লাইফ সাপোর্ট

প্রকাশিত: ৯:৫০ অপরাহ্ণ, মার্চ ৯, ২০১৮

লাইফ সাপোর্ট

মুনমুন মুখার্জী

সন্তর্পণে আরও এক ধাপ নীচে নেমে এল নীতু।

পেছনে ফিরে তাকালো আরও একবার; এবারেও পেছনের সিঁড়িগুলো উধাও হয়ে গেছে। ওপরে ফিরে যাওয়ার জন্য কোন সিঁড়িই আর দেখতে পেল না সে; অগত্যা অন্ধকার হাতড়ে প্যাঁচানো সিঁড়ির রেলিংটি ধরে ধীরে ধীরে নেমে আসা ছাড়া অন্য অপশন নেই।

চারপাশের সব কিছুই আলো আঁধারিতে অস্পষ্ট। অথচ এখান থেকেই দেখা যাচ্ছে সিঁড়ির শেষ ধাপের সাথে লাগানো কারুকার্য খচিত দরজা দিয়ে অবাধ আলোর হাতছানি।

সিঁড়ির প্রতিটি টার্ণের সাথে সাথে চলচ্চিত্রের মত কিছু দৃশ্যকল্প পেরিয়ে যাচ্ছে নীতু।

মিতভাষী মেয়েটির সাথে রাফ অ্যান্ড টাফ ছেলেটির পরিচয়, প্রণয়, বাড়ির অমতে বিয়ে, মতের অমিল, পারসোনালিটি ক্ল্যাশ, আইডেন্টিটি ক্রাইসিস, ডিভোর্স… উফ্‌! মেয়েটির একাকীত্বের সবটুকু অনুভব করতে পারছে ও। না- না- এখানে আর একমুহূর্তও নয়। বিষণ্ণতা ঠিক ওর জন্য নয়।

আরও কয়েক ধাপ নেমে এল নীতু। মেয়েটির তরুণী জীবনের সংগ্রাম, শ্বাপদ-সংকুল জন অরণ্যে নিজেকে নিরাপদ রাখার আপ্রাণ চেষ্টা, মায়ের মৃত্যুতে বন্ধুত্বের হাত ধরে এগিয়ে আসা বিপদ—-

চোখ বন্ধ করে আরও কয়েক ধাপ নীচে নামলো নীতু। মেয়েটির নিষ্পাপ খিল খিল হাসিতে সচকিত হয়ে চোখ খুলল এবার সে। পরিবার, পরিজন, আত্মীয়, বন্ধুদের মেলায় সদ্য প্রস্ফুটিত মেয়েটির কৈশোর; ওর চঞ্চলা নির্ঝরা শৈশব একের পর এক সেলুলয়েড চিত্রের মত পেরিয়ে গেল ওর চোখের সামনে।

অতঃপর মায়ের কোলে পুতুলগন্ধী সদ্য জন্মানো মেয়েটি- পরিবারের সব আশা; ভরসা; স্বপ্ন শুধু ওকে ঘিরে। এসব পেরিয়ে বাইরের আলোর দিকে পা বাড়াতেই একটা অতি পরিচিত আদর জড়ানো কণ্ঠ, “নীট- নীট- নীট- নীত-তু!” তারপর আরও একটি কণ্ঠ, “জীবন একটি আলোকিত সিঁড়ির মত; সেই সিঁড়ি বেয়ে ক্রমান্বয়ে মানুষ পৌঁছে যায় তার নির্দিষ্ট লক্ষে।” এসব কণ্ঠ কি ওর পূর্ব পরিচিত? নাকি স্রেফ দে-জা-ভ্যু?

নীতু তাহলে ক্রমান্বয়ে নামছে কেন? কেন-ই বা ওর জীবন সিঁড়িতে চাপ চাপ অন্ধকার?

পেছনে ফিরে তাকালো সে আবার। ফেলে আসা সিঁড়িটির প্রতিটি ধাপ ক্রমশঃ দৃশ্যমান হচ্ছে আবার। নীতু কি ফিরে যাবে?

সিঁড়ির সর্বোচ্চ ধাপে এবার অপরিচিত কণ্ঠের ফিসফাস, “সুনীতা সেনের লাইফ সাপোর্ট খুলে দেয়া হয়েছে।”

লাইভ রেডিও

Calendar

May 2024
S M T W T F S
 1234
567891011
12131415161718
19202122232425
262728293031