শুভ্রা নীলাঞ্জনা ও তাঁর গুচ্ছ কবিতা

প্রকাশিত: ৯:২০ পূর্বাহ্ণ, মে ১৬, ২০২২

শুভ্রা নীলাঞ্জনা ও তাঁর গুচ্ছ কবিতা

 

যখন বৃষ্টি নামে //
বৃষ্টি এলেই তোমার কথা হুড়মুড়িয়ে মনে পড়ে !
টিনের চালে গাছের ডালে ফোঁটায় ফোঁটায় বৃষ্টি ঝড়ে ।
বৃষ্টি এলে উঠোন জুড়ে
জল থইথই করে ।
সেই নদীতে ভাসিয়ে দেই পানসী নৌকু গড়ে।
মন পবনের নাও উড়িয়ে গেলেম তোমার কাছে ।
এক ভুবনের সুখের আলো আছে তোমার মাঝে ।
টাপুর টুপুর বৃষ্টি ঝরে
মন উদাসী করে ।
বৃষ্টি এলেই হুড়মুড়িয়ে
তোমায় মনে পড়ে //

 

 

 

খোঁজ না তাকে //
যে তোমাকে হারিয়ে যেতে দিয়েছে
তুমি ও তাকে হারাতে দাও অনায়াসে !
অকারণে ব্যাস্ত জনারণ্যে , শপিংমলে লঞ্চঘাটে অগণিত মানুষের ভিড়ে খোঁজো না তাকে মনে মনে !
হঠাৎ করে থমকে যেওনা অপরিচিত কাউকে দেখে খুব পরিচিত মনে করে !
গন্তব্যে যেতে যেতে
পৃথিবীর স্টেশনে
দেখা হবে অনেকের সাথে
কেউ নেমে যাবে মাঝপথে কেউ তোমাকে হৃদয়ে পুরে
নিয়ে যাবে অচিনপুরে ।
১/৫/২২

 

 

 

খুনি//
বিষাদে ছেয়ে আছে মন
জেনে গেছি আমি ,
খুব গোপনে শান দিচ্ছ
ভালোবাসার ছুড়িতে
খুন করে পালাবে বলে !
আমার অপরাধ
খুব মন দিয়ে ভালোবাসি সব কিছু ভুলে ,
তোমাকেও মনোযোগী হতে বলি আমার মত করে !

 

 

মানুষ//
প্রিয়তোষ ,
তুমি চলে যাওয়ার পর
অনেকবার তোমার চৌকাঠ ডিংগোতে চেয়েছি !
শূন্যস্থান কখনো শূন্য থাকেনা ভেবে পূর্ণ করতে চেয়েছি বারংবার সমস্ত দ্বিধা অতিক্রম করে
ঠিক আমার মনের মত
শুদ্ধ পুরুষ খুঁজতে খুঁজতে শরীরে শ্যাওলা জমে গেছে !
সব তোমার মত মুদ্রার এপিঠ আর ওপিঠ !
এখন আর পুরুষ খুঁজিনা
তীব্র জনারণ্যে অগণিত ভিড়ের ভিতর মানুষ খুঁজি !
আমাকে আস্টেপৃষ্টে জড়িয়ে না থাকুক
পায়ের পাতা থেকে মাথার চুল অব্দি রন্ধ্রে রন্ধ্রে ভালো না বাসুক
স্বস্তি তো দিতে পারবে বটের ছায়ার মত করে
মুখোমুখি বসে দু ‘ দন্ড শান্তি তো দিতে পারবে বনলতা সেনের মত করে !
১৬/৪/২২/

 

 

প্রস্থান //
একদিন আমাদের দেখা হবে ,না চেনার ভান করে চলে যাব দুজন দুদিকে !,
কেউ কখনো জানবেনা
একদিন আমাদের পরিচয় ছিল !
গোপন একটা প্রেম ছিল সমুদ্রের মত গভীর!
ভালোবাসা ছিল অবিরাম বৃষ্টির মত
আমাদের ভিজিয়ে দিত
সময় অসময়ে !
আমাদের ভিতর অংগীকার হয়েছিল শত ভুলেও আমরা পরস্পরেরকে জড়িয়ে থাকব !
একদিন তুমি উল্টো পথে হারিয়ে গেলে !
যে নিজ থেকে হারিয়ে যায় তাকে আমি
খুঁজতে যাইনা কখনো !
১১/৩/২২