বয়ানে রামাদান ৩০

প্রকাশিত: ১০:২৩ অপরাহ্ণ, মে ১২, ২০২১

বয়ানে রামাদান ৩০

চৌধুরী হাফিজ আহমদ

শুরু হয়েছিল আজ থেকে ২৯ দিন আগে যে মাসের আজ তা সমাপ্তির পথে আর মাত্র ১ দিন বাকি , এই মাস সাধারন মাসের মত নয় এই মাস হচ্ছে আল্লাহর মাস , এর প্রতি দিন প্রতিক্ষন মহামুল্যমানের , এবং এই মাস শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত এক সাসপেন্স এর মধ্যে কাঠে , বিশেষ করে শেষ দশকে থাকে এক বিরাট চমক এক রাইতের ই গোটা জিবনের জন্য তৃপ্ত হবার সুজুগ পাওয়া যায় , তা শুধু দুনিয়ার নয় আখিরাতের জন্য ও ভি আই পি পাস সংগ্রহ করা যায় , আবার এমন সিলসিলা এই মাসের শুরু হয় উৎসব দিয়ে শেষ হয় মহা উৎসব দিয়ে , রমাদান হচ্ছে বাকি ১১ মাসের অভিবাবক ও শিক্ষক – আমাদের ন্যায় ও সঠিক পবিত্র শিক্ষা দিয়ে সমৃদ্ধ করে যায় – কিন্তু আবার খবর নিতে ঘুরে ঘুরে আসে প্রতি বছরে একবার । মহান প্রভুর দরবারে শুকরিয়া আদায় করছি অবনত মস্তকে আলহামদুলিল্লাহি রাব্বিল আল আমিন – সালাত ও সালাম পেশ করছি রাহমাতাল লিল আল আমিনের খিদমতে আস সালাতু আস সালামু আলাইকা ইয়া রাসুলুল্লাহ সঃ আল্লাহুম্মা সাল্লি আলা মুহাম্মাদ ওয়ালা আলি মুহাম্মাদ কামা সাল্লাইতায়ালা ইবরাহিম ওয়ালা আলি ইবরাহিম ইন্নাকা হামিদুম মাজিদ ,আল্লাহুম্মা বারিক আলা মুহাম্মাদ ওয়ালা আলি মুহাম্মাদ কামা বারিক তায়ালা ইবরাহিমা ওয়ালা আলি ইবরাহিম ইন্নাকা হামিদুম মাজিদ । রামাদান মাসের শিক্ষাই হচ্ছে মুলত কোরআনের শিক্ষা – এই কোরআন মাজিদ কে আল্লাহ জন্ম দিয়েছেন রামাদান মাসে – তাই রামাদানের গুরুত্ব অনেক অনেক বেশী শুধু তাই নয় এই মাসের সিয়াম কে গোটা ইসলাম ধর্মের স্তম্ভ করে দিয়ে এমন সম্মান প্রদর্শন করা হয়েছে যার তুলনা অন্য কিছুতে নাই , এই মাস কে সহজ ভাষায় যদি বলি তা হলে বলতে হবে সম্মানের এক অনন্য মাস – আল্লাহ তায়ালা যে আমাদের কে তা পালন করার জন্য মনোনীত করেছেন এবং তাওফিক দিয়েছেন তাহার জন্য আবারো ধন্যবাদ জ্ঞাপন সহ বলছি আলহামদুলিল্লাহ ।