বয়ানে রামাদান ০১

প্রকাশিত: ১১:৪২ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ১৩, ২০২১

বয়ানে রামাদান ০১

— চৌধুরী হাফিজ আহমদ
সকল মাসের সেরা মাস বছর ঘুরে আবার আমাদের সাথে থাকবে পুরা ৩০ দিন এই মাসের অল্প কথায় পরিচয় হল আল কোরআনের জন্ম মাস তাই আ কোরআনের সাথে এর সম্পর্ক বেশী , এই মাসের আগমনে শুধু মানব জাতীতে নয় আনন্দ বিরাজ করে কুল মাখলুকের মধ্যে , এর কারন হচ্ছে এই মাসে জাহান্নাম এর দরোজা বন্ধ করে দিয়ে খুলে দেয়া হয় জান্নাতের সকল দরোজা , নানা সুসংবাদ নিয়ে আসে নানা রকম আয়োজনে ভরপুর এই মাস তাই সকল মাসের সেরা । এই মাসের অনুশীলনের মাধ্যমেই বাকী ১১ মাস আমাদের জীবন পরিচালিত করতে পারি , এই মাসের একটা ইবাদাত হাজার গুনে বাড়িয়ে দেয়া হয় এর মূল্যমান এই মাস বছর ঘুরে আমাদের মধ্যে উপস্তিত তাই এর কদর করতে পারাটাই হবে আমাদের সার্থকতা – আমরা শুধু শুধু উপোষ করে নিজের দেহ কে কষ্ট দিলেই সিয়াম হয়না সিয়ামের অর্থ হচ্ছে সংযম পালন এখন আমাদের বাহবতে হবে সংযম কাহাকে বলে , এর ব্যাপক অর্থ কিন্তু সামান্য কথায় বুঝতে হলে আমাদের বুঝতে হবে সকল প্রকার তাকওয়া অর্জন করাকেই বলা হয় সিয়াম , সাহুরে পেঠ পুরে খাওয়া এবং ইফতারিতে খাবার খেয়ে উদর পূর্তিকে সিয়াম বলা হয়না । এক দিকে রামাদানের সিয়াম এবং ক্কিয়াম তাসবিহ তাহলিল এইগুলার ফজিলত অন্যদিকে আলকোরআনের জন্ম মাসের বরকত এর সাথে সাথে তাওবার গুন আবার ধনীরা গরিবদের হাক্ক আদায়ে ততপরতায় শুধু চমক ই কাজ করে , প্রতি মুহূর্তে ক্ষমা করছেন প্রভু আবার মুহূর্তেই বান্দাহ যা চাইছে তাই কবুল করছেন – এই মাসটিতে গোলাম ও মালিকের মধ্যে সরাসরি যোগাযোগ তাই যে কোন ইবাদতের তাৎক্ষনিক ফায়সালা এই মাসকে করে তুলেছে মহিমান্বিত , রামাদান মাসের আগমন যেই মুহূর্ত সেই মুহূর্ত থেকেই এক সেকেন্ড ও অযথা কাজে ব্যায় করা যাবেনা , এমন কি হেলায় ও না , জপ নাম করতেই হবে সেই রবের যিনি আমার আপনার সকলের মালিক , তিনি আমাদের সকল চাহিদা পুরন করেছেন এবং করবেন , রামাদানের দিনে ও রাত্রে সমান সমান -এই সমতার একমাত্রে কারন ই হচ্ছে আল কোরআনের চাহিদা পুরন , কোরআনে যেমন আছে সকল কিছুর সমাধান তেমনি কোরআনের ও আছে কিছু দায়িত্ব ও কর্তব্য – যার কারনেই কোরআন করবে সুপারিশ এই রামাদানে আমাদের উচিত হবে বেশি বেশী আল কোরআনের তিলাওয়াত নিজে করা এবং কোরআনের খাতায় নিজের নাম লিখানোর জন্য প্রতিযোগিতা করা , রামাদানের নিজস্ব কিছু নিয়ম আছে এর মধ্যে – অল্প খাওয়া কিন্তু ভাল খেতে আপত্তি নাই – কথা কম বলা তবে প্রয়োজনীয় কথা বলতে আপত্তি নাই – দান সাদাক্কা করা বা সাহায্য