ফেরি দুর্ঘটনার কারণ অনুসন্ধান করবে ৭ সদস্যের কমিটি

প্রকাশিত: ৭:১৯ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২৭, ২০২১

ফেরি দুর্ঘটনার কারণ অনুসন্ধান করবে ৭ সদস্যের কমিটি

মানিকগঞ্জের পাটুরিয়ায় ফেরি কাত হয়ে পড়ার ঘটনায় ৭ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করেছে নৌ পরিবহন মন্ত্রণালয়। এই কমিটি ফেরি দুর্ঘটনার কারণ অনুসন্ধান করে ভবিষ্যতে এ ধরনের দুর্ঘটনা রোধকল্পে সুপারিশ করবে। আগামী সাত কার্যদিবসের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়েছে কমিটিকে।

 

নৌ পরিবহন মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (উন্নয়ন) সুলতান আব্দুল হামিদকে তদন্ত কমিটির আহ্বায়ক করা হয়েছে। সদস্য সচিব করা হয়েছে বিআইডব্লিউটিসির পরিচালক মো: রাশেদুল ইসলাম। কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন, বিআইডব্লিউটিএর পরিচালক রকিবুল ইসলাম তালুকদার। নৌ পরিবহন অধিদপ্তরের নটিক্যাল সার্ভেয়ার এন্ড এক্সামিনার ক্যাপ্টেন সাঈদ আহমেদ, মানিকগঞ্জ স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ পরিচালক, বুয়েটের নেভাল আর্কিটেকচার এন্ড মেরিন ইঞ্জিনিয়ারিং ডিপার্টমেন্টের সহযোগী অধ্যাপক ড. জুবায়ের ইবনে আউয়াল, ফরিদপুর অঞ্চলের নৌ পুলিশের পুলিশ সুপার মো: জসিম উদ্দিন।

 

বিআইডব্লিউটিসির আরিচা কার্যালয়ের ডিজিএম জিল্লুর রহমান সকালে জানান, দৌলতদিয়া ঘাট থেকে যানবাহন লোড করে পাটুরিয়ার ৫ নম্বর ঘাটে ফেরিটি নোঙর করে। ফেরি থেকে দু-তিনটি যানবাহন নামার পরপরই এটি কাত হয়ে ডুবে যায়।

 

পরে নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের জ্যেষ্ঠ তথ্য কর্মকর্তা জাহাঙ্গীর আলম খান জানিয়েছেন, ফেরিটি কাত হয়ে হেলে পড়েছে, ডুবে যায়নি।

 

এ দুর্ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী শফিকুল ইসলাম জানান, তিনি খুলনা থেকে ঢাকায় ফিরছিলেন। তিনি যে ফেরিতে ছিলেন, সেটি থেকে কিছু দূরে ছিল শাহ আমানত ফেরিটি। মাঝনদীতে পৌঁছালে পদ্মার স্রোত বেড়ে যায়। সে সময় তিনি দেখেন পেছনের ওই ফেরিটিতে পানি উঠছে। ঘাটের কাছাকাছি পৌঁছাতেই কাত হয়ে পানিতে আংশিক তলিয়ে যায়।

 

দৌলতদিয়া ঘাটের নৌপুলিশ ফাঁড়ির পরিদর্শক সৈয়দ জাকির হোসেন জানান, ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরি দল ফেরির ডুবে যাওয়া অংশে এখনও কাউকে আটকে থাকা অবস্থায় পায়নি। ফেরিতে কোনো ব্যক্তিগত গাড়ি ছিল না। তবে তিনটি মোটরসাইকেল ভাসমান অবস্থায় পাওয়া গেছে। সেগুলোর চালক ঘাটে অবস্থান করছেন।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

Calendar

August 2022
S M T W T F S
 123456
78910111213
14151617181920
21222324252627
28293031