বয়ানে রামাদান ১১

প্রকাশিত: ১০:২৪ অপরাহ্ণ, মে ৪, ২০২০

বয়ানে রামাদান ১১


চৌধুরী হাফিজ আহমদ
ইসলাম যে স্তম্ভের উপরে বিদ্যমান এর মধ্যে মহা মহা সমুদ্র সম যে অধ্যায় তার নাম হচ্ছে রামাদান এই রামাদানের আজকে ১১ দিন চলিত গত কালকে এক চ্যাপ্টার বিদায় নিয়েছে আলহামদুলিল্লাহ খুব ভাল ভাবেই আমরা সবাই বরন করে নিয়েছিলাম যতটুকুন সম্ভব সবাই আন্তরিক ভাবেই পালন করেছি সিয়াম করেছি কিয়াম । আজকে থেকে শুরু হল আরেক খণ্ডের আশা করি আমরা তাও পালন করব হৃদয় মন দিয়ে , রামাদান শুধুমাত্র একটি মাসের নাম নয় ইসলামের সরাসরি একটি অঙ্গ এই অঙ্গের হিফাজত করা সকল মুসলমানদের জন্য কর্তব্য , আমরা যেন অন্যান্য জাতী গুষ্টির মত নিজ স্বার্থে ব্যবহার করে অভিশপ্তের খাতায় নাম না লেখাই , কম খাব – কম কথা বলব ভাল ব্যবহার করব যতক্ষন পারব আল্লাহর জিকিরে সময় কাটাবো সংযমে থাকব – খুশী মনেই আল্লাহর বিধান মানব -নত মনে তাওবা করব – যত ন্যায্য চাওয়া আছে যা যা প্রয়োজন সেই গুলা যে আমার চাহিদা তা সিজদায় পেশ করব আল্লাহর কাছে তিনি হলেন আস সামাদ অভাব হীণ তিনি যদি মনে করেন তার অবশ্য ই প্রয়োজন রয়েছে তিনি তা দিতে রাজী হবেন , আমরা মানুষের কাছে চাইতে লজ্জা করিনা এই সেই প্রয়োজনে হাত পাতি অথচ জগত সংসারের মালিক আল্লাহর কাছে চাইতে অবহেলা করি অনেক সময় আল্লাহর কাছে চাই না এড়িয়ে চলি , চাওয়ার একটি মাধ্যম হচ্ছে রামাদানের সিয়াম থাকা অবস্তায় এই সময় দয়াবান ক্ষমাশীল মাবূদ দুআ তে চাওয়া আবদার ফিরিয়ে দেন না বলেই জেনেছি তাই এই মাসে বেশী বেশী চাইব , সাথে সাথে পাই বা না পাই তবু চাইব চাইতেই থাকব যখন তিনি খুশী রাজি হবেন তখন দেখবেন পেতে পেতে আমরা আনন্দের জোয়ারে সাতার দেব । শুকরিয়া আদায়ে কার্পণ্য করবোনা সবচেয়ে বড় নিয়ামত আমরা যে জগতে আসতে পেরেছি এই যে জীবন পেয়েছি তার জন্য শুকরিয়া যত আদায় করবো তত ই কম হবে – যে থাকবে শোকরে সালাতে এবং ছবরে সে নেয়ামত পেতেই থাকবে অব্যহত ভাবে এবং তাই আল্লাহ বলেছেন তাহার নির্ভুল কিতাব কোরআন মাজিদে তিনি বলেন ** ইয়া আইউহাল লাজিনা আমানুস্তাইনু বিছ সাবরি ওয়াস সালাত , ইন্নাল্লাহা মায়াস সওয়াবিরিন ** (সুরা বাকারা ১৫৩) যদি থেকেন সালাতে এবং ছবরে আপনি আমি থাকব আল্লাহর খবরে , তবে এখানে বলা হয়েছে আমানু , এর মানে যাহারা ঈমান এনেছি
ঈমানদার বলে বুঝানো মুমিন দের কথা , যাহারা মুমিন তাহারাই আল্লহর উপরে তাওয়াক্কুল করে ধৈর্য হারা হয়না থাকবে অবিচল নীরবে সিজদায় আল্লাহর কাছে ফেলেবে হৃদয়ের অশ্রু , এই সেই জল যা জমিনে গড়িয়ে পরার আগেই আল্লাহ কবুল করে নেন তাহার সকল আবদার আকাংখা যার ফলে মুমিনরা কখনোই গরীব হয়না পেরেশানী বা অভাবী হয়না কারন আল্লাহ নিজেই মুমিনদের পরিচালনা করেন তাই আমাদের উন্নিত করতে হবে মুমিন হিসাবে , শুধু শুধু উপস্তাপনায় মুমিন হওয়া যায়না তা হতে হলে পরিক্ষা দিতে হবে শর্ত পুরন করতে হবে এমন কিছু শর্ত আছে তার পালনেই একমাত্র মুমিন হবার আশা করতে পারি । বলতে গেলে মানুষের জীবন শুরু ও শেষ ঈমান থেকে তাকে স্তায়ী করতে পাকা পোখতা করার জন্যই প্রয়োজন সালাত সিয়াম হাজ্জা যাকাত । ঈমান এমন এক সম্পদ যা বহন