লকডাউন দিয়ে আলেম-ওলামাদের ওপর ‘ক্র্যাকডাউন’ চালানো হচ্ছে : খেলাফত মজলিস

প্রকাশিত: ১১:৫১ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ১৫, ২০২১

লকডাউন দিয়ে আলেম-ওলামাদের ওপর  ‘ক্র্যাকডাউন’ চালানো হচ্ছে : খেলাফত মজলিস

দেশে লকডাউন দিয়ে আলেম-ওলামাদের ওপর যে ‘ক্র্যাকডাউন’ চালানো হচ্ছে, তাতে সরকারের শেষ রক্ষা হবে না বলে হুঁশিয়ারি দিয়েছে খেলাফত মজলিস।

আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে খেলাফত মজলিসের আমির অধ্যক্ষ মাওলানা মোহাম্মদ ইসহাক ও মহাসচিব ড. আহমদ আবদুল কাদের এই হুঁশিয়ারি দেন।

জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব ও হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের নায়েবে আমির মাওলানা মঞ্জুরুল ইসলাম আফেন্দী, হেফাজতে ইসলামের সাংগঠনিক সম্পাদক ও নেজামে ইসলাম পার্টির যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা আজিজুল ইসলাম ইসলামাবাদী, হেফাজতে ইসলামের সহকারী মহাসচিব ও লালবাগ মাদরাসার মুহাদ্দিস মাওলানা শাখাওয়াত হোসাইন রাজী, মাদানীনগর মাদরাসার মুহাদ্দিস মুফতি বশির উল্লাহসহ সারা দেশে বহু আলেম-ওলামাকে গ্রেপ্তার ও রিমান্ডের নামে নির্যাতনের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে অবিলম্বে গ্রেপ্তারকৃতদের নিঃশর্ত মুক্তির দাবি জানিয়েছেন তাঁরা।

বিবৃতিতে খেলাফত মজলিসের নেতারা বলেন, ‘করোনার নামে লকডাউন দিয়ে সরকার সারা দেশে আলেম-ওলামাদের ওপর ক্র্যাকডাউন চালাচ্ছে। রমজান মাসে রোজা পালনকারী ওলামা ও দেশপ্রেমিক তাওহিদি জনতাকে গ্রেপ্তার করে, সাজানো মামলায় রিমান্ডে নিয়ে সরকার জুলুমের চূড়ান্ত সীমা অতিক্রম করে ফেলেছে।

নেতারা আরও বলেন, এ জুলুমের ফলাফল কখনোই শুভ হতে পারে না। লকডউনের নামে কারফিউ দিয়ে আলেম-ওলামা ও দেশপ্রেমিক ছাত্র-জনতাকে গ্রেপ্তার নির্যাতন কোনোভাবেই গ্রহণযোগ্য নয়। আলেম-ওলামা ও দেশপ্রেমিক জনগণের ওপর এভাবে হামলা, মামলা, হত্যা, গ্রেপ্তার, নির্যাতন চালিয়ে সরকারের শেষ রক্ষা হবে না। তাই সব ধরনের জুলুম, নির্যাতন বন্ধ করতে হবে। দেশে বিরাজমান ভীতিকর পরিস্থিতির অবসান ঘটাতে হবে। মাহে রমজানে ধর্মপ্রাণ মুসলমান যাতে রোজা, নামাজ, তারাবিহসহ সব ইবাদত-বন্দেগি নির্বিঘ্নে পালন করেত পারে সে ব্যবস্থা করতে হবে।