এই মাসের সকল ইবাদাত বন্দেগী আল্লাহর সমীপে পেশ করার ফল ই হচ্ছে ঈদ , এবার প্রাপ্তির পালা ঈদের পর থেকেই শুরু হবে পুরস্কার বিতরন , নিয়ামত আসতেই থাকবে ১১ মাস নিয়মিত অব্যাহত ভাবে প্রতিদিন , আল্লাহ যেন আমাদের কে নিয়ামত থেকে বঞ্চিত না করেন সেই কামনা করি , ঈদের আনন্দ উপভোগ করতে যেয়ে যদি আবার মদ পান করে মাতাল হয়ে যাই সুদের টাকার ঝন ঝনানি শুরু করে দেই জুয়ার আসরে মাত করে রাখি জিনার জন্য নাচানাচি শুরু করি তা হলে একদম সব কিছুই হয়ে যাবে বরবাদ , তাই ঈদ উৎসব থেকেই পবিত্রতায় পা দেব এবং কাদামাটি সেই পায়ে লাগাবনা ইনশাহ আল্লাহ – ঘুস দুর্নীতি জুলুম নির্যাতন অন্যায় আচরন করে জীবন কে ময়লার সাথে জড়াবনা সেই পন করেছি বিগত এক মাসের সকল দুআ ও তাওবায়- তাই আমাদের খুব সতরকতার সহিত চলতে হবে আগামির দিনগুলাতে , আশা করি আমরা সবাই পারব রামাদানের শিক্ষা কে হৃদয়ে ধারন করে চলতে , সম্মানিত পাঠক সমাজ আমাদের ভুলে গেলে চলবেনা ত্যাগের পথ যত সুখ আসে তা ত্যাগের পথ ধরেই আসে , ভোগের চাইতে ত্যাগেই মিলে পরম তৃপ্তি ঈদের আগে আগে আমাদের সবাই ফিতরানা দেব এবং দানের খাতা খোলাই রাখব ইনশাহআল্লাহ , আল্লাহ যেন আমাদের সিয়াম কিয়াম দান খয়রাত কে কবুলিয়তের মর্যাদা দেন তাই কামনা করছি – আজকে আমরা এমন এক নিস্টুর সমাজে বসবাস করছি যেখানে মানুষ বিবেক হিন নিশ্চিত জানে সে বাচবেনা মৃত্যু হবেই হবে তবু অন্যকে হত্যা করে অন্যের অধিকার কে ছিনিয়ে নেয় অন্য কে আঘাত করে এই যেমন বিশ্ব বাসী আমরা দেখছি বিগত কয়েক দিন থেকে ইয়াহুদিরা চালাচ্ছে তান্ডব ফিলিস্তিনে – কিন্তু তা নিয়ে পক্ষা পক্ষি হাসি তামাশা চলছে প্রতিবাদ বা প্রতিরোধে কেউ এগিয়ে আসছেনা , ফিলিস্তিনের অসহায় মানুষেরা আকাশের দিকে তাকিয়ে শুধু আল্লাহ কে বলছে এবং সবরের চেষ্টা করছে – বোমা পরেছে দেখে এক ফিলিস্তিনি চিৎকার করে আকাশের দিকে তাকিয়ে বলছে ইয়া আল্লাহ তুমি দেখ প্লিজ দেখ আমাদের কে তুমি আরশের মালিক ইয়া রব , টিক কত জন নিহত বা আহত হয়েছে তা বলা মুশকিল কেননা তা গন মাধ্যম – রয়টার- বিবিসি -আল জাজিরাহ – সি এন এন – গার্ডিয়ান – টাইমস – এই সব গণমাধ্যমে খবর আসবেনা – যা আসছে খবর হয়ে তা ফিলিস্তিনিদের সাথে চরম তামাশা ছাড়া কিছুই নয় , প্রকৃত খবর হচ্ছে দখলদার সৈন্য রা চালাচ্ছে গনহত্যা , ধ্বংস করছে স্তাপনা – মিশিয়ে দিচ্ছে সভ্যতা – বংশ ধ্বংসের লক্ষ্যে শিশু নারীদের টেনে হিঁচড়ে নিয়ে কথা না বলেই গুলি দিয়ে বুক কে ঝাঁঝরা করছে কিন্তু নিরব মানবতা নিরব সভ্যতা , আমি এই