বয়ানে রামাদান ২৫

প্রকাশিত: ১১:১৫ অপরাহ্ণ, মে ৭, ২০২১

বয়ানে রামাদান ২৫

 চৌধুরী হাফিজ আহমদ
রামাদান মাসের ফযিলত বর্ণনা করেন অনেকে অনেক ভাবে , মুলত যদি আমরা চিন্তা করি তা হলে রামাদান শুধু ফজিলতেই সিমাবদ্ধ নয় , রামাদান মাসের সিয়াম হচ্ছে আমাদের জন্য কর্তব্য যা অবশ্য ই পালনীয় এতে অন্যতা করা যাবেনা যদি কেউ করে তা হলে তা মারাত্মক অন্যায় , রামাদানে রয়েছে সবার জন্য আলাদা আলাদা সুজুগ সুবিদা – রোগীদের বেলায় এক রকম , অক্ষমদের জন্য আরেক রকম , বয়স্কদের জন্য , অন্য নিয়ম , নারীদের বেলায় ও রয়েছে ভিন্ন নীতিমালা , ছোটদের বেলায় সহজ নিয়ম , সক্ষম দের বেলায় পাবন্দি , আগে রামাদান কি তা বুঝার চেষ্টা করা উচিত যখন ভাল করে জেনেশুনে ভেবে চিন্তা করে বুঝব তখন রামাদান পালন খুব সহজ হয়ে যায় , শুধু ফজিলতের কারনে রামাদান মাস পালন করা যদি হয় তবে ভুল করব – রামাদান মানেই আল্লাহ সন্তোষটি । এখন মালিক কে রাজি করতে যে ডিউটি দিতে হয় সিয়াম ও ক্কিয়াম ইবাদত দান খয়রাত তার ই অংশ বিশেষ , অনেকেই বলেন এই তাসবিহ পাঠে এত নেকি সেই তাহবিহ পাঠে গোনাহ মাফ অমুক তাসবিহ পাঠে এই হবে সেই হবে ইত্যাদি – এখন সেই হিসাব নিয়ে যদি পড়ি তা হলে ও জান্নাতে যাবার উপায় নাই কেননা জান্নাত পাবার একমাত্র উপায় আল্লাহর রহম যদি রাসুলুল্লাহ সঃ আমাদের উম্মত হিসাবে গ্রহন করেন তখনি আল্লাহ রহম করতে পারেন নতুবা আমার আপনার আমলের হিসাবে জান্নাত তো দূর জান্নাত দেখা ও সম্ভব নয় – জিকির বা তাসবিহাতের জন্য আল্লাহ নিজেই বলেছেন “উজকুরুল্লাহা জিকরান কাসিরা “ জিকির বা তাসবিহ জপতেই থাক অসংখ্য অগুনিত অব্যাহত ভাবে – আলা বি জিকরিল্লাহি তাতমাইন্নুল ক্কুলুব “ কলবে জিকির জারি রাখ , তাই আমি দেখেছি অনেক বুজুর্গ মাশায়েখ শ্বাসের সাথে জিকির করতেন – শ্বাস টানিতে লা ইলাহা ছাড়িতে ইল্লাল ল্লাহ , এই ভাবে যদি আমরা জিকিরে থাকি তবেই শান্তি এবং পেতে পারি মুক্তি , তবে কিছু কিছু হিসাব রাসুলুল্লাহ সঃ কর্তৃক নির্দেশিত সেই গুলা নিজ নিজ আঙ্গুলে গুনেই করতে হবে ।