বঙ্গবন্ধুকে ভালোবেসে আমি কাজ করছি ,কোন পদক বা সম্মাননা পাওয়ার জন্য নয়

প্রকাশিত: ৮:৫৪ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ২, ২০২১

বঙ্গবন্ধুকে ভালোবেসে আমি কাজ করছি ,কোন পদক বা সম্মাননা পাওয়ার জন্য নয়

মোহাম্মদ শামস-উল ইসলাম

বঙ্গবন্ধুকে ভালোবেসে ২০১০ সালে সর্ব প্রথম অগ্রণী ব্যাংক মৌলভীবাজার আঞ্চলিক কার্যালয়ে “বঙ্গবন্ধু কর্নার” স্থাপন করি । বাংগালী জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকীকে স্মরণীয় করে রাখতে অগ্রণী ব্যাংকের প্রতিটি শাঁখায় “বঙ্গবন্ধু কর্নার” স্থাপন করা হয়েছে । ১৬ মার্চে সিঙ্গাপুরে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবর্ষ পালনের অংশ হিসেবে দেশের বাইরে প্রথম “বঙ্গবন্ধু কর্ণার” স্থাপন করা হয় “অগ্রণী এক্সচেঞ্জ হাউজ প্রাইভেট লিমিটেড, সিঙ্গাপুরে। দেশের বাইরে এটাই প্রথম কোন আর্থিক প্রতিষ্ঠান কর্তৃক “বঙ্গবন্ধু কর্ণার” স্থাপন।
, আমি “বঙ্গবন্ধুর কর্নার” প্রতিষ্ঠিত করছি কোন পদক বা সম্মাননা পাওয়ার জন্য নয়।

এখন তো ব্যাংক খাতের বাইরেও বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে অনেক বড় ধরনের গবেষণা হচ্ছে। সরকারের নির্দেশনায়, বিদ্যালয়সহ সরকারি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানেও গড়ে উঠছে বঙ্গবন্ধু কর্নার। তবে এই উদ্যোগের শুরুটা এতটা সহজ ছিল না। একটা সময় তো বঙ্গবন্ধুর নামও নেওয়া যেত না।

তবে আমরা এত কিছু চিন্তা করে করিনি। হৃদয় থেকে সম্মান প্রদর্শনের জন্য করেছি। ২০০৯ এর শেষ দিকে আমি যখন অগ্রণীর মহাব্যবস্থাপক (জিএম) হয়ে মৌলভীবাজার জেলায় বদলি হয়ে গেলাম, তখন থেকেই চিন্তা করছিলাম কীভাবে বঙ্গবন্ধুর প্রতি আমি আমার শ্রদ্ধা জানাব। এই চিন্তা থেকে আমি ২০১০ সালে ছোট পরিসরে মৌলভীবাজার শাখায় বঙ্গবন্ধুর ওপর লেখা কিছু বই নিয়ে বঙ্গবন্ধু কর্নার গড়ে তুলি।

শুরুতে অনেক সমালোচনা হয়েছে। অনেকে বলেছে, আওয়ামী লীগ সরকারে না থাকলে চাকরি থাকবে না। কিন্তু আমি তো আওয়ামী লীগের জন্য করিনি। ব্যক্তি মুজিবের জন্য করেছি। বঙ্গবন্ধু না থাকলে দেশও স্বাধীন হতো না, আর এই অঞ্চলের ছেলেদের কখনো জিএম করা হতো না।’

ব্যক্তিগত জীবনে আমরা যেমন কাউকে শ্রদ্ধা জানাতে দোয়া করি বা কোনো ধরনের নৈবেদ্য প্রকাশ করি। তেমনি করপোরেট পর্যায়ে জাতির পিতার প্রতি শ্রদ্ধা জানানোর জন্য আমি বঙ্গবন্ধু কর্নার গড়ে তোলার প্রয়াস নিই।

যখন ২০১৫ সালে আনসার-ভিডিপি ব্যাংকের এমডি হিসেবে যোগ দিলাম, তখন সেখানে দেখলাম চেয়ারম্যানের রুমের সামনের জায়গাটা প্রায় ফাঁকা পড়ে থাকে। তখন ওই জায়গাটায় বঙ্গবন্ধুর ওপর প্রকাশিত বই, গান, ভাষণের সিডি এসব দিয়ে একটি লাইব্রেরির মতো গড়ে তুলি। সেখানে প্রথম গ্লাস ফাইবার দিয়ে বানানো বঙ্গবন্ধুর একটি আবক্ষ মূর্তি বসানো হয়। যাতে সব সময় বঙ্গবন্ধুকে দেখছি বলে মনে হয়।

পরে ২০১৬ সালে অগ্রণী ব্যাংকে এমডি হয়ে এখানেও একটি কর্নার করেছি। এখানেও একটি আবক্ষ মূর্তি বসাই। ব্রোঞ্জের এই মূর্তিটির ওজন ১১৭ কেজি। এরপর ব্যাংক খাতের অনেক প্রতিষ্ঠানই এ ধরনের উদ্যোগ নিয়েছে। এর মধ্য দিয়ে প্রাতিষ্ঠানিক পর্যায়ে বঙ্গবন্ধুকে জানা সম্ভব হচ্ছে। আর তাকে না জানা হলে বাংলাদেশকে জানা সম্ভব নয়।

