ঢাকা ১৭ই জুন ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ৩রা আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১০ই জিলহজ ১৪৪৫ হিজরি

রূপগঞ্জে মেট্রোরেলের কর্মকর্তারা ক্ষোভের মুখে

abdul
প্রকাশিত ফেব্রুয়ারি ৯, ২০২২, ০৩:০৩ অপরাহ্ণ
রূপগঞ্জে মেট্রোরেলের কর্মকর্তারা ক্ষোভের মুখে

 

 

 

 

রূপগঞ্জ (নারায়ণগঞ্জ) প্রতিনিধিঃ রূপগঞ্জ সদর ইউনিয়নের পিতলগঞ্জ গ্রামে ‘এমআরটি লাইন ১’ এর অধিগ্রহণকৃত জমির বিল না দিয়ে সীমানা বুঝে নিতে এলে তোপের মুখে পড়েন জেলা প্রশাসন এবং মেট্রোরেলের কর্মকর্তারা। জমির মালিকরা দফায় দফায় মিছিল এবং বিক্ষোভ করেন উপস্থিত কর্মকর্তাদের সামনেই। একপর্যায়ে কর্মকর্তারা, এলাকাবাসীর বাধার মুখে চলে যান। জমির মালিকদের দাবি বিল পরিশোধ এর আগে তারা জমি ছাড়বেন না।

মঙ্গলবার রূপগঞ্জ সদর ইউনিয়নের পিতলগঞ্জ এবং ব্রাহ্মণখালি মৌজায় ঘটনাটি ঘটে। স্থানীয় জমির মালিক মনিরুজ্জামান ভুঁইয়া বলেন, জমির বিল না দিয়ে জমি থেকে আমাদের তুলে দিলে কোথায় যাবো? বরং বিল দিলে ওই বিল দিয়ে অন্য এলাকায় জমি কিনে ঘর বাড়ি করতে পারবো। এখন ওই বিল না দিয়ে জমি বুঝে নিতে চাইলে কোন ক্রমেই দেয়া হবে না। আমরা মহামান্য হাইকোর্টে রিট করেছি। ওই রিটের রায় না আসা পর্যন্ত তাদের জমি নিতে দেব না।
স্থানীয় ব্যবসায়ী এবং জমির মালিক মাহাবুব-উল-মজিদ, রেডটাইমসকে জানান “এলাকাবাসীর দাবি অনুসারে মেট্রোরেল এবং জেলা প্রশাসনের বিবেচনা করা প্রয়োজন, জমির বিল পরিশোধের পরেই জমির সীমানা এমআরটি লাইন-১ কে বুঝিয়ে দেওয়া হবে”।
“মেট্রোরেলের এমআরটি লাইন ১ এর অধিগ্রহণকৃত জমিতে রয়েছে প্রায় ৬০০ টি ঘরবাড়ি এবং মসজিদ-মাদ্রাসা । এনিয়ে জমির মালিকেরা রয়েছে দুশ্চিন্তায়” রেডটাইমসকে জানিয়েছেন স্থানীয় জমির মালিক মহিউদ্দিন ইসলাম দিপু।
‘মেট্রোরেল এমআরটি লাইন ১’ এর ডেপুটি সেক্রেটারি হাফিজুর রহমান রেডটাইমসকে জানান “আমরা জমি বুঝে নিতে আসিনি বরং পরিদর্শন করতে এসেছিলাম জমির মালিকদের সঙ্গে সব বিষয় নিয়ে সমাধান হয়েছে”।
এদিকে নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসনের এডিসি তোফাজ্জল হোসেন বলেন “আমরা রূপগঞ্জ মেট্রোরেল এমআরটি লাইন ১ পরিদর্শন করতে গিয়েছিলাম এবং কারো বাধার শিকার হইনি বরং স্থানীয়দের দাবি আমরা শুনেছি। লিখিতভাবে তাদের দাবি জানালে বিষয়গুলো সমাধান করা হবে”।

সংবাদটি শেয়ার করুন

June 2024
S M T W T F S
 1
2345678
9101112131415
16171819202122
23242526272829
30