বয়ানে রামাদান ০৮

প্রকাশিত: ৯:৫৬ অপরাহ্ণ, মে ১, ২০২০

বয়ানে রামাদান ০৮


চৌধুরী হাফিজ আহমদ

আমরা অভ্যাসের ক্ষেত্রে অনেকটাই গাফেল । এমন কিছু অভ্যাস আছে যা আমরা করি বা করে থাকি ,তা শুধু মাত্র পিছনে টানে প্রতিদিনের মত সেই অভ্যাসের ব্যাঘাত হয় রামাদান এলে , রামাদান চলে গেলে আবার যেই সেই হয়ে যায় পরিবর্তনের ধারাবাহিকতা আমরা ধরে রাখিনা বলেই চলিত জিবনে ক্ষতির সম্মুখিন হই এবং আগত জিবনের কথা ভুলেই বসে থাকি , রামাদানুল কারিম আমাদের কে শিক্ষা দেয় উভয় জগতের জন্য , শিক্ষার মত অমুল্য সম্পদ কোথাও নেই সকল সম্পদের ভাগ বাঁটওয়ারা করা যায় ধার কর্জ করা যায় অদল বদল করা যায় একমাত্র শিক্ষাই যা নিজের কাছেই থাকে তাই আল্লাহ তায়ালা শিক্ষাকে সবার অগ্রভাগে রেখেছেন নারী পুরুষের জন্য ফরজ করে দিয়েছেন কোরআনের প্রথম শব্দ ই হচ্ছে পড়ুন , এমন একটি বাক্য দিয়ে শুরু করতে বলেছেন প্রভু যার তুলনা হয়না পড়তে বলেছেন তাহার নামেই কেননা তাহার যে কিতাব দিয়েছেন তাহাতেই রয়েছে আলো ও জান্নাতের সন্ধান , জাহান্নামের ব্যাপারে বিস্তারিত তথ্য এবং কি করে জাহান্নাম থেকে দূরে থাকা যায় তার ব্যবস্তাপনা ,মানুষ খুব লোভী ও দ্রুত প্রিয় চায় সকল কিছুই একসাথে পেয়ে যাক বা একসাথে সব কিছু ভোগ করতে কিন্তু ভুলে বসে আছে মানুষের সাধ্যে কিছুই নেই হায়াত এবং মাউতের ব্যাপারে ও সে অজ্ঞ , আদম সৃষ্টি করে আল্লাহ তাহার কুদরতি ক্ষমতায় যদি শিক্ষাকে অগ্রাধিকার না দিতেন তা হলে হয়ত সবাই সম্পদের দিকেই লোভী হত , শিক্ষা যে আল্লাহর এক নেয়ামত এতে সন্দেহ নাই কেননা শিক্ষার কারনেই আমরা আজকে দুনিয়াব্যাপি দাপটে চলছি মুসলমানদের জন্য ই রয়েছে আল- কোরআন কোরআনের শিক্ষার জন্য সকল মাখলুকের কাছেই আমরা সম্মানিত , সেই সম্মান কে বজায় রাখতে ঘুরে ফিরে রামাদান আসে সরণ করিয়ে দিতে আমরা যে সম্মানিত জাতি । রামাদানের নিজস্ব এক নীতি মালা ও বিশাল কর্মসূচী রয়েছে যাহারা রামাদান কে অনুসরণ করে তাহারাই হলেন রামাদানের প্রকৃত সৈনিক , এমন এক করমি বাহিনী তৈরি করে রামাদান যাহারা হবে সত্যের ও সততার প্রতীক , মাত্র একমাস অনুশীলনে যে দক্ষতা- আসে তা দিয়েই বাকী ১১ মাস সবার কাছে সেই শিক্ষা – দিক্ষা- সেবা – মানবতা সহজেই পৌঁছে দেয়া সম্ভব , রামাদানের সিয়াম এই কারণগুলার জন্য ই একমাত্র ঈমানদারদের জন্য একান্তই বরাদ্দ । আজকে চলছে রামাদানের অষ্টম দিন রহমতের ঝরি ঝরতেই