রাজধানীতে নিহত ২জন বনানীর ব্যবসায়ী হত্যার আসামি

প্রকাশিত: ১১:৩৫ পূর্বাহ্ণ, ডিসেম্বর ৮, ২০১৭

রাজধানীতে নিহত ২জন বনানীর ব্যবসায়ী হত্যার আসামি

শুক্রবার ভোরে আফতাবনগরের শেষপ্রান্ত থেকে তাদের গুলিবিদ্ধ অবস্থায় উদ্ধার করে বাড্ডা থানা পুলিশ।ডিবির দক্ষিণের এসি গোলাম সারোয়ার শিতীল জানান, ব্যবসায়ী সিদ্দিক হত্যার আসামিদের গ্রেফতার করতে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ভোরে আফতাব নগরে অভিযান চালানো হয়। এ সময় সন্ত্রাসী ও ডিবি পুলিশের পাল্টাপাল্টি গুলিতে তারা নিহত হন। পরে বাড্ডা পুলিশ উদ্ধার করে ঢামেক হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসকরা মৃত ঘোষণা করেন। নিহত দুইজনই বনানীর ব্যবসায়ী সিদ্দিক হত্যায় জড়িত। রাজধানীর আফতাবনগর এলাকায় কথিত বন্দুকযুদ্ধে নিহত দুই যুবক বনানীতে জনশক্তি রফতানি ব্যবসায়ী সিদ্দিক হোসেন হত্যা মামলার আসামি। তারা হলেন সাদ্দাম ও পিচ্চি আলামিন।

ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) উত্তর জোনের সিনিয়র সহকারী কমিশনার (এসি) গোলাম সারোয়ার শিতীল সংবাদ মাধ্যমকে ওই দুজনের পরিচয় নিশ্চিত করেছেন। এর আগে সকালে বাড্ডা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা কাজী ওয়াজেদ আলী জানান, ‘ভোরে ডিবি (উত্তর) পুলিশের কাছ থেকে থানায় ফোন আসে। গোলাগুলিতে দুইজন নিহত হয়েছেন। পরে পুলিশ গিয়ে লাশ উদ্ধার করে।’

গত ১৪ নভেম্বর রাতে ‘এমএস মুন্সি ওভারসিজ’ নামে রিক্রুটিং এজেন্সির কর্ণধার সিদ্দিক হোসেন মুন্সিকে (৫০) গুলি করে হত্যা করে চার দুর্বৃত্ত। এ ঘটনায় ওই প্রতিষ্ঠানের ৩ কর্মকর্তা মির্জা পারভেজ (৩০), মোখলেসুর রহমান (৩৫) ও মোস্তাফিজুর রহমান (৩৯) গুলিবিদ্ধ হন। এ ঘটনায় গত ১৫ নভেম্বর সন্ধ্যা ৬টার দিকে বনানী থানায় নিহত ব্যবসায়ী সিদ্দিকের স্ত্রী জোৎস্না বেগম বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামা চারজনকে আসামি করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

৫ ডিসেম্বর মঙ্গলবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে ৫টি আগ্নেয়াস্ত্রসহ সিদ্দিক মুন্সি হত্যার ঘটনায় মূল পরিকল্পনাকারী হেলালকে গুলশানের কালাচাঁদপুর এলাকা থেকে গ্রেফতার করে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)। পরদিন ডিএমপি মিডিয়া সেন্টারে এক সংবাদ সম্মেলনে কাউন্টার টেররিজম অ্যান্ড ট্রান্স ন্যাশনাল ক্রাইম ইউনিটের প্রধান মনিরুল ইসলাম জানিয়েছিলেন, হেলাল ছাড়াও সিদ্দিক হত্যায় জড়িত পিচ্চি আলামিন ও সাদ্দাম নামের দুজনকে শনাক্ত করা হয়েছে।

ছড়িয়ে দিন