বর্ণাঢ্য আয়োজনে তুরস্কে চৈত্র সংক্রান্তি ও বাংলা নববর্ষ পহেলা বৈশাখ” উদ্যাপন

প্রকাশিত: ১২:০৮ পূর্বাহ্ণ, এপ্রিল ১৬, ২০২১

বর্ণাঢ্য আয়োজনে তুরস্কে চৈত্র সংক্রান্তি ও বাংলা নববর্ষ পহেলা বৈশাখ” উদ্যাপন

সংবাদ বিজ্ঞপ্তি-আঙ্কারা : বাংলাদেশ দূতাবাস প্রাঙ্গনে যথাযথ উৎসাহ উদ্দীপনার মধ্যে দিয়ে চৈত্র সংক্রান্তি ও পহেলা বৈশাখ উদ্যাপিত হয়েছে । করোনা সংক্রামণ প্রতিরোধে স্বাস্থ্যবিধি ও সামাজিক দূরত্ব মেনে সকালে তুরস্কে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মসয়ূদ মান্নান এনডিসি দূতবাসের কর্মকর্তা/কর্মচারীবৃন্দের সমন্বয়ে উত্তরিয় পরিধান করে একটি বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রায় অংশ নেন । অতপরঃ সবার মাঝে বিশেষ উপহার সামগ্রী বিতরণ করেন।

১৪ই এপ্রিল বাংলা নববর্ষ ১৪২৮ উপলক্ষ্যে অনুষ্ঠানের দ্বিতীয় অংশ জুম প্লাটফর্মের মাধ্যমে উদ্যাপিত হয়। অনুষ্ঠানের শুরুতে মান্যবর রাষ্ট্রদূত মসয়ূদ মান্নান এনডিসি সকলের উদ্দেশ্যে শুভেচ্ছা বক্তব্য প্রদান করেন ও দিবসটি উপলক্ষ্যে মহামান্য রাষ্ট্রপতি কর্তৃক প্রেরিত বাণী পাঠ করেন এবংমাননীয় প্রধানমন্ত্রীর বাণী পাঠ করে শোনান মিনিস্টার ও মিশন উপ-প্রধান জনাব মোঃ রইস হাসান সরোয়ার।

জুমে উপস্থিত সকলের উপস্থিতিতে একটি মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান আয়োজন করা হয়। শুরুতেই এসো হে বৈশাখ ও মঙ্গল শোভাযাত্রা উপর দুইটি ভিডিও ডকুমেন্টারী প্রদর্শিত হয়। অতপরঃ দূতাবাসের প্রতিরক্ষা উপদেষ্টার সহধর্মীনি মিসেস সাবরিনা তাসনিম মাহিন এবং সুদূর লন্ডন থেকে কবি সৈয়দ আল ফারুক ও নাহিদ নাজিয়া দম্পতি বৈশাখী গান ও কবিতা পরিবেশন করেন। এছাড়াও মান্যবর রাষ্ট্রদূত ও মিশন উপ-প্রধান আরও দুইটি কবিতা আবৃত্তি করেন।এরপরে বাংলাদেশের শাড়ীর উপর আরেকটি ভিডিও ডকুমেন্টারী প্রদর্শন করা হয়। তুরস্কের জনসাধারণের কাছে বৈচিত্রময় বাঙ্গালী সংস্কৃতির বিভিন্ন দিক তুলে ধরাই ছিল সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান আয়োজনের প্রধান উদ্দেশ্য।

সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের শুরুতে মান্যবর রাষ্ট্রদূত মস্য়ূদ মান্নান এনডিসি বাংলা নববর্ষ বা পহেলা বৈশাখ উৎসবকে বাঙ্গালী সংস্কৃতির হাজার বছরের ঐতিহ্য হিসেবে বিবৃত করেন। বাংলা নববর্ষ বা পহেলা বৈশাখ ধর্ম, বর্ণ নির্বিশেষে সকল বাঙ্গালীর প্রাণের উৎসব এবং এ উৎসব বাংলাদেশের সর্বস্তরের মানুষর মধ্যে একধরনের সাংস্কৃতিক মেলবন্ধন তৈরি করতে সক্ষম হয়েছে বলে তিনি মন্তব্য করেন। সমৃদ্ধশালী বাঙ্গালী ঐতিহ্যকে তুরেস্কর জনসাধারণ ও বিশ^বাসীর মাঝে ছড়িয়ে দিতে বাংলাদেশ দূতাবাস, আঙ্কারা নিবিড়ভাবে কাজ করে যাচ্ছে এই মর্মে রাষ্ট্রদূত তাঁর বক্তব্যে উল্লেখ করেন। দূতাবাস কর্তৃক আয়োজিত বাংলা নববর্ষ পহেলা বৈশাখ”১৪২৮ উদ্যাপন অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণের জন্য সকল প্রবাসী বাংলাদেশী এবং উপস্থিত সকলের প্রতি রাষ্ট্রদূত ধন্যবাদ জ্ঞাপণ করেন। পরিশেষে ঐতিহ্যবাহীবাঙ্গালী খাবার বিতরণের মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠানটির সমাপ্তি ঘটে।