রামাদানের বয়ানের মাধ্যমে আহব্বান জানাব তাহাদের জন্য অন্তত ২ রাকাত নফল সালাত আদায় করি আমরা যে যেখানে আছি সেখান থেকেই জানাই ফরিয়াদ আল্লাহর কাছে অন্তত সাক্ষি রাখি মালাইকাদের আমরা যে আল কুদুস এর জন্য নিবেদিত প্রান , নিয়মিত প্রতিবাদ জানাই লেখা লেখি করি ও অভিশপ্ত ইয়াহুদি শাইতান দের মুখুস খোলার চেষ্টা করি সয়াব্র সামনে । আমি দেখেছি আল কুদুসের প্রাঙ্গন চারিদিকে প্রদক্ষিন করেছি এত সুন্দর জান্নাতি শান্ত পরিবেশ কে অশান্ত করতে পারে যাহারা তাহারা একদম সাক্ষাত শাইতান । বিশ্ব নেতাদের প্রতি অনুরুধ নিজের ক্ষমতা কে পাকা পোখতা করতে মানব কসাই ইসরাইলি দের বলুন মানুষ হয়ে চলতে – নতুবা এদের কে আল্লাহ অতীতে যেমন বানর বানিয়েছিলেন সামনে হয়ত এর চাইতে ও জগন্য কিছুতে পরিনত করতে পারেন । আজকে রামাদানের ৩০ তম দিবস এই শেষ দিবস হচ্ছে একান্তই দুআ দিবস এই দিনে মনপ্রান উজাড় করে আসুন আমরা একে অপরে কল্যানের দুআ করি আল্লাহর কাছে সাহায্য প্রার্থী হই আল্লাহ বলেছেন `নাসরুম মিনাল্লাহি ওয়া ফাতহুন ক্কারিব “ দুআর মাধ্যমে আল্লাহর সাথে যোগাযোগ সচল রাখি এবং নিজেদের যে ভাবে সমর্পণ করেছি আল্লাহর সমীপে সেই ভাবেই নিজেকে রেখে দুনিয়াতে জান্নাতি সুখ উপভোগ করি – তাওবা আমাদের কে যে শিক্ষা দেয় সেই শিক্ষায় যেন নিজে ও অপরকে আলোকিত করতে পারি সেই চেষ্টা অব্যাহত রাখি ,আল্লাহ যেন আমাদের কে আগামী রামাদান পর্যন্ত হায়াতে তায়িবা দান করেন আমাদের থেকে যাহারা কবরে আলাহ যেন তাহাদের কে মাগফিরাত দান করেন , আমাদের কে নুর দিয়ে আলোকিত করেন মন্দ থেকে বিরত থাকার তাওফিক দেন ভাল অভ্যাস করতে পারি দান খয়রাত কল্যানের শিক্ষার দিকে অগ্রসর হতে পারি সেই তাওফিক্ক দান করেন , আমাদের জিন্দা মা বাবার খিদমাত করার তাওফিক্ক দেন – মৃত মা বাবা কে রহম করেন রাব্বির হামহুমা কামা রাব্বায়ানি সাগিরা – বন্ধু স্বজন সবাইকে সালামত রাখেন – দুশমনদের হিদায়াত দান করেন হিদায়াত যদি না থাকে কপালে তাহাদের তা হলে ধ্বংস করে দেন – হালাল উপায়ে রুজি কামাই করার উপায় করে দেন – হারাম থেকে তাহার কুদরত দিয়ে আমাদের কে রক্ষা করেন – ঈদ যেমন রুহের আনন্দ সেই ভাবে আমাদের নাফস কে হিফাজত করার তাওফিক্ক দান করেন গোনাহ থেকে ফিরিয়ে তাওবার পথে চলবার তাওফিক দেন , ঈদের প্রকৃত আনন্দ উপভোগ করে জান্নাতি পরিবেশ এ জান্নাতি চরিত্র ধারন করতে পারি , মুমিন হিসাবে আমাদের কবুল করেন । রাব্বি জিদনি ঈলমা / রাব্বানা আতিনা ফিদ দুনিয়া হাসানাহ ওয়াফিল আখিরাতি হাসানাহ ওয়াক্কিনা আজাবান্নার/ আল্লাহুম্মাগফিরলি মাউতা ওয়া মাউতাল মুসলিমিন/ রাব্বি লিমা আনজালতা ইলাইয়া মিন খাইরি ফাক্কির/ রাব্বির হামহুমা কামা রাব্বায়ানি সাগিরা / আল্লাহুম্মা আখরিজনি মিনাজ জুলুমাতি ইলান নুর/ রাব্বানা আতমিম লানা নুরানা ওয়াগফিরলানা/লতা ইলাইয়া মিন খাইরি ফাক্কির/ রাব্বির হামহুমা কামা রাব্বায়ানি সাগিরা / আল্লাহুম্মা আখরিজনি মিনাজ জুলুমাতি ইলান নুর/ রাব্বানা আতমিম লানা নুরানা ওয়াগফিরলানা/ আল্লাহুমারজুক্ক নি শাফায়াতা নাবিয়িল আম্বিয়া ওয়াল মুরসালিন / রাদিতু বিল্লাহি রাব্বান ওয়াবিল ইসলামি দিনান ওয়া বি মুহাম্মাদিন সঃ নাবিয়ান ওয়া রাসুলান / আল্লাহুম্মা সাল্লি আলা মুহাম্মাদ ওয়ালা আলি মুহাম্মাদ কামা সাল্লাইতায়ালা ইবরাহিম ওয়ালা আলি ইবরাহিম ইন্নাকা হামিদুম মাজিদ/ আল্লাহুম্মা সাল্লি আলা নাবিয়িল উম্মি ওয়ালা আলি ওয়া সাহবিহি আজমাইন/ আল্লাহুম্মা সাল্লি আলা মুহাম্মাদিন ওয়া আলিহি ওয়া আসহাবিহি বিয়াদাদি মা ফি জামিইল কোরআনই হারফান হারফা ওয়া বিয়াদাদি কুল্লি হারফিন আলফা আলফা /বালাগাল উলা বি কামালিহি কাশাফাত দুজা বি জামালিহি হাসুনাত জামিউ খিসালিহি সাল্লু আলাইহি ওয়া আলিহি / ইনিল তিয়ারি হাস সুবাহ ইয়াউমান ইলা বায়দাল হারাম বাল্লিগ সালামি রাওদাতান ফি হান নাবিয়িল মুহতারাম/ ইন্নাল্লাহা ওয়া মালাইকাতাহু ইউসাল্লুনা আলান নাবি ইয়া আইউহাল ল্লাজিনা আমানু সাল্লু আলাইহি ওয়া আলিহি ,ইন্না আনজালনা হু ফি লাইলাতিল ক্কাদর/ ওয়ামা আদরাকামা লাইলাতুল ক্কাদর/ লাইলাতুল ক্কাদরি খাইরুম মিন আলফি শাহর/ তানাজ জালুল মালাইকাতি ওয়ার রুহু ফিহা বিইজনি মিন কুল্লি রাব্বি আমরিন সালাম – সালামুন হিয়া হাত্তা মাতলাইল ফাজর/ সুবহানা রাব্বিকা রাব্বিল ইজ্জাতি আম্মা ইয়াসিফুন ওয়া সালামুন আলাল মুরসালিন ওয়াল হামদুলিল্লাহি রাব্বিল আল আমিন। সবার প্রতি রইল আমার ঈদ মুবারক – তাক্কাবাল্লাল লাহু মিন্না ওয়া মিনকুম – মায়াস সালামা , আস সালামু আলাইকুম ওয়া রাহমাতুল্লাহি ওয়া বারাকাতুহু ।

ছড়িয়ে দিন