আছে প্রতিটি মুহূর্তকে সাজিয়ে তুলছে বিরামহীণ ভাবে প্রস্তুতি চলছে দুনিয়াকে সজ্জিত আলোক ময় করে তুলছে কোরআনের জন্ম দিন পালনের জন্য কদরের সেই পবিত্র রাত্রের কারনেই চলে এই সব আয়োজন এতে শরিক হয় মুমিনগণ , যত পুরস্কার আছে সবগুলাই বাছাই করে দেয়া হয় মুমিনদের কে , আমরা জানিনা আমরা কাহারা এখন পর্যন্ত মুমিন হতে পেরেছি ! কতজন মুমিন হবার শর্ত পালন করছি জানিনা তবে সিয়াম এবং কিয়াম তাওবার দ্বারা মুমিন হতে পারি আল্লাহ অবাধে যে সুজুগ দিয়েছেন আমাদের কাছে তা আরেক চমক ,
কোথাও লাইন দিতে হয়না – কাহারো কাছে বা কোন প্রতিস্টানের কাছে নিবন্ধন করতে হয়না – দিতে হয়না কোন ফিস – করতে হয়না অপেক্ষা শুধু মাত্র নিজের ইচ্ছেয় সিজদায় মাথা ঠেকিয়ে হৃদয় মন উজার করে তাওবা বা অনুশোচনাই পৌঁছে দিতে পারে কাঙ্ক্ষিত অবস্তানে । আমরা তা দেখেছি বদরের যুদ্ধে , মাত্র ৩১৩ জন বিপরীতে ছিল মরনাশ্রে সজ্জিত কাতারে কাতার সেখানে আল্লাহ রাব্বুল আলআমিন বিজয় দিলেন ৩১৩ জন মুমিনকে , মুমিনের জন্য বিজয় শুধু মাত্র দুনিয়াতেই নয় প্রকৃত বিজয় হচ্ছে আখিরাতের অনন্ত জিবনে ,দুনিয়া হচ্ছে আখিরাতের জিবনের জন্য ট্রেনিং এর স্তান এর মধ্যে রামাদান হচ্ছে পরিক্ষার মাস , উত্তীর্ণ হলেই জান্নাত , গত বছর যাহারাদের সাথে সিয়াম পালন করেছি আসরের সালাত পরে ইফতার পর্যন্ত তিলাওয়াত করেছি আজকে এই মুহূর্তে তাহাদের অনেক কবরবাসী , আমার অনেক আত্মীয় স্বজন বন্ধু কাছের দুরের তাহারাও আমাদের ছেরে চলে গেছেন এত কাছের কিন্তু জানিনা এখন তাহারা কি অবস্তায় আছেন বা কি ব্যবহার করছেন মালাইকারা তাহাদের সাথে আল্লাহ কি তাহাদের কাজে সন্তুষ্টি প্রকাশ করেছেন ? আজকে র এই ৮ রামাদানে আমি বয়ান দিচ্ছি জানিনা আমি আগামী বছর এই ৮ রামাদানে কোথায় থাকব ? আমাদের এই শূন্যস্তান পূরণে প্রয়োজন আরেক ঝাক সৈনিক যাহারা এখন কিশোর ওরা যুবক হবে বুড়ো হবে তাহাদের জন্য ও প্রশিক্ষনের ব্যবস্তা থাকা দরকার পুরাতন সৈনিক দের সম্মান জানাতে নতুনদের আবার প্রশিক্ষিত করতেই বারবার মহাসমারোহে রামাদান মাসের আগমন হয় । এতে করেই আমরা ঈমানদার মোসলমান আনন্দিত হয়ে সংযমের সহিত সিয়াম - সালাত - কিয়াম - দান করে থাকি তবে এই ধারাবাহিকতায় কিছুতা ছেদ পরে যখন আমরা ব্যস্ত হই ইফতারি বা সেহরী র জন্য খাবার নিয়ে বাড়াবাড়ি করি এই ব্যস্ততায় হারিয়ে ফেলি সিয়াম ও কিয়ামের আসল স্বাদ । যার যার আমলের