লিঙ্গ সমতা নিশ্চিত হচ্ছে বাংলাদেশে’

প্রকাশিত: ৮:১৩ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ৩, ২০২৪

লিঙ্গ সমতা নিশ্চিত হচ্ছে বাংলাদেশে’

নিজস্ব প্রতিবেদক:

২০২৪এর আন্তর্জাতিক নারী দিবসের থিম ছিলো, ‘নারীতে বিনিয়োগ করুন: অগ্রগতি ত্বরান্বিত করুন’। এই বৈশ্বিক আহ্বানকে আমলে নিয়ে টেকসই উন্নয়ন ত্বরান্বিত করতে বাংলাদেশের নারীদের জন্য বিনিয়োগের তাৎপর্য সম্পর্কে বাংলাদেশে কর্মরত আন্তর্জাতিক আর্থিক প্রতিষ্ঠানের তিন প্রধান তাদের লক্ষ্য ও দৃষ্টিভঙ্গি জানিয়েছেন। ইউএন-ওমেন-এর ওয়েবসাইটে এশিয়া-প্যাসিফিক সেকশনে প্রকাশিত সাক্ষাতকারে এই নিয়ে নিজেদের ভাবনা তুলে ধরেছেন এডিবির কান্ট্রি ডিরেক্টর এডিমন জিনটিং, আইএমএফ-এর বাংলাদেশের আবাসিক প্রতিনিধি জয়েন্দু দে এবং বাংলাদেশ ও ভুটানে বিশ্বব্যাংকের কান্ট্রি ডিরেক্টর আবদুলায়ে সেক।

জাতীয় লিঙ্গ সমতা নীতি এবং অগ্রাধিকার ইস্যুতে বাংলাদেশ সরকারকে ঘনিষ্ঠভাবে সহযোগিতা করছে এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক। নারীদের অর্থনৈতিক অংশগ্রহণ বাড়াতে, সিদ্ধান্ত গ্রহণের প্রক্রিয়াগুলোতে তাদের অন্তর্ভুক্তি নিশ্চিত করতে এবং লিঙ্গ-সংবেদনশীল নীতি ও অনুশীলনগুলোকে উৎসাহিত করে, এমন প্রকল্পগুলোকে অগ্রাধিকার দিচ্ছে প্রতিষ্ঠানটি, জানিয়েছেন এডিবির কান্ট্রি ডিরেক্টর এডিমন জিনটিং।

লক্ষ্যযুক্ত আর্থিক সহায়তা এবং প্রযুক্তিগত দক্ষতার মাধ্যমে, এডিবি সমস্ত প্রকল্প জুড়ে জেন্ডার মূলধারায় সহায়তা করে। প্রকল্পের নকশা, বাস্তবায়ন এবং পর্যবেক্ষণে লিঙ্গ সমতা বিবেচনাকে প্রতিষ্ঠানটি একীভূত করে, যার ফলে কার্যকর ফলাফল নিশ্চিত করা যায় বলে জানান এডিমন জিনটিং। লিঙ্গ-কেন্দ্রিক হস্তক্ষেপের কার্যকারিতা এবং স্থায়িত্ব বাড়ানোর জন্য সুশীল সমাজ সংস্থা এবং অন্যান্য স্টেকহোল্ডারদের সাথে কাজ করে এডিবি। লিঙ্গ বৈষম্যের মূল কারণগুলিকে মোকাবেলা করে এবং বাংলাদেশে অন্তর্ভুক্তিমূলক উন্নয়ন প্রতিষ্ঠিত করতে চায় প্রতিষ্ঠানটি।

জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবেলায় এডিবি কীভাবে নারী নেতৃত্বের প্রচার করছে, জানতে চাইলে এডিমন

জিনটিং বলেন, তার প্রতিষ্ঠান জলবায়ু কর্মকাণ্ডে নারীদের প্রধান ভূমিকাকে স্বীকৃতি দিচ্ছে এবং এই

গুরুত্বপূর্ণ ক্ষেত্রে সক্রিয়ভাবে তাদের নেতৃত্ব প্রচার করছে। জলবায়ু পরিবর্তনের অভিযোজন এবং প্রশমন সংক্রান্ত সিদ্ধান্ত গ্রহণের প্রক্রিয়াগুলোতে অংশগ্রহণের জন্য নারীদের ক্ষমতায়ন করে, এমন উদ্যোগ সমর্থন করে এডিবি। সক্ষমতা-নির্মাণ কর্মসূচি এবং লক্ষ্যযুক্ত বিনিয়োগের মাধ্যমে জলবায়ু-সহনশীলতা চর্চায় নারীদের দক্ষতা এবং জ্ঞান বাড়ানোর লক্ষ্য আছে প্রতিষ্ঠানটির।

লিঙ্গ-সংবেদনশীল জলবায়ু অর্থায়নকে শক্তিশালী করার ক্ষেত্রে পুনর্ব্যবহারযোগ্য শক্তি এবং টেকসই কৃষি উদ্যোগের মতো প্রকল্পগুলোতে বিনিয়োগ বাড়াবে এডিবি, যা নারীদের সরাসরি উপকার করবে। প্রতিষ্ঠানটি নারী-নেতৃত্বাধীন ব্যবসা ও প্রতিষ্ঠানের জন্য জলবায়ু অর্থায়নের সুযোগ বাড়াতে পারে বলে জানিয়েছেন এডিমন জিনটিং।

