শিলাইদহকে আকর্ষণীয় করতে সব ধরনের প্রচেষ্টা রয়েছে : অর্থমন্ত্রী

প্রকাশিত: ৯:৫৩ পূর্বাহ্ণ, মে ৯, ২০১৮

শিলাইদহকে আকর্ষণীয় করতে সব ধরনের প্রচেষ্টা রয়েছে : অর্থমন্ত্রী

বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথের স্মৃতিবিজড়িত শিলাইদহকে আকর্ষণীয় করতে সরকারের সব ধরনের প্রচেষ্টা রয়েছে।
অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত বলেছেন,কবিগুরু এখানে ১০ বছর কাটিয়েছেন , এজন্যই শিলাইদহের গুরুত্বও বেশি। অর্থমন্ত্রী মঙ্গলবার বিকেল সাড়ে ৩টায় কুষ্টিয়ার কুমারখালীর শিলাইদহস্থ কুঠিবাড়ী প্রাঙ্গণে বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ১৫৭ তম জন্মজয়ন্তী উপলক্ষ্যে আয়োজিত তিন দিনব্যাপী অনুষ্ঠানমালার উদ্ধোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এ কথা বলেন।
সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের সহযোগিতায় কুষ্টিয়ার জেলা প্রশাসন এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছে।
সংস্কৃতি মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূরের সভাপতিত্বে এ অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু।
তথ্যমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকা। আর বন্দরনগরী হচ্ছে চট্রগ্রাম, সে-দৃষ্টি থেকে কুষ্টিয়া হবে সাংস্কৃতিক রাজধানী।
সভাপতির বক্তৃতায় সংস্কৃতি মন্ত্রী বলেন, পর্যটন কেন্দ্রের ধারণা সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের সাথে সম্পৃক্ত। তাই শিলাইদকে একটি পূর্ণাঙ্গ সাংস্কৃতিক কেন্দ্র হিসেবে গড়ে তোলার জন্য বর্তমান সরকার খুবই আন্তরিক।
অন্যান্যের মধ্যে কুষ্টিয়া-৪ আসনের সংসদ সদস্য আব্দুর রউফ, সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ে সচিব নাসির উদ্দিন ও জেলা প্রশাসক মো. জহির রায়হান অনুষ্ঠানে বক্তৃতা করেন। এছাড়াও রবীন্দ্রনাথের জীবনাদর্শ ও সাহিত্য কর্ম নিয়ে স্মারক বক্তৃতা প্রদান করেন কুষ্টিয়া ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. আবুল আহসান চৌধুরী।
আলোচনা শেষে কুষ্টিয়া শিল্পকলা একাডেমির উদ্যোগে রবীন্দ্রসংগীত ‘আজি শুভ দিনে পিতারও ভুবনে অমৃত সদনে চলো যাই’ পরিবেশনার মধ্যদিয়ে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের সুচনা করা হয়। এরআগে শিলাইদহে গীতাঞ্জলী বিশ্রামাগারের সামনে নির্মিত ডায়াসে তিন মন্ত্রীকে কুষ্টিয়া জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে গার্ড অব অনার প্রদান করা হয়।