দিকে তাকালেই অনুমান করা যায় কি চাই না না চাই আল্লাহ রাব্বুল ইজ্জত ও সেই আমল অনুযায়ী কিসমতে প্রাপ্তি দেন , তাই যত বেশী ভালো আমল করব ততই পাব বলে আশা রাখি , রামাদানের আমলের মধ্যে তিলাওয়াতে কালামে পাক - সালাত - অন্যতম চলতে ফিরতে তাওবা ইসতেগফারের দুআ করা খুব ভাল অনেক তাসবীহ আছে যা গল্প করে ও পাঠ করা যায় যেমন – আসতাগফিরুল্লাহ – সুবহানাল্লাহ আল হামদুলিল্লাহ ওয়া লা ইলাহা ইল্লাল্লাহু আল্লাহু আকবার / লা হাওলা ওয়ালা কুওয়াতা ইল্লাহ বিল্লাহ / রাব্বির হামহুমা কামা রাব্বায়ানী ছাগীরা / হাসবুনাল্লাহু নিয়মাল ওয়াকিল / আল্লাহুম্মা আফিনি বি বাদানি / আল্লাহুম্মা ইন্না আসয়ালুকাল আফিয়া / আল্লাহুম্মা ইয়া দাফিয়াল বালিয়াদ / লা ইলাহা ইল্লা আন্তা সুবহানাকা ইন্নি কুনতু মিনাজ জুয়ালিমিন / আল্লাহুম্মাক ফিনিহিম বিমা শিইয়তা / আল্লহাউম্মাস তুর আওরাতিনা ওয়া আমিন রাওয়াতিনা / ইহদিনাস সিরাতুয়াল মুসতাক্কিম । সুরা ফাতিহা এক বিশেষ উপকারি দু আ যে কোন বিপদে এর বিকল্প কোন সাহায্য নেই আল্লাহর কাছে যাবার এই মাধ্যম আমাদের জন্য এক অনন্য উপহার , যাহারা অন্ধকারে আছেন তাহারা সুরা আল ফাতিহার সাথে সুরা দুহা পাঠে ফায়দা হাসিল করতে পারেন । চলিত রামাদান আমাদের জন্য অনেক কারনেই পাচ্ছে বিশেষ এক মর্যাদা বৈশ্বয়িক মহামারীতে আক্রান্ত প্রায় সকল দেশ ও জাতী , এই মহা বিপদ থেকে নিজে ও পরিবার পরিজন স্বজন সমাজ দেশবাসী কে বাঁচাতে প্রার্থনা ই একমাত্র ঔষধ , এই লিখা লেখা পর্যন্ত মারা গেছেন ৩ লাখের মত মানুস আক্রান্ত কোঠি কোঠি । ধর্ম জাত পাত বর্ণ নারী পুরুষ বৃদ্ধ জোয়ান শিশু কেঊ রেহাই পাচ্ছেনা বিশেষ করে বৃদ্ধ দের বেশী আক্রমন হচ্ছে এই সব বিপদ থেকে পরিত্রান পেতে রামাদান পালন করতে পারে এক বিশেষ ভূমিকা পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা পরিমিত খাবার ইত্যাদি আদর্শ রামাদানের অন্যতম আকর্ষণ তাই যদি সবাই পালন করি এবং তাওবায় থাকি তা হলে আশা করি আল্লাহ সদয় হবেন এবং বিপদ থেকে বিশ্ব বাসীকে রক্ষা করবেন । আমরা সবাই দুআ করতে থাকি – দুআ ই পারে ভাগ্য বদলে দিতে আর সেই দুআ কবুল হবার একশতভাগ গ্যারান্টি দিচ্ছে রামাদান মাসের প্রতিটি মুহূর্ত , তাই আসুন আমরা দু`আ র মাধ্যমে উপভোগ করি এই পবিত্র ক্ষণকে ।

ছড়িয়ে দিন

Calendar

December 2021
S M T W T F S
 1234
567891011
12131415161718
19202122232425
262728293031