বনানী কবরস্থানে চিরনিদ্রায় শায়িত হলেন জাহানারা হক

প্রকাশিত: ৫:৪৮ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ১৮, ২০২০

বনানী কবরস্থানে চিরনিদ্রায় শায়িত হলেন জাহানারা হক

আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী আনিসুল হক এর মা এবং অ্যাডভোকেট সিরাজুল হক এর সহধর্মিণী বীর মুক্তিযোদ্ধা জাহানারা হক-কে চিরনিদ্রায় শায়িত করা হলো রাজধানীর বনানী কবরস্থানে। এর আগে আজ বাদযোহর বনানীর ১১ নম্বর রোড সংলগ্ন পানি উন্নয়ন বোর্ডের জামে মসজিদে পারিবারিকভাবে ও সীমিত পরিসরে মরহুমার নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হয়।
বীর মুক্তিযোদ্ধা হওয়ায় নামাজে জানাজার পর মরহুমাকে গার্ড অভ অনার প্রদান করা হয়।

জানাজায় আইনমন্ত্রী আনিসুল হক ও তাঁর আত্মীয় স্বজন ছাড়াও প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন, রেলপথ মন্ত্রী নূরুল ইসলাম সুজন, বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ, বিচারপতি ড. জাকির হোসেন, সাবেক স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী মহিউদ্দিন খান আলমগীর, ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর আসনের এমপি র. আ. ম. উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী, আইন সচিব গোলাম সারওয়ার সহ আইন মন্ত্রণালয়ের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

বীর মুক্তিযোদ্ধা জাহানারা হক, শুক্রবার দিবাগত রাত ৩:৪০ মিনিটে রাজধানীর এপোলো হাসপাতালে ইন্তেকাল
করেন। তিনি ২৭ অক্টোবর ২০১৯ তারিখ থেকে এপোলো হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন। তিনি দীর্ঘদিন যাবৎ
হৃদরোগ সহ বিভিন্ন রোগে ভুগছিলেন। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিলো ৮৫ বছর ০৫ মাস ২১ দিন।

তিন বছরের ব্যবধানে মন্ত্রী তাঁর ভাই, বোনের পর মাকে হারালেন। ২০১৭ সালের ১০ মার্চ যুক্তরাষ্ট্রের ডালাসে
একটি হাসপাতালে মন্ত্রীর একমাত্র ছোট ভাই আরিফুল হক রনি চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। মৃত্যুকালে তিনি
স্ত্রী, দুই পুত্র ও এক কন্যা রেখে গেছেন।মন্ত্রীর একমাত্র বড় বোন সায়মা ইসলাম ২০১৮ সালের ১৫ জুলাই ঢাকায় মারা
যান। তিনি স্বামী ও এক ছেলে রেখে গেছেন। বিয়ের কিছুদিন পর ১৯৯১ সালের ২ জানুয়ারি সড়ক দুর্ঘটনায় স্ত্রী
নূর আমাতুল্লাহ্ রিনা হককে হারান আইনমন্ত্রী। এরপর তিনি আর বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হননি। তাঁর কোন সন্তান
নেই।

২০০২ সালের ২৮ অক্টোবর মারা যান বঙ্গবন্ধুর বিশ্বস্ত ও ঘনিষ্ট সহচর আনিসুল হকের পিতা এডভোকেট সিরাজুল
হক। তিনি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম মেম্বার, জাতীয় সংসদ সদস্য, মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক,
বাংলাদেশ সংবিধানের অন্যতম প্রণেতা, প্রখ্যাত আইনজীবী ও বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলার চিফ প্রসিকিউটর ছিলেন।

আনিসুল হক ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৪ (কসবা-আখাউড়া) আসনের সংসদ সদস্য। ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত দশম
জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ও ২০১৮ সালের ৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ওই আসন থেকে
সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন তিনি।

বীর মুক্তিযোদ্ধা জাহানারা হক এর মৃত্যুতে শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন যারা
বীর মুক্তিযোদ্ধা জাহানারা হক এর মৃত্যুতে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন মহামান্য রাষ্ট্রপতি মো. আব্দুল হামিদ, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা,প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন, কৃষিমন্ত্রী জনাব ড. আব্দুর রাজ্জাক, তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ , অর্থমন্ত্রী আ হ ম মোস্তফা কামাল, শিল্প মন্ত্রী নুরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন, মৎস্য ও প্রাণি সম্পদ মন্ত্রী শ. ম. রেজাউল করিম, পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রী, মো. শাহাব উদ্দিন, ভূমিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী জাবেদ, রেলমন্ত্রী মো. নূরুল ইসলাম সুজন, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রী জনাব ইয়াফেস ওসমান, ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার, শিল্প প্রতিমন্ত্রী কামাল আহমেদ মজুমদার, বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ,নৌ পরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, তথ্য প্রতিমন্ত্রী ডা. মুরাদ হাসান, মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী বেগম ফজিলাতুন নেছা ইন্দিরা,আইসিটি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক এবং জাতীয় পার্টীর চেয়ারম্যান জি এম কাদের সহ প্রমুখ।

ছড়িয়ে দিন