মহাসমাবেশ নিয়ে দ্বিধাদ্বন্দ্বে বিএনপির নেতাকর্মীরা

প্রকাশিত: ১১:০৬ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২৭, ২০২৩

মহাসমাবেশ নিয়ে দ্বিধাদ্বন্দ্বে বিএনপির নেতাকর্মীরা

 

নিজস্ব প্রতিবেদক

২৮ অক্টোবরের মহাসমাবেশ নিয়ে এখনও দ্বিধাদ্বন্দ্বে বিএনপির নেতাকর্মীরা। সাধারণত এ ধরনের বড় কর্মসূচি হলে আগের দিনে নয়াপল্টন কার্যালয়ে সামনে দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে আসা নেতা-কর্মীরা ভিড় করেন।

কিন্তু শুক্রবার ভিন্ন চিত্র। তবে বিএনপির নেতারা বলছেন, মহাসমাবেশের লাখ লাখ নেতাকর্মী যোগ দেবেন।

শনিবার ঢাকায় বিএনপি শান্তিপূর্ণভাবেই মহাসমাবেশ করবে বলে জানিয়েছেন দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। এই সমাবেশ নিয়ে বাড়াবাড়ি না করতে সরকারসহ সংশ্লিষ্টদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন তিনি। শুক্রবার রাজধানীর নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এই আহ্বান জানান।

মহাসমাবেশ নিয়ে এক প্রশ্নের জবাবে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘এখন পর্যন্ত অনেকগুলো কর্মসূচি আমরা শান্তিপূর্ণভাবে পালন করেছি। আমরা শান্তিপূর্ণভাবেই এই সরকারের পতন ঘটাতে চাই। তবে একটা জিনিস—যদি সরকার, ক্ষমতাসীন দল, তারা যদি কোনো বাড়াবাড়ি করে, অত্যাচার-নির্যাতন করে, তার দায় সম্পূর্ণ সরকারকেই নিতে হবে।’

যদিও বেলা ২টা পর্যন্ত নয়াপল্টনের কার্যালয়ের সামনে থেকে দেখা গেছে, সারা দেশ থেকে আসা
নেতা-কর্মীদের তেমন একটা ভিড় নেই। দেড় শর মতো নেতা–কর্মী নয়াপল্টন কার্যালয় এবং কার্যালয়ের সামনের সড়কে দাঁড়িয়ে আছেন। সাধারণত বড় সমাবেশের আগের দিন মঞ্চ প্রস্তুত করা থেকে শুরু করে নানা ধরনের কর্মসূচিতে ব্যস্ত থাকেন বিএনপির নেতা-কর্মীরা। কিন্তু আজ দুপুর পর্যন্ত তেমন কোনো চিত্র দেখা যায়নি। তবে নয়াপল্টন কার্যালয়ের আশপাশের সব দোকানপাট বন্ধ রয়েছে।

এপ্রসঙ্গে কেরাণাগঞ্জের বিএনপির কর্মী ইসমাইল হোসেন বলেন, ‘মহাসমাবেশের আগের দিন সাধারণত হাজার হাজার নেতাকর্মীর ভিড় থাকে নয়াপল্টনে। এজন্য আমিও চলে এসেছি। কিন্তু নয়াপল্টনে খুব বেশি নেতাকর্মী নেই। শনিবারের মহাসমাবেশ হবে কি না সেটিও বুঝতে পারছি না।’ মানিকগঞ্জের শামসুর রহমান বলেন, ‘বাসে করে সকালে ঢাকায় এসেছি। কিন্তু এখানে কর্মীদের ভিড় না দেখে আমি হতাশ, কেন্দ্রীয় নেতৃত্বও কিছু বলছে না।’ নারায়গঞ্জের ছাত্রদলের কর্মী আকবর হোসেন বলেন, ‘অপেক্ষা করছি কখন মঞ্চ বানানো হয়। মহাসমাবেশ নিয়ে সুনির্দিষ্ট কোনো নির্দেশনা এখনও দেওয়া হয়নি।’

তবে শুক্রবার সংবাদ সম্মেলেন বিএনপির মহাসচিব বলেন, ‘এত অত্যাচার-নির্যাতনের পরও আমরা শান্তিপূর্ণভাবে জনগণকে সঙ্গে নিয়ে আন্দোলন করে এগিয়ে যাচ্ছি। আমরা বিশ্বাস করি সারা দেশের মানুষ এতে সাড়া দেবে। একই সঙ্গে এটাও বিশ্বাস করতে চাই যে সরকারের শুভবুদ্ধির উদয় হবে। তারা দাবি মেনে নিয়ে পদত্যাগ করবে। নিরপেক্ষ একটি সরকারের হাতে ক্ষমতা হস্তান্তর করে সুষ্ঠু নির্বাচনের ব্যবস্থা করবে।’

ফখরুল আরও বলেন, এই সরকারের সত্যিকার অর্থেই একটা অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন করার কোনো ইচ্ছা নেই, যে কারণে নির্বাচনকে প্রভাবিত করার জন্য এরই মধ্যে তারা সারা দেশে ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করেছে। বিরোধী দল যাতে নির্বাচনে না আসতে পারে, তার ব্যবস্থা করছে। কিন্তু এবার জনগণ তাদের অধিকার আদায়ের জন্য রাজপথে নেমে এসেছে। জনগণের অংশগ্রহণের মধ্য দিয়ে প্রতিটি কর্মসূচি পালিত হচ্ছে।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

লাইভ রেডিও

Calendar

March 2024
S M T W T F S
 12
3456789
10111213141516
17181920212223
24252627282930
31