ঢাকা ২৪শে জুলাই ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ৯ই শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৭ই মহর্‌রম ১৪৪৬ হিজরি


ফারহানা রহমান ও তাঁর পঞ্চকন্যা

redtimes.com,bd
প্রকাশিত জুলাই ৯, ২০২৪, ০৮:৩৩ পূর্বাহ্ণ
ফারহানা রহমান ও তাঁর পঞ্চকন্যা
ভোকাট্টা
জলছাদ ডুবে গেছে
জলের আবেগে
সারি সারি দীর্ঘ আলোর
মতো স্রোত
আর অবিরাম জলের
নেশায় যখন
ডুবে যায় তোমার শহর,
তোমার হৃদয়
তখনো কি পিপাসায়
জরজর হয় তোমার দুচোখ ?
আর তাহলে কি তুমিই সেই
অন্ধ ঘুড়ির আকুতিভরা ভোকাট্টা
ভোর হলেই বিকেলের পিপাসায়
তৃষিত হতে হতে মরে যাও…
সাইরেন
দুহাতের আঙ্গুলগুলো কবে যে
একে একে খসে পড়েছে
এখন আর মনে নেই
তবু আজও রঙিন আংটি পরে
ঘুরে মরে কত ব্যথিত হৃদয়
এখানে হারিয়ে যাওয়ার পথ নিদারুণ অন্ধকার
পথে পথে ইশারায় ডাকে প্রলুব্ধ শিকার !
তখন আঁজলা ভরে উঠে
আসে নীল বিষাদ, বৃষ্টিতে গলে যায় স্বপ্ন
ক্ষুধার্ত চোখের সুরভী যখন পিত
জলের আধারে ডুবে যায়
মুখোশের সব আবরণ খোসে পড়ে
সমস্ত পৃথিবী জুড়ে শুরু হয়
অকারণ বৃষ্টিপাত
দিকে দিকে বেজে ওঠে
যুদ্ধের বিষণ্ণ সাইরেন!
আদম অথবা ইভ
শেষ বিকেলের রোদ্দুরে
সময়ের সাথে মিশে থাকে
বিপ্রতীপ আভা
গোধূলিস্নানের পর
ঘোরগ্রস্ত গতি ও প্রেম
স্নায়ুকোষে ঘুরপাক খেতে খেতে
আত্মপ্রতিকৃতিতে বিষাদিত মায়া;
ঠাস বুনটের সরণী জুড়ে
পড়ে থাকে সমস্ত শিহরণ!
এই ধুলিময় রসনায়,
অন্তহীন আড়ালের পর
আদম অথবা ইভ;
প্রেম, বিষাদ অথবা
আনন্দের বুনোযোগে
মুঠোয় মুঠোয় তৃপ্ত ঈশ্বর,
এরপর দুজনের স্বর দুরকম!
সময় নিঃশেষ হয়
কিছুই থাকে না বাকী আর…
পশ্চিমে হেলে পড়া সূর্য
হয়ে যায় ম্লান:
ক্লান্ত আদম সাজঘরে চলে গেলে
আর ঈগলের পাখার ফোয়ারায়
ভর করে
ইভ হেঁটে যায় একা…
জলেররাত
এই বিভ্রম ! এই কাঁচের বালুকাবেলায়
সিলিকনের মেমোরির নির্জনে
অজানার পথে হেঁটে যাওয়া !
ভাঙ্গা একটি দিন জুড়ে বিচ্ছিন্নতায়
গাছের বিস্তৃত শিকড় যেখানে ছড়ায়
সেখানেই ছিল কোনো এক নীল পরিখা
এই মায়াবী আলোকিত বৃষ্টিরাতে
কদমকেতকীর বনে
ছায়াঘেরা আচ্ছন্নতার মাঝে
বয়ে যাওয়া বরফের কুচি
আয়নার সাথে কথা বলে যেসব কুরচি ফুল
স্মৃতির আঁচলে উল্কি আঁকে;
সেই যে সুগন্ধি আগুনদ্যুতির ভাসান
আর আমি তো এভাবেই
বৃষ্টিতে পাতা ঝরে যাওয়ার আগেই
বিদায় বলেছি তোমায়
জানি আলোকগাছ ঝরাবে আগুন
তবু জেন সে স্পর্শের বিনিময়ে
ফোয়ারার ডানার ভাঁজে ভাঁজে
ঘুমিয়েছিল একটি জলেররাত !
জানি সেই রাতের সাথে
দেখা হবে না আর কোনোদিন ।
আগুন
জলের আড়াল ভুলে গিয়ে
সাঁকো পার হতে,
খুলে যায় পায়ের আগল
ঘাটের কিনারে ঠায় বসে থেকে
ক্রমাগত ক্ষয়ে ক্ষয়ে অবশেষে
পাখির ডানায় ভর দিয়ে
উড়ে গেছে পাথরের দেবী
জোনাকির চোখে চোখ রেখে
চুপিচুপি কত কথা বলেছে সে
নিদারুণ পিপাসায়
তবু জল ভেঙে ভেঙে পায়ের তলায়,
কোনো একদিন
পিদিমের আলো পায়ে ডলে দেয়
গনগনে আগুন বুকের ভেতর লুকিয়ে…

সংবাদটি শেয়ার করুন

July 2024
S M T W T F S
 123456
78910111213
14151617181920
21222324252627
28293031