নিজ যোগ্যতায় চাকরি পেতে পারেন, তাহলে আপনি কেন পারবেন না? অনেকেই বলতে পারেন- তার তো কোটা ছিল। হ্যাঁ ছিল, কিন্তু সেটা তো লিখিত পরীক্ষায় পাস করার পর কার্যকর হয়। নিজ মেধার যোগ্যতায় লিখিত পরীক্ষায় পাস করেছেন তিনি। অনেক কষ্টের বিনিময়ে ভালো চাকরি পেয়েছেন। বিয়েও করেছেন, নতুন করে বাঁচার স্বপ্ন দেখছেন।

গুণে গুণে বলুন তো- আপনি জীবনে মোট কয়টা পরীক্ষা দিয়েছেন? এর মধ্যে কয়টা পরীক্ষা যথাযথ প্রস্তুতি নিয়ে দিয়েছিলেন? চন্দন বনিক কিন্তু দশটি পরীক্ষা প্রস্তুতি নিয়ে দিয়ে সফল হয়েছেন। আসলে আমাদের প্রস্তুতি আর মনোবলের ঘাটতি রয়েছে। যার ফলে অল্পতেই হতাশ হয়ে যাই। আপনি-আমি চন্দনের থেকে অনেক ভালো অবস্থায় আছি। উনি পারলে আমরাও পারবো। মানুষ চাইলে পারে না- এমন কিছুই নেই!

১৯৮৬ সালে ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার বড়গাঁও ইউনিয়নের কদমরসুল গ্রামে অন্যান্য সব সাধারণ শিশুদের মতোই ভালোভাবেই জন্ম হয় চন্দন কুমার বনিকের। জন্মের ৩ বছর বয়সে হাঁটতে হাঁটতে পড়ে গিয়ে তার পায়ের হাড় ভেঙে যায়। তার বাবা রোহিনী চন্দ্র বণিক অনেক ডাক্তার ও কবিরাজ দেখান তাতেও চন্দনের পায়ের হাড় জোড়া লাগাতে পারেনি কেউ।

পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, জন্মের ৩ বছর বয়সে হাঁটতে হাঁটতে পড়ে গিয়ে পায়ের হাড় ভেঙে যাওয়ার পর তৎকালীন ঠাকুরগাঁও সদর হাসপাতালের কর্তব্যরত ডাক্তার ওমর আলীর কাছে নিয়ে যান এবং তিনি চিকিৎসার শুরুতেই জানান, চন্দন পোলিও রোগে আক্রান্ত হওয়ায় তার শরীরের হাড় খুব নরম। একবার ভাঙলে সেটি জোড়া লাগানো অসম্ভব। পরে চন্দনের বাবা তাকে চিকিৎসার জন্য রংপুর মেডিকেল কলেজের তৎকালীন ডাক্তার পার্থ সারথীর কাছে নিয়ে গেলে তিনিও একই কথা বলেন।

সর্বশেষ চন্দনের বাবা একমাত্র ছেলেকে ভালো করার জন্য এলাকার নানান রকম মাহাতো-মুন্সি, তাবিজ-কবজসহ নানা রকম কুসংস্কারপন্থি কাজ করেন। চন্দনের দুই বোন। তারা অবশ্য স্বাভাবিক। চন্দনের বাবা সদর উপজেলার ভুল্লী বাজারে একটি জুয়েলার্সের দোকানে কাজ করেন। অনেক কষ্ট করে তাদের পরিবার চালাতে হতো। চন্দনের পড়ালেখার খরচ জোগাতে পারছিল না তার পরিবার। চন্দন শহরে নিজে প্রাইভেট পড়িয়ে লেখাপড়া চালিয়ে শিক্ষা জীবন শেষ করে আজ কর্মজীবনে সফল হয়েছেন।

প্রাথমিক স্কুল হিসেবে বাড়ির পাশের কদম রসুল প্রাথমিক স্কুলে ৫ম শ্রেণি পর্যন্ত কেটে যায় তার। পরবর্তীতে ৬ষ্ঠ শ্রেণিতে কদম রসুল উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজে ভর্তি হয় সে। সেখান থেকে সাফল্যের সঙ্গে উত্তীর্ণ হয়ে একাদশ শ্রেণিতে ভুল্লী ডিগ্রি কলেজে ভর্তি হন। ভালো ফলাফলের সঙ্গে এইচএসসিতেও পাস করেন তিনি। পরে বাবার ইচ্ছেই ঠাকুরগাঁও সরকারি কলেজে হিসাববিজ্ঞান বিষয় নিয়ে অনার্সে ভর্তি হয়। সেখানে অনার্স প্রথম বিভাগে পাস করে চন্দন। ২০১০ সালে দিনাজপুর সরকারি কলেজ থেকে হিসাববিজ্ঞানে মাস্টার্স করেন।

