বয়ানে রামাদান ১৫

প্রকাশিত: ১২:০৯ পূর্বাহ্ণ, মে ৯, ২০২০

বয়ানে রামাদান ১৫


-চৌধুরী হাফিজ আহমদ

আজকে চলছে ১৫তম রামাদান খুব দ্রুত চলতির দিকে মাস , যেকোনো কাজে ব্যস্ত থাকলে সময় খুব বেগে চলে , ইবাদতের নিয়ম মেনে চলছি তাই ব্যস্ত থাকি বলেই বলতে পারিনা আমরা সময় কি করে কাঠলো – সিয়ামে কিয়ামে দানে তাসবীহ তে নিজেকে রত রাখায় অশান্তি কাছে আসতে পারছেনা – সিয়াম এক ধরনের শান্তি – সালাত আরেক ধরনের শান্তি- তাসবীহ আরেক ধরনের শান্তি -দান খয়রাত আরেক ধরনের শান্তি কোরআন তিলাওয়াত আরেক শান্তি , শুধু সালামা – ই সালামা ,আল্লাহর নিয়ম সবটুকুন মেনে চললে অশান্তি জাহান্নামেই যাবে , রামাদানের মাধ্যমে আল্লাহ তায়ালা আমাদের এই শান্তির বার্তাই দেন কিন্তু আমরা নিজেকে নিজেই পরিবর্তন করিনা বা করতে চাইনা , শুধু শুধু পরিচয় বহন করার জন্যই অনেকে সালাত সিয়াম করে যদি তাই না হত তা হলে আজকের সমাজে এত নোংরামি থাকতনা , রামাদানে ও ধর্ষণ হত্যা রাহাজানী তে লিপ্ত সমাজ , চুরি ডাকাতি নারী নির্যাতনে সমাজে আজ ভয়ংকর এক রূপ ধারন করেছে যার ফলে আজকে গোটা বিশ্ব মহামারীতে আক্রান্ত লক্ষ্য লক্ষ্য লোক মারা যাচ্ছেন আক্রান্ত কোটি কোটি এখন সাস্ত্য সংস্তা বলতেছে এই মহামারী লাগাতার হামলা করবেই এমন কি বছরে ২/৩ বার ও হামলা করতে পারে – এই মহামারী কি তা জানতে হলে জানতে হবে কোরআন হাদিস থেকে এবং সেখানে রাসুলুল্লাহ সঃ বলেছেন মহামারী হচ্ছে গজব আগুনের মত যা ছড়িয়ে পরলে ধ্বংস হবেই এর থেকে রেহাই পেতে নদী সমুদ্রের পানি দিলে ও নিভবে না এর জন্য প্রয়োজন চোখের পানির সাথে তাওবা তা করলেই সমাধান আসতে পারে তাই নিজেকে যত সম্ভব আড়ালে রেখেই সতর্কতার সহিত চলাফেরা করা উত্তম । এই বছরের রামাদান আমাদের কাছে এসেছে বিরাট সুজুগ নিয়ে আমরা এই সুজুগ নিলে দুনিয়া এবং আখিরাতে সফলতা অর্জন সম্ভব আমাদের সবার জন্য উচিত হবে রামাদানের শিক্ষার আলোকে নিজে ও সমাজ জীবন সাজাতে ,রামাদানের ১৫তম দিনে আমরা অনেকেই অভ্যস্ত হয়ে গিয়েছি কোরআন তিলাওয়াত এর সাথে , আশা করব এই শান্তির স্রোতের সাথেই আমরা আগামীর দিন গুলা অতিবাহিত করতে পারব , ঈমানদার দের জন্য রামাদানের সিয়াম এবং কিয়াম করা শর্ত তা করতেই হবে এতে অন্যতা করলে হবেনা মহিলারা তাহাদের মাসিক প্রয়োজনে বা রোগী তাহার জীবন রক্ষায় শ্রমিক তাহার কঠিন শ্রমের কারনে যদি সিয়াম না করেন তা হলে অন্য সময়ে কাজা করতেই হবে কারন সকল ফরজ ইবাদতের মতই সিয়াম ফরজ আল্লাহ তায়ালা