ঢাকা ২৪শে জুলাই ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ৯ই শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৭ই মহর্‌রম ১৪৪৬ হিজরি


ভাষা শহীদ সুদেষ্ণা সিংহ স্মরণে আলোচনা আগামীকাল

redtimes.com,bd
প্রকাশিত মার্চ ১৫, ২০১৮, ০২:০২ অপরাহ্ণ
ভাষা শহীদ সুদেষ্ণা সিংহ স্মরণে আলোচনা  আগামীকাল

মনিপুরি ভাষা শহীদ সুদেষ্ণা সিংহ স্মরণে  ঢাকায় আলোচনা সভা হবে আগামীকাল । শুক্রবার বিকেল ৩ টায় এই সভা অনুষ্ঠিত হবে কেন্দ্রীয় পাবলিক লাইব্রেরীর সেমিনার কক্ষে । এতে প্রধান অতিথি থাকবেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভাষাবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক সৌরভ সিকদার । বিশেষ অতিথি থাকবেন অধ্যাপক রণজিত সিনহা ও কবি সৌমিত্র দেব । অনুষ্ঠান আয়োজন করেছে বাংলাদেশ মণিপুরি ছাত্র পরিষদ ঢাকা শাখা  ।
সুদেষ্ণা সিংহ পৃথিবীর সর্বপ্রথম আদিবাসী ভাষাশহীদ এবং দ্বিতীয় নারী ভাষাশহীদ।তিনি ১৯৯৬ সনে ভারতের আসাম রাজ্যে বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরী ভাষা স্বীকৃতির আন্দোলনে শহীদ হন। আসামের বরাক উপত্যকায় বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরীদের দীর্ঘ ভাষা আন্দোলনের ইতিহাসে ১৬ই মার্চ একটি স্মরনীয় দিন। ১৯৫৫ সাল থেকে শুরু হওয়া এই আন্দোলনের ধারাবাহিকতায় ভাষাবিপ্লবীরা বরাক উপত্যকায় ১৯৯৬ সালের মার্চ মাসে ৫০১ ঘণ্টার রেলপথ-রাজপথ অবরোধ কর্মসূচী ঘোষনা করে। ১৬ই মার্চ আসামের পাথারকান্দির কলকলিঘাট রেলষ্টেশনে আন্দোলনকারীদের একটি মিছিলে ভারতীয় পুলিশ গুলিবর্ষন করলে ঘটনাস্হলে গুলিতে প্রান হারান বত্রিশ বছরের তরুণী সুদেষ্ণা সিংহ।

এই গুলিচালনায় আহত হন অরুন সিংহ, প্রমোদিনী সিংহ, কমলাকান্ত সিংহ, দীপংকর সিংহ, প্রতাপ সিংহ, নমিতা সিংহ, রত্না সিংহ, বিকাশ সিংহ, শ্যামল সিংহ সহ আরো অনেকে।

এ ঘটনায় অসংখ্য ভাষাবিদ্রোহী আহত হন এবং ব্যাপক ধরপাকড় হয়। বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরী ভাষা স্বীকৃতির আন্দোলনকে উপেক্ষা করতে পারেনা আসাম সরকার। অবশেষে ২০০১ সালের ৭ ফেব্রুয়ারি বরাক উপত্যকার ১৫২টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরী ভাষায় শিক্ষাদান চালু করে। এরপর ২০০৬ সালের ৮ মার্চ ভারতের সর্বোচ্চ ন্যায়ালয় বা সুপ্রীমকোর্টের এক রায়ের মাধ্যমে বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরী ভাষাকে ভারতের একটি স্বতন্ত্র ভাষার স্বীকৃতি দেওয়া হয়।

সংবাদটি শেয়ার করুন

July 2024
S M T W T F S
 123456
78910111213
14151617181920
21222324252627
28293031