রাজনগরে প্রবাসীর জমি জোরপূর্বক দখলের অভিযোগ

প্রকাশিত: ৮:০২ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ২৬, ২০২৪

রাজনগরে প্রবাসীর জমি জোরপূর্বক দখলের অভিযোগ

জাফর ইকবাল:

মৌলভীবাজারের রাজনগরে যুক্তরাজ্য প্রবাসীর বাড়ী ও জমি জোরপূর্বক দখলের অভিযোগ উঠেছে। স্থানীয় সালিশে ওই জমি ছেড়ে দেয়ার নির্দেশ দেয়া হলেও মোতালিব খান গং জমির দখল ছাড়ছে না।

জানা যায়, প্রবাসী আজম খানের এ জায়গাসহ ফসলি জমি দখল নিয়ে পূর্বে রাজনগর থানায় একটি অভিযোগ দাখিল করা হয়েছিলো। অভিযোগ দাখিলের পর স্থানীয় গণ্যমাণ্য ব্যক্তিবর্গের সালিশ বৈঠকে দলিলপত্র যাচাই করে প্রবাসী আজম খানের জায়গার সীমানা নির্ধারণ করে মোতালিব খান গংকে দখলকৃত জমি ছেড়ে দেয়ার কথা বলেন। তাৎক্ষণিক ছেড়ে দিলেও পরবর্তীতে বাড়ির জায়গা আবার তার দখলে নিয়ে নেয় এবং প্রবাসীকে হুমকি দিয়ে আসছে।

এ ঘটনায় যুক্তরাজ্য প্রবাসী আজম খান এর বর্তমান বর্গাচাষী বাদী হয়ে রাজনগর থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন।

অভিযোগে উল্লেখ করেন, যুক্তরাজ্য প্রবাসী আজম খানের উপজেলার রাজনগর সদর ইউনিয়নের কর্ণিগ্রাম মৌজায়, জেএলনং – ১০৫, খতিয়ান নং ১১০ এ ৮১৩, ৮১৪, ৮১৫, ৮১৯, ৮২০, ৮২৫, ৮২৭ দাগে বরন্ডী, ডোবা, চারা ও বাড়ী মিলে ১১৭ শতক এর মধ্যে উত্তরাধীকারীসূত্রে আজম খান ৫৮.৫ শতাংশ জমির মালিক। দীর্ঘদিন থেকে তিনি প্রবাসে বসবাস করার কারনে রক্ষনা বেক্ষনের জন্য তিনি মনফর খান ও তার দুই ছেলে মোতালিব খান ও আবুল খানকে দায়িত্ব দেন। রক্ষণাবেক্ষণের কারনে তাদের দখলে ছিলো জমিগুলো। সম্প্রতি প্রবাসী আজম খান তাঁর জায়গাগুলো ছেড়ে দেওয়ার কথা বললে রক্ষণা-বেক্ষণকারী মোতালিব খান গং প্রবাসীকে টেলিফোনে বিভিন্ন হুমকি-দামকি প্রদান করেন। এতে প্রবাসী আজম খান আইনের স্বরণাপূর্ণ হলে এলাকার গণ্যমান্য লোকজন সামিলে স্থানীয়ভাবে বিচার সালিশ করিয়া আজম খানের জমির সীমানা নিধারণ করে দেন। এসময় স্থানীয় ব্যক্তিবর্গ আজম খানের সম্মতিতে আজম খানের জায়গা রক্ষণা বেক্ষন ও বর্গা চাষের দায়িত্বদেন এলাকার জিতু মিয়াকে।

জিতু মিয়া আজম খানের জমি-জমাগুলো রক্ষণাবেক্ষণ ও বর্গাচাষ করার প্রস্তুতি নিলে পূর্বে রক্ষণাবেক্ষন ও বর্গাচাষের দায়িত্বে থাকা মোতালিব খান, মনফর খান ও আবুল খান বর্ণিত জায়গাগুলো তাদের দখলে নেওয়ার জন্য প্রবাসী আজম খানের বর্গাচাষী জিতুকে হুমিকি ধামকি প্রদান করেন এবং জমির সীমানা নির্ধারণের খুটি উপড়াইয়া ফেলে দেয়।

প্রবাসী আজম খান ‍মুঠোফোনে জানান, আমি দীর্ঘদিন থেকে যুক্তরাজ্যে বসবাস করছি। যুক্তরাজ্যে বসবাস করার কারনে আমার জায়গা সম্পত্তিগুলো দেখা শুনার জন্য মনফর খানকে দায়িত্ব দেই এবং জমিতে চাষকৃত ফসল বিক্রি করে আমাদের স্থানীয় কর্ণিগ্রাম মসজিদে ১০ হাজার টাকা দেওয়ার জন্য নির্ধারণ ছিলো। কিন্তু দীর্ঘদিন থেকে আমার সম্পত্তি ভোগ করলেও আমার নির্ধারিত ১০ হাজার টাকা করে মসজিদে না দেওয়ার কারনে সম্প্রত্তি আমি আমার জায়গা অন্যজনকে বর্গাচাষের জন্য দিতে চাইলে মনফর খান ও তার দুই ছেলে আমাকে টেলিফোনে গালিগালাজ করে এবং হুমকি দামকি প্রদান করে। সম্প্রতি আমি দেশে আসলেও তাদের ভয়ে বাড়িতে যেতে পারিনি। আমি একজন প্রবাসী হিসাবে প্রশাসনের কাছে জোড় দাবি জানাচ্ছি আমার জায়গাগুলো দখলমুক্ত করে দেওয়ার জন্য।

জানতে চাইলে সালিশে উপস্থিত থাকা রেজাউল করিম সোহেল বলেন, জমি নিয়ে বিরোধের ঘটনায় সালিশ হয়েছে। সালিশে আমিও উপস্থিত ছিলাম। দলিলপত্র যাচাই করে প্রবাসীর কাগজপত্র সঠিক পাওয়া যায়। তাই সালিশে উপস্থিত থাকা গণ্যমাণ্য ব্যক্তিবর্গ জমি ছেড়ে দেয়ার কথা বলেন। তাৎক্ষণিক জমি ছেড়ে দিলেও বর্তমানে শুনতেছি আবার দখল করে নিয়েছে। প্রবাসী আজম খান সম্প্রত্তি দেশে আসলেও মোতালিব গংদের ভয়ে বাড়িতে আসতে পারছেন না।

অভিযোগের বিষয়ে জানতে মোতালিব খানের বাড়িতে গেলে, ‘তিনি উত্তেজিত হয়ে প্রতিবেদককে মারতে আসেন এবং অর্কট ভাষায় গালি গালাজ করেন।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

লাইভ রেডিও

Calendar

April 2024
S M T W T F S
 123456
78910111213
14151617181920
21222324252627
282930