অসুবিদা হলে তাহাকে সহজ করে দিয়েছেন এবং সুবিদা মত সময়ে আদায় করার মত ফুরসত দিয়েছেন কিন্তু কোন ভাবেই ফাঁকি বাজি করলে চলবেনা , সিয়ামের বেলায় আমাদের জন্য আরও কিছু সুজুগ দিয়েছেন যদি তা যথা যথ ভাবে কাজে লাগাই তা হলে আগামি বছর কদরের রাত পর্যন্ত ভাবনাই করতে হবেনা কারন আমরা এই সময় টুকুন থাকব আল্লাহর ক্যেমেরায় , আল্লাহ চান বান্দাহ রা যেন সব সময় উনার সাথেই সম্পর্কিত থাকে কেননা তিনি পছন্দ করেন অনুগ্রহ করতে , আল্লাহ যখন মানুষ সৃষ্টি করেন তিনি এত আদর সম্মান করেছেন যার বর্ণনা পাই কোরআন কারীমে তিনি বলেন -** ওয়া লাকাদ কাররাম না বানি আদম ** আরেক জায়গায় বলেন মানুষ হচ্ছে আল্লাহর খলিফা মানে প্রতিনিধি ,** ইন্নি জায়িলুন ফিল আরদি খালিফা** এখন দুতেরা যদি মালিক প্রধানের সান্নিধ্যে না থাকে তা হলে কোথায় থাকবে !! আল্লাহ মালাইকাদের সাথে্র কথোপকথন রাসুলুল্লাহ সঃ শুনিয়েছেন আমাদের জন্য তা হচ্ছে এই রকম – আল্লাহ মানুষ সৃষ্টি করে জমিনে প্রেরন করার সিদ্ধান্ত নিলে মালাইকারা বলেছিল ইয়া আল্লাহ এরা তো জমিনে ফিতনা ফাসাদ করবে রক্তারক্তি করবে দুর্নীতি ঝগড়া করে অশান্তির কারন হবে তখন আল্লাহ বলেছেন তাহাদের কে ** ইন্নি আয়লামু মা লা তায়লামুন ** আমি আল্লাহ যা জানি তোমরা কেউ তা জাননা ।আমরা আল্লাহর কাছে সম্মানী এক জাতি আমাদের জন্য তাই তাহার অবাধ্যতা মানায়না তিনি আমাদের সুবিধার জন্য ই ইবাদত হুকুম আহকাম দিয়েছেন আমাদের তাই তা সাদরে পালন করা উচিত যাহারা অবাধ্য বা মানেনা তাহাদের বুঝাব নিজে উত্তম চরিত্রের অধিকারী হয়ে প্রমান দেব তাহাদেরকে । রামাদান এর আলো ছড়িয়ে দেব বাকী ১১ মাস তা হলেই পাচ্ছি তৃপ্তি , জান্নাতের সুঘ্রাণ আমরা দুনিয়া থেকেই পেতে পারি , অনেকেই পেয়েছেন বলে প্রমান আছে এমন কি মহিলা হয়ে ও পেয়েছেন হাজরা – মারিয়াম – খাদিজা- আছিয়া – আয়েশা -ফাতিমা – আঃ আজমাইনরা সহ আরও অনেক , তা হলে আমরা পাবনা কেন ! আমাদের পেতে হলে কোরআন চর্চায় নিবেদিত হতে হবে পথ দেখাতে পথ প্রদর্শকের ভুমিকায় কোরআন এখনো আমাদের ডাকছে সাথে আছে হাদিসে রাসুল সঃ । রামাদানের যত আয়োজন এর সবটুকুন ই হচ্ছে কোরআন কে পরিচিত করাবার জন্য আমরা নিজেকে কোরআনের সহিত পরিচিত করাতে পারলেই এই ধরায় আসা সার্থক , যে বা যাহারাই কোরআনের সাথী হয়েছেন সম্মান পেয়েছেন এমন কি বিধর্মী যাহারা শুধু মাত্র সম্মান দেখিয়েছে তারাও মর্যাদা পেয়েছে আগের কথা বলবনা , অনুবাদ করেছিলেন বাবু গিরীশ চন্দ্র