ঢাকা ২৪শে জুলাই ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ৯ই শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৭ই মহর্‌রম ১৪৪৬ হিজরি


মৌলভীবাজারের আলোচিত জোড়া খুন !

redtimes.com,bd
প্রকাশিত জানুয়ারি ১৩, ২০১৮, ০৮:৩৭ অপরাহ্ণ
মৌলভীবাজারের আলোচিত জোড়া খুন !

মৌলভীবাজারের আলোচিত জোড়া খুন
পাঁচদিনের রিমান্ড শেষে কারাগারে আসামী আরাফাত

আব্দুল কাইয়ুম, মৌলভীবাজার প্রতিনিধি: মৌলভীবাজারের বহুল আলোচিত জোড়াখুন মামলার অন্যতম আসামী আরাফাত রহমানের পাঁচদিনের রিমান্ড শেষ হয়েছে। শুক্রবার (১২জানুয়ারী) দুপুর আড়াইটার দিকে ৫দিনের রিমান্ড শেষে কারাগারে প্রেরণ করা হয় মামলার ৩নং আসামী আরাফাতকে। শনিবার (১৩ জানুয়ারী) দুপুরের দিকে বিষয়টি নিশ্চিত করে মৌলভীবাজার মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) ও মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা সুহেল আহম্মদ জানান, আসামী আরাফাত আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী দিয়েছে। মামলার সর্বশেষ অগ্রগতির বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন এমামলায় এটাই সর্বশেষ এবং সবচেয়ে বড় অগ্রগতি ।

এমামলায় আরাফাত রহমান গত ৪ জানুয়ারী সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট এর ১নং আমলী আদালতে আতœসমর্পন করে জামিন চাইলে আদালত তার জামিন নামঞ্জুর করে কারাগারে প্রেরণের নির্দেশ দেন ।

উল্লেখ্যঃ গত বছরের ৬ ডিসেম্বর সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টার দিকে শহরের সাইফুর রহমান অডিটোরিয়ামের পিছনের নির্জন জায়গায় ছাত্রলীগের অভ্যান্তরিন কোন্দলের শিকার হয়ে দুই ছাত্রলীগ কর্মী সিলেটের লিডিং ইউনিভার্সিটির আইন বিভাগের শিক্ষার্থী ও শহরের ২৯ পুরাতন হাসপাতাল সড়কের বাসিন্দা , সাবেক ব্যাংক কর্মকর্তা মোঃ আবু বক্কর সিদ্দিকের কনিষ্ঠ পূত্র মোহাম্মদ আলী সাবাব (২২) ও দূর্লভপুর গ্রামের বিল্লাল হোসেনের ছেলে এবং মৌলভীবাজার সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের এস.এস.সি পরিক্ষার্থী নাহিদ আহমদ মাহির (১৭) কে ডেকে নিয়ে ছুরিকাঘাত করে কুঁপিয়ে নৃশংস কায়দায় হত্যা করা হয় । ঘটনার ৩ দিন পর মৌলভীবাজার মডেল থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়। নিহত সাবাবের মা সেলিনা চৌধুরী বাদী হয়ে ৩০২/৩৪ ধারায় ১২ জনকে আসামী করে মামলাটি দায়ের করেন। মামলা নং (জিআর ৭/৩৬৩)। এই মামলার ১২ আসামীর মধ্যে এপর্যন্ত ৪ আসামী কারাগারে আটক রয়েছেন। আলোচিত এ ঘটনার সুষ্টু বিচার ও সব আসামীদের গ্রেফতারের দাবীতে শহরের সচেতন নাগরিকদের অংশগ্রহনে দু’টি বড় বড় মানববন্ধন হলেও এখন পর্যন্ত মাহির পরিবার থানায় কিংবা আদালতে কোন মামলা দায়ের করেনি।

সংবাদটি শেয়ার করুন

July 2024
S M T W T F S
 123456
78910111213
14151617181920
21222324252627
28293031