রামাদান যে একটা সম্পূর্ণ বিষয় তা আগেই উল্লেখ করেছি এই বিষয় নিয়ে ডক্টরেট করা যায় , ভিন্ন ধর্মের কেউ কেউ এই উপোষ থাকা নিয়ে গবেষণা করে নোবেল প্রাইজ পর্যন্ত পেয়েছেন । আমাদের মধ্যে এখনো সেই রকম উল্লেখ যোগ্য ভাবে কোন প্রতিস্টান গড়ে উঠেনি রামাদান ভিত্তিক যা নিয়ে গবেষণা করা যায় – তবে আশা করি আগামিতে তা পূরণে এগিয়ে আসবেন বিজ্ঞ জনেরা ,রামাদান এর সিয়াম নিয়ম মেনে করলে রোগের উপশম হয় অনেক রোগের শিফা হয়ে যায় , লাগাতার উপোষের কারনে ক্যানসার সেল পর্যন্ত ধ্বংস হয়ে যায় বলে গবেষণায় পাওয়া যায় – এত সব কিছুর গবেষণা এখন হচ্ছে কিন্তু আপনাকে আমাকে ১৫০০ বছর আগেই আল কোরআনের মাধ্যমে থিওরি পেশ করেছেন জনাবে মুহাম্মাদ সঃ , কিন্তু এর প্রচার প্রচারনা করা হয়নি টিক ভাবে , আমরা আছি শুধু ফজিলত বয়ানে যা খুব ই দুঃখ জনক , রামাদানের উপকারিতা কি কি দুনিয়াতে লা লিখে জানান দিতে আমি আহব্বান জানাব আল কোরআন ও হাদিস বিশারদ দের কে ।আজকে রামাদানের ২৫ তম দিন অতিক্রম করছি এর মধ্যে রামাদান মাসের শেষ জুম`আ বার যদি আরেক বছর বেচে থাকি তবেই পাব , মর্যাদায় এমনিতেই জুম`আ খুব গুরুত্বপূর্ণ সাপ্তাহিক ঈদ বলা হয় , জান্নাতের সকল বাসিন্দারা এই দিনে মিলিত হন , জাহান্নামীরা এই দিনের অপেক্ষায় থাকে শাস্তি কম হবার কারনে , এর মধ্যে যদি রামাদান মাস হয় তা হলে এর মর্যাদা বৃদ্ধি পায় , দুনিয়াতে জুম`আ বার আমাদের খুব উপকারে আসে এই দিনে পাক পবিত্র ও সাফ সুতরা হতে তাগিদ আছে – মাসজিদে যেয়ে খুতবা শুনতে হবে জামাতে সালাত আদায় করতে হবে , সাপতাহিক কাজ গুলা আনজাম দিতে বলা হয় অনেক লম্বা ফজিলত ও বাসতবতার বর্ণনা আছে , আমরা আজকে অতিবাহিত করছি ২৫ তম রামাদান পবিত্র জুম`আর মাধ্যমে আশা করি আল্লাহ তায়ালা আমাদের সকলের গোনাহ খাতা মাফ করে রহমত বরকত নাজাত দানে ধন্য করবেন । আজকে হয়ত আমাদের ধরা দেবে লাইলাতুল ক্কাদর একরাতরি হাজার মাস সম ৮৪ বছর হায়াতের মত লম্বা – এই রাতেই নাজিল হয়েছে আলোড়ন সৃষ্টি কারি বাতিল ধ্বংস কারি আল কোরআন মাজিদ , জন্ম মাসের উপহার নিতে আমরা এগিয়েই থাকব ইনশাহ আল্লাহ ইবাদত বন্দেগী তিলাওয়াতে কালামে পাকের মাধ্যমে বিদায় জানালে আমরাই উপকৃত হব । এই পরিবর্তনের মাসে আমাদের নেক নিয়ত করতে হবে অগ্রিম , গোনাহ মাফি , ও তাওবাতে নত হলেই আগামির অনুগ্রহ পেতে আমাদের সুবিদা হবে , আমরা যাহারা অভাবি আসুন আল্লাহর কাছে চাই তিনি হচ্ছে “সামাদ“ আমরা যাহারা রোগী আল্লাহর কাছে চাই শিফা তিনি আহকামুল হাকিমিন “ সমস্যার যত আছে সব কিছুর সমাধান