তিনি এর কারনেই দুনিয়াতে সম্মানের সাথে উপার্জন করেছেন অনেক অনেক , কেউ খালি ঝুলি নিয়ে যায়নি কোরআন দিয়েই ঝুলি ভর্তি করেছেন এবারে আপনার আমার পালা তাই আলসেমি না করে কোরআনকে জিবনের সাথে সাথী করি আর তা করলেই পাচ্ছি দুনিয়াতে শান্তি আখিরাতে মুক্তি । রামাদানের একটাই বার্তা আর তা হচ্ছে আল্লাহর কাছে আত্মসমর্পণ করা শর্ত হীণ ভাবে এমন করে তাওবা করা যাহাতে আল্লাহ রাজী হয়ে জিজ্ঞাসা করেন বান্দাহ বল কি চাস , তখন যা যা প্রয়োজন তা চাইলেই আল্লাহ দেবেন তিনি দিতেই পছন্দ করেন এবং দিতেই চান , দয়ার সাগর নিয়ে তিনি ডাকেন বান্দাহদের কিন্তু আমরাই হলাম যাহারা থাকছি তাহার থেকে দূরে , তাই পন করি মৃত্যু পর্যন্ত আর -শিরক মিথ্যা সুদ জুয়া জিনা মদ ঘোষ দুর্নীতি জুলুম নির্যাতন এর সাথে নিজেকে জরাবো না – এবং আল্লাহর কাছে চাইব তিনি যেন আমাদের কে মন্দ ত্যাগ করার তাওফিক দিয়ে শাইতান খান্নাছ মানুষ রাগ হিংসা গীবত মুনাফিকদের থেকে হিফাজত করেন । রামাদানের প্রত্যেক দিন আমাদের জন্য উদাহরন সরূপ বলতে গেলে এই মাসের প্রতি সেকেন্ড ই পবিত্র ও শিক্ষনীয় এই সব কাজে লাগালেই আমরা আশা করতে পারি ক্ষমা পাবার । আসুন আমরা কৃতজ্ঞতার সহিত আল্লাহর কাছে তাওবা করি এবং যা যা চাই নিজের জন্য পরিবারের জন্য সমাজের জন্য দেশের জন্য উম্মাহর জন্য তা আল্লাহর কাছ থেকে আদায় করে নেই । এর সাথে সাথে আমরা গরীব দুঃখী দের সহায় হই , তাহাদের কে শিক্ষার আলো দেই কারন এই শিক্ষার অভাবেই ওরা গরীব ও অভাবী – শিক্ষার বাতি যদি সকলের কাছে পৌঁছে তখন কেউ আর গরীব অসহায় থাকবেনা তাই গরিব ফকিরদের ভিক্ষার সাথে সাথে শিক্ষা ও পরিশ্রম করার উপকরন দিন যা তাহার আয়ের জন্য পর্যাপ্ত হয় , রাসুলুল্লাহ সঃ কুড়াল কিনে দিয়ে আমাদের দেখিয়েছেন কি করে অন্যকে দান করতে হয় – আমরা আমাদের মহানবী সঃ এর জীবনী থেকেই এইগুলা জানতে পারি তাহার আদর্শে জীবন পরিচালিত করলে সমাজে গরীব খুজে পাওয়া যাবেনা নতুবা বর্তমানে যে রকম দান সাহায্য করা হয় তাহাতে অবস্তার অবনতি হতে বাধ্য । রামাদানের বহুমুখী কর্ম কাণ্ডে আমরা অংশ নিয়ে আমাদের জীবন কে দুনিয়াতে স্মরণীয় করে রাখি , কে জানে আগামি রামাদান পর্যন্ত হায়াত পাব কি না তাই আর দেরি নয় এখন থেকেই রামাদানের স্বাদ নিতে তৎপর হই ।

ছড়িয়ে দিন

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

Calendar

November 2021
S M T W T F S
 123456
78910111213
14151617181920
21222324252627
282930