শিরিন ওসমানের পাঁচটি পদ্য

প্রকাশিত: ৭:৫৭ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ১৬, ২০২১

শিরিন ওসমানের পাঁচটি পদ্য

 

অহংকার
একদিন আমারো দিন ছিলো
ভরা জোৎস্নায় আমিও সাঁতার কাটতাম
একদিন আমারো দিন ছিলো
ভরা যৌবনে দু’পাশ মাড়িয়ে যেতাম
ওরা বিস্ময় ভরা চোখে চেয়ে দেখতো,
আর আমি ;
ঘাড় ঘুরিয়ে অহংকারি চোখে দেখে নিতাম।
তারপর
সোজা চলে যেতাম ওই স্বর্ণ মন্দিরে।

অনার্য আমি
সারাদিন বিলের কাদায় মাছ ধরেছি আমি
চেহারায় আর্য হলেও
মাটির গন্ধ কৈবর্তর মত জানি।

জেলে মাঝি
জেলে জানে সঠিক কোরিওগ্রাফ
সপাত্ করে আছড়ে ফেলে জাল
ঝাঁকে ঝাঁকে ইলিশ দেয় ফাল
জেলে দেখে তাদের মৃত্যুকাল।
পেশী তার ওমনি জেগে ওঠে
ভাবে মাঝি, মেঘনা আমার বশে
হেইয়োঁ বলে জেলের নৌকা চলে
মেঘনা তখন উথাল পাথাল করে।

আনমনা
তুমি যেদিন দিলে খোঁপায় গোলাপ
কাঁটা ছিলো লুকিয়ে গোলাপ ডাঁটায়
আহ্লাদিত হাত চলে যায় খোঁপায়
রক্ত ঝরে নরম আঙুল ডগায়।
সেদিন ছিলো জোৎস্না ভরা রাত
জানি তোমার অন্য কোথাও মন
বেহিসাবি তোমার মনের মাঝে
চাইনি জানতে সে ছিলো কোন জন।

মৃত্তিকা
রহে নারী মাতৃরূপে অন্নপূর্ণা হয়ে
পথিক দাঁডায় দ্বারে ,
বলে মা, অন্নজল হবে ?
আহা! এ শুধু নারীকেই মানায়
অন্নপূর্ণা মাতৃরূপে এই মৃত্তিকা’পরে।