বাঙালির অসাম্প্রদায়িক চেতনা -হিন্দু বিধবাকে গৃহ নির্মাণ করে দিচ্ছেন ইউসুফ আলী

প্রকাশিত: ২:০১ পূর্বাহ্ণ, জানুয়ারি ৩১, ২০২০

বাঙালির অসাম্প্রদায়িক চেতনা -হিন্দু বিধবাকে গৃহ নির্মাণ করে দিচ্ছেন ইউসুফ আলী

আহমেদ বকুল
মাসখানেক আগে আমাদের এলাকায় শাহজালাল ইসলামী ব্যাংক মৌলভীবাজার শাখার উদ্যোগে অর্ধশতাধিক মানুষের মধ্যে কম্বল বিতরণ করা হয় । আমি ব্রাঞ্চ ম্যানেজার শাহাদত বখত শাহেদ ভাইকে অনুরোধ করেছিলাম আমার এলাকায় গরিব মানুষের মধ্যে কম্বল বিতরণ করা জন‌্য। তিনি তাৎক্ষণিকভাবে রাজি হয়েছিলেন । নির্দিষ্ট দিন ছড়াকার রানা কুমার সিংহ ও ছড়াকার শাহাদত বখত আমার এলাকায় কম্বল বিতরণ করেন। কম্বল বিতরণের পর কয়েকজন গরিব মহিলা তাদেরকে গৃহ নির্মাণ করে দেওয়ার জন্য কাকুতি মিনতি করে‌।

শাহজালাল ইসলামী ব্যাংকের এই মুহূর্তে গৃহনির্মাণের কোনো কর্মসূচি নেই। তারপরও শাহেদ ভাই বলেছিলেন, চেষ্টা করে দেখবেন কারো মাধ্যমে করে দেয়া যায় কিনা ।

প্রাথমিক পর্যায়ে ৫ জন মহিলার ঘরের তালিকা তৈরি করি। ঘরের ভিডিও চিত্র ধারণ করে ছোট ভাই নজরুল। তারপর অগ্রাধিকার ভিত্তিতে একজন বিধবা হিন্দু মহিলার গৃহ নির্মাণের জন্য উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়।

মৌলভীবাজারের একজন হৃদয়বান ব্যক্তি বিশিষ্ট ঠিকাদার মো: ইউসুফ আলী ব্যাংকার শাহেদ ভাই র ডাকে গৃহ নির্মাণ করে দেয়ার জন্য সাড়া দেন।
গতকাল শাহেদ ভাইয়ের সাথে আমার ফোনে কথা হয় । ছোট ভাই নজরুলকে তার সাথে দেখা করার জন্য বলেন। নজরুল আমাকে বলে আমাদের গ্রামের মুকুন্দ দাশ কয়েকমাস আগে হঠাৎ মারা গেছে। তার বউ-বাচ্চাকাচ্চা নিয়ে মানবেতর জীবনযাপন করছে। এবার ঠান্ডায় ইসলামী ব্যাংকের প্রদেয় একখানা কম্বল দিয়ে বাচ্চা-কাচ্চা নিয়ে ভাঙ্গা বেড়ার ঘরে থাকছে। প্রায় সপ্তাহ তাদের উপোস করতে হয়। সীমাহীন দারিদ্রতার মধ্যে এই পরিবারটি। মুকুন্দ দাশ যতদিন বেঁচে ছিল মানুষের কাজ কাম করে সংসার চালিয়েছে। হঠাৎ মারা যাওয়ায় তার পরিবার অথৈ সাগরে পড়ে গেছে বাচ্চা-কাচ্চা নিয়ে।

মুকুন্দের বউ প্রায় দিনই আমাদের বাড়িতে এসে কান্নাকাটি করে। গৃহ নির্মাণের জন্য ৫ জন মহিলার তালিকা তৈরি করেছিলাম। এদের চারজন মুসলমান একজন হিন্দু। হিন্দু জনের অবস্থা ভয়াবহ খারাপ।
! আমি কোন ধর্মের বেদ বিচার করিনি অসহায়ত্বের দিক দিয়ে বিচার করেছি। এ ব্যাপারে গৃহ দাতা মো: ইউসুফ আলী বলেন আমাদের দেশ অসাম্প্রদায়িক। আমি অসাম্প্রদায়িক চেতনা থেকে এই বিধবাকে গৃহ নির্মাণ করে দিচ্ছি। আমার কাছে সংখ্যালঘু হিন্দু সম্প্রদায়ের কোন বিভেদ নেই। তাই মানবিক দৃষ্টিতে মুকুন্দের অসহায় পরিবারের গৃহ নির্মাণ করছি।

নজরুল মৌলভীবাজার শাহেদ ভাইয়ের সাথে দেখা করেছে। শাহেদ ভাই আমাকে ফোন দিয়ে বললেন, গৃহদাতা ইউসুফ আলী সুন্দর একটি ঘর,বাথরুম ও কিচেন সহ
নির্মাণ করে দিতে রাজি হয়েছেন। আজ স্পটে গৃহ নির্মাণ সামগ্রী এসেছে! শুরু হয়ে যাবে কাজ। শাহেদ ভাই ও বললেন, আমরা কোন ধর্মের দিকে চেয়ে নয়- মানবিক দৃষ্টিতে এই অসহায় পরিবারকে গৃহ নির্মাণ করে দেবার ব্যবস্থা করেছি। শাহেদ ভাই আরও বললেন, এই বিধবা মহিলা ও তার বাচ্চা-কাচ্চাদের জন্য কাপড়চোপড় -নগদ কিছু অর্থ তাঁর ব্যক্তিগত তহবিল থেকে প্রদান করেছেন।

আমি খুব মানসিক ও শারীরিক কষ্টে আছি। এই কষ্টের মধ্যে গৃহহীন অসহায় বিধবা কে গৃহ নির্মাণ করে দেয়ার বিষয়টি আমাকে খুব উৎফুল্ল করেছে।
আমি ও ছোট ভাই নজরুল এবং ছড়াকার শাহেদ ভাই সকলেই এ ব্যাপারে খুব আন্তরিক ছিলাম। ধন্যবাদ দেই গৃহ দাতা ইউসুফ আলী কে । শাহেদ ভাই ম্যানেজার হিসেবে মৌলভিবাজার থাকলে ক্রমান্বয়ে বাকি ঘরগুলো হয়ে যাওয়ার আশা আছে।

একজন মানুষ তার অবস্থান থেকে চাইলে সমাজিক কিছু দায়-দায়িত্ব পালন করতে পারে। শাহেদ ভাই কে আমি সব সময় তাকদা দিয়েছিলাম। তিনিও শত ঝামেলার মধ্যে থেকে এই বিধবা মহিলার প্রতি যে মানবিক উদ্যোগ গ্রহণ করলেন তার জন্য কৃতজ্ঞ । মহান আল্লাহ পাক শাহেদ ভাই ও গৃহ দাতা ইউসুফ আলীকে সুস্বাস্থ্য ও দীর্ঘায়ু দান করেন। ছোট ভাই নজরুল তার পকেটের টাকা খরচ করে ও সময় দিয়ে এরূপ মহৎ কর্ম করায় দোয়া করছি।
মহান আল্লাহ পাক গৃহদাতা ইউসুফ আলী ও সহায়তাকারী শাহেদ ভাই কে প্রশান্তি দান করুন।

ছড়াকার শাহাদত বখত শাহেদ কর্তৃক প্রদেয় নতুন জামা-কাপড় পড়ে মুকুন্দের পরিবার

ছবি: নজরুল ইসলাম

ছড়িয়ে দিন