পড়ালেখা শেষ করে ৩ বার বিভিন্ন ব্যাংকে পরীক্ষায় উত্তীর্ণ না হওয়ায় হতাশ হয়ে পড়েন চন্দন কুমার বনিক। অবশেষে ২০১৫ সালের জুন মাসে সোনালী ব্যাংকের অফিসার পদে উত্তীর্ণ হয়েছেন তিনি। অবসান ঘটিয়েছেন প্রতিবন্ধকতার।

চন্দনের শিক্ষা জীবন সম্পর্কে তার গ্রামের বাড়ির কদম রসুল প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সাবেক প্রধান শিক্ষক নজরুল ইসলাম বলেন, ‘ছোটবেলা থেকে চন্দন খুব মেধাবী ও প্রখর স্মৃতিশক্তির অধিকারী ছিল। সে প্রতিটি ক্লাশে প্রথম স্থান অধিকার করেছে। সে আজ আমাদের গ্রামের গৌরব। ইচ্ছে থাকলে সফল হওয়া যায় সেটা চন্দন দেখিয়ে দিয়েছে।

ঠাকুরগাঁও সরকারি কলেজের হিসাববিজ্ঞান বিভাগের প্রধান রফিকুল ইসলাম বলেন, ‘সরকারি কলেজের হিসাববিজ্ঞান বিভাগের মেধাবী ছাত্র ছিল চন্দন। তার নিয়মিত কষ্ট করে কলেজে আসা আমাকে অবাক করেছিল। আমি চন্দনকে বলেছিলাম সে একদিন সফল হয়ে কলেজের মান উজ্জ্বল করবে। সে পেরেছে সফলতা অর্জন করতে। চন্দনের মতো প্রতিটি ছেলে যদি নিয়মিত লেখা-পড়া করে তাহলে আমাদের দেশে শিক্ষার হার এগিয়ে যাবে।’

চন্দনের সহপাঠী আব্দুল আওয়াল বলেন, ‘চন্দন ঠাকুরগাঁও কলেজের হিসাববিজ্ঞান বিভাগের সবচেয়ে ভালো ছাত্র ছিল। আমি চন্দনের কাছে হিসাববিজ্ঞানের অঙ্কগুলো বুঝিয়ে নিতাম। আজ সে শিক্ষা জীবন শেষ করে কর্মজীবন শুরু করেছে। সে অন্যান্য সাধারণ মানুষের মতো জীবন চালিয়ে নিচ্ছে। চন্দনের সংগ্রামী জীবন কলেজের ছাত্র-ছাত্রীদের অবাক করে দিয়েছে।’

 

চন্দনের বাবা রোহিনী চন্দ্র বনিক বলেন, ‘আজ আমি একজন সফল বাবা। চন্দনের কলেজে যখন টাকা দিতে পারতাম না বাসায় খুবই কান্না করতাম। তবুও চন্দন হতাশ হয়নি। সে সব সময় আমাকে শান্ত্বনা দিত। আর প্রাইভেট পড়িয়ে লেখাপড়ার খরচ চালিয়ে নিতো। আমার চন্দন এখন সফল। সে ভুল্লী জালালী বানিয়া পাড়া এলাকার গৌরব। তার এই সফলতা আরো অন্যান্য প্রতিবন্ধীদের এগিয়ে নিয়ে যাবে বলে আশা করি।

চন্দন কুমার বনিক বলেন, ‘নিজেকে আজ সার্থক মনে হচ্ছে এই ভেবে যে এখন আমি একটা ভালো চাকরি করছি। গ্রামে গেলে লোকজন আমাকে দেখতে আসে। পরিবারের লোকজনের স্বপ্ন পূরণ করতে পেরেছি। এখন ঠাকুরগাঁওয়ে একটি বাড়ি করে বাবা-মাকে শহরে নিয়ে চলে আসবো।’

তিনি আরও বলেন, ‘কলেজ জীবনের আমি আব্দুল আওয়াল, আনোয়ার, জাহেদুল ইসলাম, জাহাঙ্গীরসহ কয়েকজন বন্ধুর কথা কখনো ভুলতে পারবো না। আমি হাঁটতে পারতাম না। তারা আমাকে সাইকেলে করে কলেজ ও প্রাইভেটে নিয়ে গেছে। তাদের ওই সহযোগিতার কারণে আমার জীবনের সফলতা সহজ হয়েছে। আমাদের দেশে প্রতিবন্ধিরা অবহেলিত। শিক্ষার দিক থেকে প্রতিবন্ধিরা অনেক পিছিয়ে রয়েছে। আমার মতো প্রতিবন্ধিরা যেন শিক্ষিত হতে পারে তাই তাদের পাশে দাঁড়াতে চাই।

ঠাকুরগাঁও সোনালী ব্যাংকের ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার সামছুল আলম বলেন, ‘চন্দন কুমার বনিক ব্যাংকের একজন কর্মঠ অফিসার। তার কাজের মান আমাকে মুগ্ধ করেছে। তাকে সকল প্রকার সহযোগিতার জন্য কর্মকর্তাদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। তার প্রতিবন্ধকতার জয় আমাদের।

 

ছড়িয়ে দিন

Calendar

October 2021
S M T W T F S
 12
3456789
10111213141516
17181920212223
24252627282930
31