আমি যখন “বঙ্গবন্ধুর কর্ণার” চালু করি তখন আমাকে অনেকই বিভিন্নভাবে সমালোচনা করেছেন। আজ মুজিব শতবর্ষে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী সারাদেশে “বঙ্গবন্ধু কর্নার” স্থাপন করার সিদ্বান্ত নিয়েছেন তাতে আমি অনেক খুশী হয়েছি। আমি মুজিবশতবর্ষ উপলক্ষে প্রত্যেকটি বিভাগীয় শাখায় “মুজিব কর্ণার” স্থাপন করেছি। আমি মুজিবশতবর্ষে উত্তরবঙ্গের চর এলাকায় বঙ্গবন্ধুর নামে একটি আদর্শ ও স্বাস্থ্যসম্মত গ্রাম গড়েছি। বাংলাদেশ শিশু একাডেমিতে আমি (অগ্রণী ব্যাংক) এবার বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকীতে বঙ্গবন্ধু গোল্ড মেডেল দিয়েছি।
মুজিবশতবর্ষ উপলক্ষে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে ঢোকার মুখে আমি একটি বঙ্গবন্ধু মোরাল স্থাপন করছি। এছাড়া রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের মেধাবী ছাত্রছাত্রীদের বঙ্গবন্ধ গোল্ড মেডেল দিয়েছি।

আজ সারাদেশে প্রধানমন্ত্রী “মুজিব কর্ণার” করার সিদ্বান্ত নিয়েছেন এবং তা বাস্তবায়ন হচ্ছে তাতে আমার চেয়ে বেশি আর কেউ খুশি নয়,
আমি মনেকরি বঙ্গবন্ধুর কারণেই আজ আমি অগ্রণী ব্যাংকের এমডি ও সিইও। দেশ স্বাধীন না হলে আমি কোন দিনই অগ্রণী ব্যাংকের এমডি ও সিইও হতে পারতাম না। তাই বঙ্গবন্ধুকে ভালোবেসে আমার মনের টানে “বঙ্গবন্ধ কর্ণার” প্রতিষ্ঠিত করার চিন্তা করি।
আমি আনসার ভিডিপি উন্নয়ন ব্যাংকের এমডি থাকা অবস্থায়ও ২০১৫ সালে বঙ্গবন্ধুর ৪১তম শাহাদতবার্ষিকীতে ব্যাংকটির দ্বিতীয় তলায় চেয়ারম্যানের কক্ষ ও বোর্ডরুম সংলগ্নে আমি দ্বিতীয় ‘বঙ্গবন্ধু কর্নার’ স্থাপন করি। আমি অগ্রণী ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এমডি ও সিইও হিসেবে যোগদানের একশ’ দিনের মধ্যেই প্রধান কার্যালয়ের চেয়ারম্যান, আমিসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের ফ্লোরের প্রবেশদ্বারে বঙ্গবন্ধু কর্নার স্থাপন করেছি। এখানে রয়েছে বঙ্গবন্ধুর ১০০ কেজি ওজনের ব্রোঞ্জের একটি আবক্ষ ভাস্কর্য। আরও আছে বঙ্গবন্ধু সম্পর্কিত বিভিন্ন বই, বক্তৃতার সিডি, অ্যালবামসহ বিভিন্ন প্রকাশনা। এখানে স্থাপিত মনিটরে বঙ্গবন্ধুর ভাষণ শোনার ব্যবস্থাও রয়েছে।বঙ্গবন্ধু কর্নার স্থাপন নিয়ে আমি নানান মানুষের নানান রকমের সমালোচনা শুনেছি। সেসব উপেক্ষা করে আমি বঙ্গবন্ধুকে ভালোবাসে “বঙ্গবন্ধুর কর্নার” স্থাপন করেছি।
আমার এই উদ্যোগ যে আজ বঙ্গবন্ধুর জন্ম শতবার্ষিকীতে ‘বঙ্গবন্ধু কর্নার’ পরিপুর্ন্যতা লাভ করেছে এর চেয়ে বড় পাওয়া হয়তো আমার জীবনে নাও আসতে পারে “বঙ্গবন্ধু কর্নার” এখন বাংলাদেশ ব্যাংকসহ প্রতিটি ব্যাংক, বিমা, স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়সহ দেশের বিভিন্ন সরকারি, বেসরকারি স্থাপনায় দর্শনীয় স্থানে শোভা পাছে এর চেয়ে আমার জীবনে আর কি পাওয়ার আছে।

মোহাম্মদ শামস-উল ইসলামঃ অগ্রণী ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এমডি ও সিইও

Calendar

April 2021
S M T W T F S
 123
45678910
11121314151617
18192021222324
252627282930  

http://jugapath.com