কারি তিনি এক মাত্র জুল জালালি ওয়াল ইকরাম – কবি খুব সুন্দর করে বলেছেন “ক্কাদিরে ক্কুদরত তু দারি বর কামাল/ আনতা রাব্বি আনতা হাসবি জুল জালাল“ তিনি যদি রাজি হয়ে যান তা হলে এই দুনিয়ার জীবন একদম তুচ্ছ – পাচ্ছি আখিরাতের অনন্ত জীবন যার শুরু তো আছে শেষ নাই । আমার রামাদানের বয়ান যাহারা পাঠ করছেন সবার কাছে দুআ প্রার্থী লেখায় ভুল হলে যদি আমাকে জানান তা শোধরাতে পারব – ব্যর্থতার জন্য আমি ক্ষমা প্রার্থী এবং আগামিতে আরও ভাল লেখনী উপহার দিতে আপ্রান চেষ্টা করব আল্লাহ যেন আমাকে সেই তাওফিক ও জ্ঞান দান করেন রাব্বি জিদনি ইলমা / আল্লাহুম্মাগফিরলি মাউতা ওয়া মাউতাল মুসলিমিন/ রাব্বি লিমা আনজালতা ইলাইয়া মিন খাইরি ফাক্কির/ রাব্বির হামহুমা কামা রাব্বায়ানি সাগিরা / আল্লাহুম্মা আখরিজনি মিনাজ জুলুমাতি ইলান নুর/ রাব্বানা আতমিম লানা নুরানা ওয়াগফিরলানা/
আল্লাহুমারজুক্ক নি শাফায়াতা নাবিয়িল আম্বিয়া ওয়াল মুরসালিন / রাদিতু বিল্লাহি রাব্বান ওয়াবিল ইসলামি দিনান ওয়া বি মুহাম্মাদিন সঃ নাবিয়ান ওয়া রাসুলান / আল্লাহুম্মা সাল্লি আলা মুহাম্মাদ ওয়ালা আলি মুহাম্মাদ কামা সাল্লাইতায়ালা ইবরাহিম ওয়ালা আলি ইবরাহিম ইন্নাকা হামিদুম মাজিদ/ আল্লাহুম্মা সাল্লি আলা নাবিয়িল উম্মি ওয়ালা আলি ওয়া সাহবিহি আজমাইন/ আল্লাহুম্মা সাল্লি আলা মুহাম্মাদিন ওয়া আলিহি ওয়া আসহাবিহি বিয়াদাদি মা ফি জামিইল কোরআনই হারফান হারফা ওয়া বিয়াদাদি কুল্লি হারফিন আলফা আলফা /বালাগাল উলা বি কামালিহি কাশাফাত দুজা বি জামালিহি হাসুনাত জামিউ খিসালিহি সাল্লু আলাইহি ওয়া আলিহি / ইনিল তিয়ারি হাস সুবাহ ইয়াউমান ইলা বায়দাল হারাম বাল্লিগ সালামি রাওদাতান ফি হান নাবিয়িল মুহতারাম/ ইন্নাল্লাহা ওয়া মালাইকাতাহু ইউসাল্লুনা আলান নাবি ইয়া আইউহাল ল্লাজিনা আমানু সাল্লু আলাইহি ওয়া আলিহি ,ইন্না আনজালনা হু ফি লাইলাতিল ক্কাদর/ ওয়ামা আদরাকামা লাইলাতুল ক্কাদর/ লাইলাতুল ক্কাদরি খাইরুম মিন আলফি শাহর/ তানাজ জালুল মালাইকাতি ওয়ার রুহু ফিহা বিইজনি মিন কুল্লি রাব্বি আমরিন সালাম – সালামুন হিয়া হাত্তা মাতলাইল ফাজর/ সুবহানা রাব্বিকা রাব্বিল ইজ্জাতি আম্মা ইয়াসিফুন ওয়া সালামুন আলাল মুরসালিন ওয়াল হামদুলিল্লাহি রাব্বিল আল আমিন। বারমিংহাম ০৭-০৫-২০২১

ছড়িয়ে দিন