শাহজালাল জামেয়া পাঠানটুলায় দাখিল পরীক্ষার্থীদের বিদায়ী স্মারক “উদ্ভাস” এর মোড়ক উন্মোচন সম্পন্ন

প্রকাশিত: ৬:১৭ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ২৯, ২০১৬

শাহজালাল জামেয়া পাঠানটুলায় দাখিল পরীক্ষার্থীদের বিদায়ী স্মারক “উদ্ভাস” এর মোড়ক উন্মোচন সম্পন্ন

এসবিএন নিউজ, মো. ইসমাইল হোসেইন: বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ, লেখক, গবেষক অধ্যাপক সৈয়দ একরামুল হক বলেছেন সকল হতাশা, হীনমন্যতা এবং সংকীর্ণতা পরিহার করে মাদরাসার ছাত্র-ছাত্রীদেরকে আধুনিক জ্ঞান-বিজ্ঞান এবং নৈতিকতার সমন্বিত গুণাবলীতে সজ্জিত হতে হবে।

তিনি বৃহস্পতিবার শাহজালাল জামেয়া ইসলামিয়া কামিল মাদরাসা পাঠানটুলা, সিলেট এর ২০১৬ সালের দাখিল পরিক্ষার্থীদের বিদায়ী স্মারক “উদ্ভাস” এর মোড়ক উন্মোচন এবং দোয়া মাহফিলে প্রধান অতিথি হিসেবে আলোচনা রাখতে গিয়ে উপরোক্ত কথা বলেন।

তিনি আরো বলেন বর্তমান সমাজ অজ্ঞতা এবং কুসংস্কারে অন্ধকারে নিমজ্জিত। এ সমাজকে অন্ধকার থেকে আলোর পথে নিয়ে আসার জন্য মাদরাসার শিক্ষার্থীদেরকেই অগ্রণী ভূমিকা পালন করতে হবে। এজন্য প্রয়োজন জ্ঞান অর্জনের পথে অব্যাহত সাধনা, অনবরত প্রচেষ্টা এবং নৈতিকতা ও মানবিক মূল্যবোধের পরিপূর্ণ বিকাশ।

জামেয়ার অধ্যক্ষ মাও. মো. লুৎফুর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ দি সিলেট ইসলামিক সোসাইটির সেক্রেটারি জনাব আব্দুশ শাকুর, প্রখ্যাত আলেমে দ্বীন শায়খুল হাদীস মাও. ইসহাক আল-মাদানী।

দাখিল পরীক্ষার্থী মো. তরিকুল ইসলাম এবং হাবিবুল্লাহ শিকদার এর পরিচালনায় অনুষ্ঠানে শিক্ষকদের পক্ষ থেকে বক্তব্য রাখেন মুহাদ্দিস মাও. হাবীবুল্লাহ, সহকারী অধ্যাপক এবং তামাদ্দুনিক কমিটির আহবায়ক মাও. আব্দুন নুর, সিনিয়র শিক্ষক মাও. মো. আলী হায়দার, শ্রেনী শিক্ষক জনাব আব্দুল মোতালেব ইবনে কাবেদ, মাও. শাব্বীর আহমদ প্রমুখ।

অনুষ্ঠানের প্রারম্ভে কালামে হাকীম থেকে তেলাওয়াত করে হাফিজ উসামা তালুকদার, ইসলামী সংগীত পরিবেশন করে মো. আবু জর খাঁন।

ছাত্রদের পক্ষ থেকে বক্তব্য রাখেন হাফিজ ইয়াহইয়া আহমদ এবং মোহাম্মদ আমীর হোসাইন।

এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন আরবী প্রভাষক মাও. মাহবুবুর রহমান নোমানী, বায়োলজী প্রভাষক ফারুক মিয়া, মাও. তাজুল ইসলাম, গিয়াস উদ্দিন, মাও. আমীনুল ইসলাম প্রমুখ।

অনুষ্ঠানের শেষ পর্যায়ে প্রধান অতিথি সবাইকে নিয়ে “উদ্ভাস” এর মোড়ক উন্মোচন করেন।

পরিশেষে পরীক্ষার্থীদের সাফল্য এবং জামেয়ার উত্তোরোত্তর সমৃদ্ধি কামনা করে মহান রাব্বুল আলামীনের দরবারে হাত তুলে মোনাজাত পরিচালনা করেন শায়খ ইসহাক আল-মাদানী।