করতে হয় সতর্কতার সহিত তা না হলে এতে ছিদ্র হয়ে যায় , শাইতান এতে ক্ষত সৃষ্টি করে ছিদ্র দিয়ে ডুকিয়ে দেয় লোভ লালচ দুর্নীতি অন্যায় অবিচার অনাচার অত্যাচার মদ সুদ জুয়া জেনা ইত্যাদি শাইতানের ছিদ্র গুলাতে সেলাই দিয়ে পুনরায় বন্ধ করার জন্য ই সালাত সিয়াম জিকির আজকার । অনেক বিশাল বক্তব্য লম্বা আলোচনায় বিরক্তি না ঘটাতেই যত সম্ভব কলামের আকার ছোট রাখতেই অল্প করে বলছি আশা করি সবাই এর গভীরত্ব অনুধাবন করবেন । আমরা যাহারা মনে করি রামাদানের ইবাদত সাধারন নিয়ম তান্ত্রিক এক ব্যবস্তা আসলে রামাদান এই রকম নয় , রামাদান প্রতিশ্রুতি দিচ্ছে আল্লাহর সমীপে পুরাপুরি আত্মসমর্পণ করলে বিনিময়ে থাকবে আরামাদায়ক ইহকাল ও পরকাল , কিন্তু আমরা যাহারা পালন করি গতানুগতিক ধারায় তাহারা কি পাচ্ছি শান্তি নামক নেয়ামত ? যদি পাই তা হলে কেন সমাজে এত অবিচার অন্যায় লোভ স্বার্থ দুর্নীতি ঘোষ হত্যা নারী নির্রাযাতন বৌ কে মারা মহিলাদের প্রতি অন্যায় আচরন প্রাপ্য সম্পদ থেকে তাহাদের বঞ্চিত রাখ বৈষম্য মুলক আচরন ইত্যাদি এখন বর্তমান ? ঈমান চায় সালাত সিয়াম এর মাধ্যমে সমাজের সুস্ততা ফিরিয়ে আনতে নতুবা মানুষ তাহার ন্যায্য বা কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্যে পৌঁছাবেনা , আল্লাহ যে টার্গেট দিয়েছেন মানুষকে তাহার সদ্ব্যবহার করতেই অলংকার সরুপ হচ্ছে ইবাদত , কেননা শুধু মাত্র ইবাদত করেই কেউ জান্নাতে যেতে পারবেনা এমন কি দুনিয়াতে ইবাদতে সফল হতে পারবেনা যদি আল্লাহর অনুগ্রহ না পায় , একমাত্র আল্লাহর দয়া ইচ্ছাই পারে আমাদের মুক্তি দিতে - ইবাদতের বাহাদুরি তাই করা যাবেনা তবে ইবাদত বন্দেগী জরুরী নিজেকে পরিবর্তনের জন্য । চলিত রামাদানে আমরা আমাদের স্বভাব পরিবর্তনের চেষ্টা করি তিলাওয়াত সালাতে জিকিরে সময় ক্ষেপন করে এবং সেই ধারা অব্যাহত থাকবে রামাদান পরবরতি দিনগুলাতে তা যদি পন করি তাহলেই আসবে সার্থকতা । রামাদানের প্রকৃত শিক্ষায় সেই পরিবর্তনের কথাই এসেছে বারবার - আজকের একাদশ তম দিনে বরকতের শুরু , আমরা চাইব আগামী ৯ দিনে জীবনের যতো চাহিদা আছে সব কিছুর অনুমোদন আনবো মহান রবের কাছ থেকে এবং যত দিন বাঁচবো তাহার রহমত থেকে বঞ্চিত হবনা মরবো যখন তখন থেকেই জান্নাতের সেই আলোকময় জগত যাহাতে বইছে সুখের নহর সেখানের অধিবাসী হব । আল্লাহ যেন আমাদের সু ইচ্ছা পুরন করেন বাজে মন্দ পরিত্যাগ করার তাওফিক দেন আমাদের সকল কবরবাসি দের মাগফিরাত দেন , সকল মজলুমদের সহায় হন জালিমদের কবল থেকে মুসলমানদের হিফাজত করেন সন্তানদের যেন সু পথে চালান অভাব মোচন করেন মা বাবার খিদমাত করার তাওফিক দেন সততার পথে চালান এবং হিদায়াতের নুর দান করেন ** রাব্বানা আতমিম লানা নুরানা ওয়াগফিরলানা , রাবানা লা তুজিগ কুলুবানা বাদা ইজ হাদাইতানা ওয়া হাবলানা মিল লাদুনকা রাহমাহ ইন্নাকা আনতাল ওয়াহহাব , আসতাগফিরুল্লাহ ইন্নাল্লাহা গাফুরুর রাহিম আসুন বরকতের এই দিনগুলাতে আমরা একে অপরে দু`আ তেই থাকি ।

ছড়িয়ে দিন

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

Calendar

December 2021
S M T W T F S
 1234
567891011
12131415161718
19202122232425
262728293031