ভ্রমণের কিছু কথা

প্রকাশিত: ১:৩৩ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২৭, ২০২১

ভ্রমণের কিছু কথা

সৌমিত্র দেব
ঘুরে বেড়াতে কে না পছন্দ করে। বিশেষ করে বাঙ্গালীরা যেমন আয়েসী তেমনি ভ্রমনপ্রিয়। ভ্রমণকে তারা সোজাসাপ্টা ভাষায় ঘুরে বেড়ানো বলেই জানেন। কত কাজে তারা ঘুরে বেড়ান। চাকরি সূত্রে, ব্যবসার প্রয়োজনে, শিক্ষার জন্য, চিকিৎসার চেষ্টায় কত ভাবেই না তাদেও ঘুরে বেড়াতে হয়।

 

 

দেশে-বিদেশে তাদের এই ভ্রমণ। এই নিয়ে কেউ কেউ লেখালেখিও করেন। ভ্রমণ অনেকে করলেও এদেও সকলেই আবার পর্যটক নন। আর সব পর্যটক লিখতেও জানেন না। তবে সম্প্রতি দেখা যাচ্ছে প্রতিষ্ঠিত লেখকদের বাইরেও অনেকেই ভ্রমণ নিয়ে লিখছেন। পাঠকও বাড়ছে তাদের। ভ্রমণ নিয়ে এখন সকলেরই উৎসাহ। দৈনিক পত্রিকায় ভ্রমণ বিষয়ক পাতা থাকে। কিছু কিছু সাংবাদিকও এখন পর্যটন শিল্প নিয়ে কাজ করেন। রিপোর্টিয়ের গুরুত্বপূর্ণ শাখাও এখন এটি। এছাড়া বিশেষ সংখ্যাগুলোতে ভ্রমণ নিয়ে দু‘চারটি লেখা দিয়ে পাতার আভিজাত্য বাড়ান সম্পাদকরা।

 

 

 

বাংলাদেশে ভ্রমণ নিয়ে কবিতায়-গল্পে-প্রবন্ধে-উপন্যাসে ডায়েরিতে বহু মনীষী  বা পেশাজীবী তাদের অভিজ্ঞতার কথা লিখে গেছেন। বিভিন্ন উদ্দেশ্যে আমাদের দেশের মানুষ যেমন ঘুরে বেড়ান তেমনি তাদের ভ্রমণের অভিজ্ঞতার কথাও খুলে বলতে চান। পর্যটক মাত্রই লেখক- এই ধারণাকে ভিত্তি করে বাংলাদেশে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে বাংলাদেশ ট্রাভেল রাইটার্স এসোসিয়েশন। সংগঠনটি মনে করে শুধু সাহিত্য কর্ম নয়, যারা ভ্রমণ করেন তাদের খেরোখাতাটিও অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। শখের বশে, পেশাগত কাজে বা ভিন্ন উদ্দেশ্যে ঘুরে বেড়ানো এই ঐতিহ্যের ভেতর দিয়েই ভ্রমণের সময় বাঙালী তার পুরো আবেগ প্রকাশ করে। আর সেই আবেগগুলোই লিপিবদ্ধ হয় খেরোখাতায়। সে কারণে তারা এ বছর বই মেলায় প্রকাশ করলেন ভ্রমণের খেরোখাতা। বাংলাদেশে এই প্রথম এ ধরণের একটি বই প্রকাশিত হলো।

 

 

বইটিতে যারা লিখেছেন তাদের মধ্যে আছে নানা পেশার নানা মানুষ। এদের মধ্যে কেউ লেখক, চাপাবাজ সাংবাদিক, ব্যাংকার, শিক্ষক, প্রকৌশলী, গবেষক, সঙ্গীতজ্ঞ, কবি, রাজনীতিবিদ।

 

 

 

 

লেখক তালিকায় আছেন অবনি অনার্য, আকতারুজ্জামান কামাল, আকমল হোসেন, আল ফারুক আজম, আফসানা কিশওয়ার, আবু হাসান শাহরিয়ার, আশরাফুজ্জামান উজ্জ্বল, আসমার ওসমান, আহমেদ রিয়াজ, আহসান হাবিব, ইমামুজ্জামান, এম আহসানুল হক খোকন, ওমর খালিদ রুমি, কাওসার সোহেলিন, কাজী রওনক হোসেন, খন্দকার মাহমুদুল হাসান, খুরশিদ আলম সাগর, জুন্নুর রহমান, তৌফিক রহমান, দীপিকা ভট্টাচার্য, ফখরুল আবেদীন মিলন, ফয়সাল আহমেদ, মনিরুল খান, মনোয়ার হোসেন সোহেল, মাহবুব আলম পল্লব, মায়া রানী মন্ডল, মাশুক আহমেদ, মাহমুদ শরীফ, মাহবুবুল আলম কবির, মাহমুদুল হক ফয়েজ, মুজিবুর রহমান রঞ্জু, মুসা ইব্রাহিম, মুনতাসির মামুন ইমরান, মুস্তাফা জামান আব্বাসী, মুরশেদুল কাইয়ূম মেরাজ, মোহাম্মদ জামিউল আহমেদ, মো. রাশেদুল ইসলাম, মোহাম্মদ আলী খান, মুকাররম হোসেন, মৃত্যুঞ্জয় রায়, রতন লাল বিশ্বাস, রবিউল হোসেন কচি, রনি আহমেদ, রাকিব হাসান বিজয়, রাশেদ শাহ, রুমা মোদক, শফিকুল কবির চন্দন, শাকুর মজিদ, শাহীন আহমেদ, শাহীন ইকবাল, সেগুফতা শারমিন, শেখ মোহাম্মদ শরীফউদ্দিন, সত্রং চাকমা, সরকার আমিন, সিমু নাসের, শাহিদ হোসেন, সুমন কায়সার, সীমান্ত দীপু, সৈয়দ আখতারুজ্জামান, সৈয়দ খালেদ সাইফুল্লাহ, সৈয়দ গোলাম কাদের, সৈয়দা ফারজানা সুলতানা, সৌরভ মাহমুদ, সৌমিত্র দেব, হাসান মনসুর, হুমায়েদ ইসহাক মুন ও আসমা আব্বাসী।

 

 

 

 

লেখকরা বাংলাদেশের বিভিন্ন পর্যটন স্পটের ওপরে তাদের অভিজ্ঞতা ও অভিব্যক্তি প্রকাশ করেছেন এই খেরোখাতায়। কেউ লিখেছেন সুন্দর বন নিয়ে, কেউ প্রবাল দ্বীপ সেনমার্টিন নিয়ে, কেউ লাউয়াছড়ার গহিন অরণ্যে আবার কেউবা কেউকারাডংয়ের পার্বত্য চুড়ার বর্ণনা দিয়ে। বইটি মনোরম ও সুখ পাঠ্য। আমরা এই বইটির বহুল প্রচার কামনা করি।

 

 

 

 

 

ভ্রমণের খেরোখাতা সম্পাদনা আশরাফুজ্জামান উজ্জ্বল, প্রকাশক বাংলাদেশ ট্রাভেল রাইটার্স এসোসিয়েশন, পরিবেশক উৎস প্রকাশন, প্রচ্ছদ এ আর কে রীপন। ২৯৬ পৃষ্টা ।

ছড়িয়ে দিন