করা – মেহমান বা মুসাফির দের ইফতার করানো – তাকওয়া করা – সালাতে সময় ব্যয় করা সাহহুরীতে কম খাবার খেয়ে ক্ষুধার কষ্ট অনুধাবন করা – এবং কোরআন চর্চা করা , যত বেশী পারবো কল্যাণের দুআ করব – এবং ইখলাছ এর সহিত নিজেকে ও জীবন কে যত দিন বাঁচব চালাব এই নিয়তে আল্লাহর কাছে আত্মসমর্পণ করব , রামাদান এক মাস আজ থেকে থাকবে আমাদের সাথে – এই নিয়ম শুধু আমাদের জন্য ই নির্ধারিত নয় তা ছিল আমাদের পূর্ববর্তীদের জন্য ও নির্ধারিত , আমাদের পূর্ববর্তীদের জন্য ছিল আরও কঠিন নিয়ম কিন্তু আমাদের জন্য তা করা হয়েছে সহজ , তাই আমরা রামাদান কে গ্রহন করব পরিবর্তনের মাস হিসাবে , এই মাসে গোনাহ জ্বালাব এবং পন করব আগামিতে আর গোনাহের কাজে পা বাড়াবো না , যদি আমরা দেখি তা হলে গোনাহ হচ্ছে সকল মন্দ কাজ – বিবেক বর্জিত সকল নোংরা কাজগুলাই হচ্ছে গোনাহ – এতে আরও আছে সমাজ দুষিত হয় এমন কাজ ও । তা ছারা শরিয়তের হুকুমের বিরুদ্ধাচরন করা ও গোনাহ – বলতে গেলে আল ইসলামের সকল রিতি নীতি না মানাই হচ্ছে গোনাহ , এই মাসে ই নয় পন করতে হবে ইহকালে বা পরকালে সকল মন্দ থেকে বেঁচে থাকার । চলতে পথে নিয়ামতের শুকরিয়া আদায় করব – ভাল ভাল কাজ করব এবং ভাল ও আলোর সহিত থাকব তা কামনা করা । এই মাসে সময়ের মুল্য দিতে হবে সকল ক্ষেত্রে কল্যান করেই – দূরে থাকব যৌন চাহিদা থেকে – অশ্লিলতা থেকে – নফসের খাহিস যত আছে তার থেকে । প্রমান করব যে আসলেই আমরা আল্লাহ কে ভয় করি । আজকের এই প্রথম দিনে আসুন তাই আমরা দুআ করি কল্যানের হিদায়াতের এবং আখিরাতে জান্নাতের – আল্লাহুম্মা আখরিজ না মিনাজ জুলুমাতি ইলান নুর / রাব্বানা আতমিম লানা নুরানা ওয়াগফিরলানা / আল্লাহুম্মা ইন্নাকা আফুউন তুহিব্বুল আফওয়া / ইহদিনাস সিরাতুয়াল মুসতাক্কিম / রাব্বানা হাবলানা মিন আজওাযিনা ওয়া জুররিয়াতিনা কুররাতা আয়উনিংগ ওয়া জায়ালনা লিল মুত্তাক্কিনা ঈমামা / আল্লাহুম্মা ইয়া শাফিয়াল আমরাদ / আল্লাহুম্মা ইয়া দাফিয়াল বালিয়াদ / আল্লাহুম্মা আজিরনা মিনান নার / আল্লাহুম্মা আফিনি ফি বাদানি / আল্লাহুম্মাগফিরলি মাউতা ওয়া মাউতাল মুসলিম । গতবার আমি রেড টাইমসে ধারাবাহিক লিখেছিলাম অনেকেই তা পাঠে উপকৃত হয়েছেন কিন্তু এদের মধ্যে অনেকেই এখন আমাদের সাথে এই দুনিয়ায় নাই তাহারা কবরবাসী আমরা তাঁহদের জন্য মাগফিরাতের দুআ করব আল্লাহ যেন তাহাদের মাগফিরাত দান করে জান্নাতে পৌঁছে দেন , আমাদের কবর কে যেন শান্তির জায়গা বানিয়ে দেন । বছর ঘুরে রামাদান এসেছে শান্তির বার্তা নিয়ে আসুন আমরা সেই শান্তি কে সম ভাবে আমাদের সকলের কাছে বণ্টন করে সুখী হই । বারমিংহাম ১৩-০৪-২০২১