বিদায় সহপাঠী কামরুজ্জামান

প্রকাশিত: ১২:৩৬ পূর্বাহ্ণ, আগস্ট ৩০, ২০২১

বিদায় সহপাঠী  কামরুজ্জামান

আনোয়ার চৌধুরী 
আমাদের এমসি কলেজের প্রিয় সহপাঠী  মোহাম্মদ কামরুজ্জামান ।  রবিবার  রাত ৩.১০ঘটিকায় ইন্তেকাল করেছেন( ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন )৷
মৌলভীবাজার শহরের বাসিন্দা কামরুজ্জামান ১৯৮২ সালে সিলেট এমসি কলেজ থেকে আমাদের সাথে কৃতিত্বের সাথে আইএসসি পাস করে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের রসায়ন বিভাগে ভর্তি হয়৷ সেখান থেকে বিএসসি (অনার্স) ও এমএসসি ডিগ্রি অর্জন করে নিজ শহর মৌলভীবাজারে শিক্ষকতা পেশায় যোগ দেয় ৷ ইতোমধ্যে সে আইনে স্নাতক ডিগ্রি অর্জন করে৷ এক পর্যায়ে মৌলভীবাজার জজকোর্টে আইন পেশায় নিয়োজিত হয়৷
কামরুজ্জামান ছিলো অনেকটা নিভৃতচারী মানুষ৷ সহপাঠিদের সাথে যোগাযোগ ছিলো কম৷ আমার সাথে বেশ কয়েক বছর আগে কথা হয়েছিলো৷ সম্প্রতি এমসি ১৯৮২ ব্যাচের ম্যাগাজিন ‘সেতুবন্ধন’ প্রকাশ উপলক্ষে ওর খোঁজ নিই ৷ সহপাঠি ইয়াওর খান অনেক চেষ্টা করে মোবাইল নং বের করে কথা বলে আমাকে কথা বলতে বলে৷ আমি অনেক সময় নিয়ে কথা বলি৷ অনেক স্মৃতিচারণ করি৷ ম্যাগাজিনের জন্য ছবিসহ তথ্য দেয়ার জন্য অনুরোধ করি৷ পরে দিবে বলে জানায়৷ কয়েক দিন পরে আবার ফোন করি৷ এক পর্যায়ে মৌখিকভাবে তথ্য নিয়ে নিই ৷ ওর ছেলের সহায়তায় ছবিও সংগ্রহ করি৷
কয়েক দিন আগে ইয়াওর জানায় কামরুজ্জামান অসুস্থ ৷ ভাবী কয়েক দিন আগে ইন্তেকাল করেছেন ৷ ফলে সে মানসিকভাবে বিপর্যস্ত ৷ ইয়াওর ও সহপাঠি জয়নাল ইসলাম চৌধুরী তাকে দেখে আসে৷ অবস্থা খারাপ ৷ Stroke করার কারণে শারীরিক অবস্থার অবনতি ঘটে৷ তাকে রাগিব-রাবেয়া মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে স্বজনেরা৷ একমাত্র সন্তান আরিফ ৮ম শ্রেনীর ছাত্র৷ সহপাঠিরা এগিয়ে আসার উদ্যোগ নেয়ার সময়েই সে চলে গেলো৷
কামরুজ্জামান একজন সরল প্রকৃতির মানুষ ছিলো৷ তার হাসিমাখা মুখটি যেন এখনো দেখতে পাই ! হে রাব্বুল আলআমিন আপনি দয়া করে তার জানা-অজানা সকল গুনাহ্ মাফ করে দিন আর জাননাতুল ফেরদৌস নসীব করুন ৷ তার কিশোর সন্তানটিকে হেফাজত করুন ৷ আমিন৷

ছড়িয়ে দিন