লীলাবতী বন্ধু আমার

প্রকাশিত: ১১:২৪ পূর্বাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ৮, ২০১৮

লীলাবতী বন্ধু আমার

সিগমা আউয়াল

দিন যদি হারিয়ে যায় ,দিগন্তের কাছে ,
ফুল যদি ঝরে পড়ে গোধূলীর আগেই ,
রাত যদি হারিয়ে যায় তারার দেশে …
সমুদ্র গাহিবে গান বহু দিন পরে ।
আকাশ জ্বেলে যাবে তার নক্ষত্রের মালা ,
রাত্রি আর দিন প্রাচীন শাখার মতো রয়ে যাবে
অসংখ্য স্মৃতির ধূলায় ।
আমারে খুঁজো না আর পাখীর নীড়ের পাখায় …
অথবা দখিনা জানালায় !

যদি কখনো মনে পড়ে , দেখবে প্রাচীন কোন গুল্মলতায়
জড়িয়ে , স্মৃতি ভারাক্রান্ত বিষন্ন হৃদয়ে নির্বাক পথে …
পথচারির ছায়ার আচ্ছাদন হয়ে দাড়িয়ে আছি !!

নিশ্চয় খুঁজবে তারে ?

কিন্তু পাবে না তারে অসংখ্য স্মৃতির দুয়ার ভেঙে জাগ্রত করতে ,

যে নক্ষত্রকে দেখোনি কোনদিন , ভাবছো বুঝি সে কে ?
অবহেলায় সরায়ে দিয়েছো দূরে ……বহু দূরে ~~
পিপাসিত তৃষিত হৃদয় ভান্ডার পূর্ণ করে !
সমুদ্রের বালুচড়ে , গোধূলির সোনালী রঙে , নক্ষত্রের তলে ,
রাত্রির অন্ধকারে পাবে না খুঁজে তারে কোথাও পৃথিবীর …
আকাশে বাতাসে !
পৃথিবীর দন্ডিত অপরাধীর শাস্তির কোন শেষ নেই ।
সবটুকু জলে অবগহন করেও তুমি পাবে না তারে ,
প্রতিশ্রুতির অপমান সবাই কি সইতে পারে ?

ধনুপন বিশ্বাস আদায়ে নীল বিষের ছোয়ায় তারে ,
তুমি করেছো ব্যথায় নীল -নীলাভ আকাশ ,
খুঁজে তো পাবে না তারে তারার মেলায় !
বঞ্চিত তুমি পৃথিবীর ভালো বাসা থেকে ।
অরণ্য দূরে সরে যাবে , সমুদ্রে জলোচ্ছ্বাসে মৃত্যুর ছবি হয়ে ,
ভয় কি অশান্ত সমুদ্রে তো সুনামির পর শান্ত হয় …
শান্ত বারি ধারা বয়ে যায় ।
শান্ত প্রভাতে সূর্যের আলোতে তোমায় দেখবো শান্তির
শুভ্র পতাকা হাতে ,

আবার জাগবে জনপথ ,
আবার হবে কোলাহল ,
আবার হবে অরণ্য নিধন ,
আবার হবে হাজারো লীলাবতীর সর্বনাশ …