শহীদ শেখ কামালের ৭৪তম জন্মদিন উপলক্ষে মৌলভীবাজার জেলা আওয়ামী লীগের কর্মসূচি

প্রকাশিত: ৩:৪৩ অপরাহ্ণ, আগস্ট ৪, ২০২৩

শহীদ শেখ কামালের ৭৪তম জন্মদিন উপলক্ষে মৌলভীবাজার জেলা আওয়ামী লীগের কর্মসূচি

কপিল দেব:

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জ্যেষ্ঠ পুত্র বীরমুক্তিযোদ্ধা শহীদ শেখ কামালের ৭৪তম জন্মবার্ষিকী শনিবার। প্রতিবারের মতো এবারও মৌলভীবাজার জেলা আওয়ামী লীগ এবং সহযোগী সংগঠনসমূহ যথাযথ মর্যাদায় দিবসটি পালনের জন্য বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করেছে।

শুক্রবার (৪ঠা আগষ্ট) মৌলভীবাজার জেলা আওয়ামী লীগের উপ দপ্তর সম্পাদক এডভোকেট নিখিল রঞ্জন দাশ প্রেরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এই ঘোষণা দেওয়া হয়।

মৌলভীবাজার জেলা আওয়ামী লীগ পক্ষ থেকে মৌলভীবাজার জেলা প্রশাসক এর কার্যালয় প্রাঙ্গণে শনিবার (৫ আগষ্ট) সকাল ০৯.৩০ মিনিটে সমবেত হয়ে বীর মুক্তিযোদ্ধা শহীদ ক্যাপ্টেন শেখ কামাল এর প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হবে।

উক্ত কর্মসূচিতে মৌলভীবাজার জেলা আওয়ামী লীগের সকল কর্মকর্তা, সদস্য ও সহযোগী সংগঠনের সকল নেতাকর্মীদের উপস্থিত থাকার জন্য মৌলভীবাজার জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি নেছার আহমদ এম পি ও সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব মিছবাহুর রহমান বিশেষ অনুরোধ করছেন।

উল্লেখ” ১৯৪৯ সালের ৫ আগস্ট তিনি গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় জন্মগ্রহণ করেন। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্টের কালরাতে মাত্র ২৬ বছর বয়সে পরিবারের অন্য সদস্যদের সঙ্গে তাকেও ঘাতকরা হত্যা করে।

শহীদ শেখ কামাল শাহীন স্কুল থেকে মাধ্যমিক ও ঢাকা কলেজ থেকে উচ্চ মাধ্যমিক পাস করার পর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান বিভাগ থেকে স্নাতক (সম্মান) পাস করেন। তিনি ছায়ানটের সেতারবাদন বিভাগেরও ছাত্র ছিলেন। শেখ কামাল বন্ধু শিল্পীদের নিয়ে গড়ে তুলেছিলেন ‘স্পন্দন শিল্পীগোষ্ঠী’। ব্যক্তিজীবনে তিনি শিল্প-সংস্কৃতির পাশাপাশি ফুটবল, ক্রিকেট, হকি, বাস্কেটবলসহ বিভিন্ন খেলাধুলায় উৎসাহী ছিলেন। তিনি ছিলেন আবাহনী ক্রীড়া চক্রের প্রতিষ্ঠাতা।

১৯৭৫ সালের ১৪ জুলাই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘ব্লু’ খ্যাতিপ্রাপ্ত দেশবরেণ্য অ্যাথলেট সুলতানা খুকুর সঙ্গে তার বিয়ে হয়। ছাত্রলীগের একজন নিবেদিত, সংগ্রামী ও আদর্শবাদী কর্মী হিসেবে ’৬৯-এর গণঅভ্যুত্থান ও একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধে বীরত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন শেখ কামাল। তিনি স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম ওয়ার কোর্সে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত হয়ে মুক্তিবাহিনীতে কমিশন লাভ করেন ও মুক্তিযুদ্ধের প্রধান সেনাপতি জেনারেল ওসমানীর এডিসি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

স্বাধীনতার পর শেখ কামাল সেনাবাহিনী থেকে অব্যাহতি নিয়ে পুনরায় লেখাপড়ায় মনোনিবেশ করেন। তিনি বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের সদস্য এবং পরে বাংলাদেশ কৃষক শ্রমিক আওয়ামী লীগের অঙ্গসংগঠন জাতীয় ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ছিলেন। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট শাহাদাতবরণের সময় তিনি সমাজবিজ্ঞান বিভাগের এমএ শেষ পর্বের পরীক্ষা দিয়েছিলেন।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

লাইভ রেডিও

Calendar

April 2024
S M T W T F S
 123456
78910111213
14151617181920
21222324252627
282930