কীভাবে বাংলাদেশে নারীর ক্ষমতায়ন এবং লিঙ্গ সমতার জন্য অর্থায়নকে আইএমএফ এগিয়ে নিচ্ছে, জানতে চাইলে প্রতিষ্ঠানটির বাংলাদেশের আবাসিক প্রতিনিধি জয়েন্দু দে জানান, ২০২৩ সালের ৩০ জানুয়ারি তার প্রতিষ্ঠানের নির্বাহী বোর্ড বাংলাদেশের সাথে ৪২ মাসের আর্থিক কর্মসূচি অনুমোদন করে। কর্মসূচীতে বৃহত্তর সামাজিক ও উন্নয়নমূলক ব্যয়, আর্থিক খাতকে শক্তিশালীকরণ এবং জলবায়ু সহনশীলতা গড়ে তোলার জন্য ফিন্যান্সিয়াল সেক্টর তৈরির লক্ষ্যে সংস্কার অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। এগুলি স্বাস্থ্য, শিক্ষা এবং অবকাঠামোতে বর্ধিত বিনিয়োগ, সামাজিক সুরক্ষা সম্প্রসারণ, বৃহত্তর আর্থিক অন্তর্ভুক্তি এবং জলবায়ু পরিবর্তন সম্পর্কিত চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় সহায়তা করে নারীর ক্ষমতায়নকে উপকৃত করবে বলে আশা করে আইএমএফ।

জয়েন্দু সে জানান, আইএমএফ-এর বিশ্লেষণে বাংলাদেশের জেন্ডার রেসপন্সিভ বাজেটিং অনুশীলনকে শক্তিশালী করারও আহ্বান জানানো হয়েছে, যাতে দেশের লিঙ্গ সমতা লক্ষ্য অর্জনের জন্য জনসম্পদকে আরও কার্যকরভাবে পরিচালনা করা যায়। লিঙ্গ সমতা এবং নারীর ক্ষমতায়নের অগ্রগতি ত্বরান্বিত করার জন্য কোন সামষ্টিক অর্থনৈতিক ব্যবস্থার প্রয়োজন হতে পারে, এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি জানান, নারীদের গতিশীলতা বৃদ্ধি এবং গৃহস্থালির কাজ ও যত্নের পরিশ্রম কমাতে স্বাস্থ্য, শিক্ষা, এবং অবকাঠামোতে (পরিবহন, স্যানিটেশন, শিশু যত্ন) বিনিয়োগ বৃদ্ধি করতে হবে। এই অর্থায়নের জন্য, বাংলাদেশকে তার কর আহরণ বাড়াতে হবে, করের দক্ষতা উন্নত করতে হবে এবং অপর্যাপ্ত ভর্তুকি কমাতে হবে বলে মনে করে আইএমএফ। তাছাড়া, একটি অন্তর্ভুক্তিমূলক আর্থিক ব্যবস্থা নিশ্চিত করার জন্য আর্থিক খাতে সংস্কার প্রয়োজন দেখছে প্রতিষ্ঠানটি, যা বেসরকারি বিনিয়োগকে আকৃষ্ট করে এবং নারী ও পুরুষ উভয় উদ্যোক্তাদের সমর্থন করে।

বাংলাদেশে নারীর ক্ষমতায়ন এবং লিঙ্গ সমতার জন্য অর্থায়নে বিশ্বব্যাংকের ভূমিকা প্রসঙ্গে প্রতিষ্ঠানটির কান্ট্রি ডিরেক্টর আবদুলায়ে সেক জানান, বাংলাদেশ প্রথম দিকে উপলব্ধি করেছে যে, বিনিয়োগকারী নারীরা একটি গুরুত্বপূর্ণ অর্থনৈতিক চালক। নারীর ক্ষমতায়ন দেশের উন্নয়ন কৌশলের কেন্দ্রবিন্দু ছিল। বিশ্বব্যাংকের বিনিয়োগ এবং বিশ্লেষণমূলক কাজের মাধ্যমে নারীদের সামাজিক ও অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডে অংশগ্রহণকে প্রসারিত করতে সরকারের সাথে সহযোগিতা করে। এটি বিশ্বব্যাংকের জেন্ডার স্ট্র্যাটেজি এবং কান্ট্রি পার্টনারশিপ ফ্রেমওয়ার্কের সাথে যুক্ত।

বাংলাদেশে বিশ্বব্যাংকের একটি ডেডিকেটেড জেন্ডার এবং সোশ্যাল ইনক্লুশন প্ল্যাটফর্ম রয়েছে যা নিশ্চিত করে যে, প্রতিটি প্রকল্প অগ্রাধিকারমূলক লিঙ্গ ব্যবধান চিহ্নিত করে সেগুলি পূরণ করার জন্য নির্দিষ্ট পদক্ষেপ নেয়। লিঙ্গ সংবেদনশীল অভিযোগ প্রক্রিয়া, আচরণবিধি মানার বাধ্যবাধকতা এবং সমস্ত প্রকল্পের সুবিধাভোগী এবং প্রকল্প কর্মীদের নিয়মিত পরামর্শ প্রয়োগ করে প্রতিষ্ঠানটি, যা ইতিবাচক ফলাফল দেয় এবং যৌন হয়রানি এবং লিঙ্গ-ভিত্তিক সহিংসতা ঠেকায়। চলমান প্রকল্পগুলির মধ্যে বেশ কয়েকটি এনইইটি যুব, প্রত্যন্ত অঞ্চলের মহিলা এবং প্রান্তিক গোষ্ঠীর অন্তর্গত, যেমন নারী এবং প্রতিবন্ধী মেয়েদের দক্ষতার মাধ্যমে মহিলা শ্রমশক্তির অংশগ্রহণের উন্নতির উপর ফোকাস করে।

 

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

লাইভ রেডিও

Calendar

April 2024
S M T W T F S
 123456
78910111213
14151617181920
21222324252627
282930