মানবপাচার ও সন্ত্রাস দমন আইনে ২২ মামলা গ্রেপ্তার ১৩

প্রকাশিত: ৯:২৫ পূর্বাহ্ণ, জুন ৮, ২০২০

মানবপাচার ও সন্ত্রাস দমন আইনে ২২ মামলা গ্রেপ্তার ১৩

মানবপাচার ও সন্ত্রাস দমন আইনে সারাদেশে ২২ মামলা হয়েছে এবং ১৩ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে । লিবিয়ায় ২৬ বাংলাদেশি হত্যাকাণ্ডের পর এই ব্যবস্থা নেয়া হয় বলে জানিয়েছে পুলিশ সদর দপ্তর ।

রোববার ‍মানবপাচারে লিবিয়ায় গিয়ে হত্যাকাণ্ডের শিকার হওয়ার খবর আসার পর আইজিপি বেনজীর আহমেদের নির্দেশে সারাদেশে পুলিশের সব ইউনিট একযোগে অভিযান চালাচ্ছে বলে বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়।

র‌্যাব, ডিএম‌পি, সিআইডি, পিবিআইসহ বাংলাদেশ পুলিশের মাঠ পর্যায়ের সংশ্লিষ্ট সকল ইউনিট একযোগে অভিযানে নেমেছে। ৭ জুন পর্যন্ত সারাদেশে মোট ২২টি মামলা দায়ের করা হয়েছে। ইতিমধ্যেই ১৩ জনকে গ্রেপ্তার করে‌ছে।

মানবপাচারে জড়িত অন্যদেরকে গ্রেপ্তারেও অভিযান অব্যাহত রয়েছে বলে পুলিশ সদর দপ্তর জানিয়েছে।

গত ২৮ মে লিবিয়ার ত্রিপলি থেকে ১৮০ কিলোমিটার দক্ষিণের শহর মিজদাহতে ২৬ বাংলাদেশিকে গুলি চালিয়ে হত্যা করে সেদেশের একদল মানব পাচারকারী ও তাদের স্বজনরা।

ওই ঘটনায় বেঁচে যাওয়া একজনের বরাতে সরকারের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, উন্নত জীবিকার সন্ধানে ইউরোপ যাওয়ার জন্য লিবিয়ায় দুর্গম পথ পাড়ি দিচ্ছিলেন ৩৮ বাংলাদেশি। বেনগাজি থেকে মরুভূমি পাড়ি দিয়ে মানবপাচারকারীরা তাদের ত্রিপোলি নিয়ে যাচ্ছিল। মিজদাহতে ওই দলটি লিবিয়ার মিলিশিয়া বাহিনীর হাতে জিম্মি হয়। তখন পাচারকারীরা আরও টাকা দাবি করে। এ নিয়ে বচসার মধ্যে আফ্রিকার মূল পাচারকারীকে মেরে ফেলা হলে তার পরিবার এবং বাকি পাচারকারীরা এলোপাতাড়ি গুলি চালিয়ে ৩০ জনকে হত্যা করে, তার মধ্যে ওই ২৬ বাংলাদেশি রয়েছেন।

ঘটনাটি ‘অত্যন্ত মর্মান্তিক’ পুলিশ মহাপরিদর্শক বেনজীর আহমেদ বলেন, এ ঘটনার সঙ্গে যারা যারা জড়িত তাদেরকে তন্ন তন্ন হয়ে খুঁজে বের করা হবে।

গত ১ জুন এক বাহিনীর কর্মকর্তাদের নিয়ে ভিডিও কনফারেন্সে সভা করে আইজিপি বলেন, “যেভাবে আমাদের দেশের মানুষকে নৃশংসভাবে হত্যা করা হয়েছে তা কোনো ভাবেই মেনে নেওয়া যায় না।”

তিনি বলেন, আমাদের দেশের মানুষকে এভাবে অসহায়ভাবে মৃত্যু বরণ করতে হবে, সেই অবস্থানে এখন বাংলাদেশ নেই। বঙ্গবন্ধুকন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ত্যাগী ও মোহনীয় নেতৃত্বে বাংলাদেশ আজ আত্মমর্যাদায় বলীয়ান এক অন্য বাংলাদেশ। অর্থ উপার্জন ও জীবিকার জন্য দুর্গম ও অবৈধ পথে বিদেশের মাটিতে পাড়ি জমানোর কোনো কারণই নেই। এই বাংলাদেশ এখন মধ্য আয়ের একটি উন্নয়নশীল দেশ।
যারা আমাদের দেশের নাগরিকদেরকে প্রতারণার মাধ্যমে বিদেশে নিয়েছে, যাদের কারণে এই নির্মম মৃত্যু ঘটেছে তাদের একজনকেও ছাড় দেওয়া হবে না।

ছড়িয়ে দিন