সাঙ্গ হয়েছে অমর একুশে বইমেলা

প্রকাশিত: ২:০৯ পূর্বাহ্ণ, মার্চ ১, ২০২০

সাঙ্গ হয়েছে অমর একুশে বইমেলা

সাঙ্গ হয়েছে অমর একুশে বইমেলা । এক মাস ধরে বইপ্রেমীদের মনের খোরাক যুগিয়ে শেষ হলো বাংলা একাডেমির আয়োজন । বইকে ঘিরে পাঠক, লেখক ও প্রকাশকদের এই প্রাণের স্পন্দন মিলবে আবার ১১ মাস পর।

শনিবার মেলার সমাপনী দিন শুরু হয় সকাল ১১টায়, চলে রাত ৯টা পর্যন্ত। শেষদিনের পুরো সময় বইমেলার বাংলা একাডেমি ও সোহরাওয়ার্দী উদ্যান অংশে ছিল বইপ্রেমীদের উপচে পড়া ভিড়। শেষদিনে বিক্রি নিয়ে সন্তুষ্টির কথাও জানিয়েছেন প্রকাশকরা।

সন্ধ্যায় সমাপনী অনুষ্ঠানে মেলার মাসব্যাপী প্রতিবেদন উপস্থাপন করেন মেলা কমিটির সদস্য সচিব জালাল আহমেদ। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ। শুভেচ্ছা বক্তব্য দেন সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব আবদুল মান্নান ইলিয়াস।

আরও বক্তব্য দেন বাংলাদেশ জ্ঞান ও সৃজনশীল প্রকাশক সমিতির সভাপতি ফরিদ আহমেদ, স্থপতি এনামুল করিম নির্ঝর, বিকাশ লিমিটেডের সিএমও মীর নওবত আলী এবং ক্রসওয়াক কমিউনিকেশনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এম এ মারুফ।
সমাপনী অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বাংলা একাডেমির সভাপতি জাতীয় অধ্যাপক আনিসুজ্জামান। স্বাগত ভাষণ দেন একাডেমির মহাপরিচালক হাবীবুল্লাহ সিরাজী।

মেলার প্রতিবেদনে জালাল আহমেদ জানান, এবছর মেলায় ২৮ দিনে মোট নতুন বই এসেছে চার হাজার ৯১৯টি। গতবার ছিল চার হাজার ৮৩৪টি।

নতুন প্রকাশিত এসব বইয়ের মধ্যে গল্পগ্রন্থ ৬৪৪টি, উপন্যাস ৭৩১টি, প্রবন্ধগ্রন্থ ২৭১টি, কবিতাগ্রন্থ এক হাজার ৫৮৫টি, গবেষণাগ্রন্থ ১১২টি, ছড়ার বই ১১১টি, শিশুতোষ গ্রন্থ ২০৩টি, জীবনীগ্রন্থ ১৪৯টি, রচনাবলী ৮টি, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক গ্রন্থ ১৫২টি, নাটক ৩৪টি, বিজ্ঞান বিষয়ক গ্রন্থ ৮৩টি, ভ্রমণ কাহিনী ৮২টি, ইতিহাসমূলক গ্রন্থ ৯৬টি, রাজনীতি বিষয়ক গ্রন্থ ১৩টি, চিকিৎসা-স্বাস্থ্য সংক্রান্ত গ্রন্থ ৩৬টি, বঙ্গবন্ধু বিষয়ক গ্রন্থ ১৪৪টি, রম্য বা ধাঁধা বিষয়ক ৪০টি, ধর্মীয় গ্রন্থ ২০টি, অনুবাদ গ্রন্থ ৫৬টি, অভিধান বিষয়ক ১৪টি, সায়েন্স ফিকশন/গোয়েন্দা কাহিনী ৬৭টি এবং অন্যান্য ২৬৮টি।

তবে গতবারের তুলনায় এবার ৮৫টি বেশি নতুন বই প্রকাশ পেলেও মানসম্মত বইয়ের সংখ্যা কমেছে। এবার নতুন প্রকাশিত বইগুলোর মধ্যে মানসম্মত বই ৭৫১টি, গতবার ছিল ১১৫০টি।

এ বিষয়ে জালাল আহমেদ সমাপনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত অতিথিদের দৃষ্টি আকর্ষণ করে বলেন, “এই বিষয়ে আশা করি নিশ্চয়ই আমরা ভেবে দেখব।”

মেলায় বই বিক্রির তথ্য গতবছরের সাথে তুলনা করে তিনি বলেন, গতবার ৩০ দিনে বাংলা একাডেমি মোট দুই কোটি ৩৩ লাখ টাকার বই বিক্রি করেছিল। এবার ২ থেকে ২৮ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত ২৭ দিনে বাংলা একাডেমি দুই কোটি ২৮ লাখ টাকার বই বিক্রি করেছে। শনিবারের বিক্রিসহ মোট বিক্রি কমপক্ষে দুই কোটি ৪০ লাখ টাকা।

“গতবারের সমগ্র মেলায় ৭৭ কোটি ৫০ লাখ টাকার বই বিক্রি হয়েছিল। গতবার পূর্বের বছরের চেয়ে ১০ শতাংশ বেশি বই বিক্রি হয়েছিল। এবার ২৮ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত স্টল মালিকদের কাছ থেকে প্রাপ্ত তথ্য এবং আজকের সম্ভাব্য বিক্রি যুক্ত করলে বলা যায় যে, ২০১৯ সালের মোট বিক্রির চেয়ে অন্তত ৫ শতাংশ বেশি বিক্রি হয়েছে। ১৪ ও ২১ ফেব্রুয়ারি শুক্রবার হওয়ায় বিক্রি কম হয়েছে বলে অনুমান করা হয়। সুতরাং ৫ শতাংশ বৃদ্ধি বিবেচনা করলে এবার কমপক্ষে ৮২ কোটি টাকার বই বিক্রি হয়েছে।”

এবার বইমেলায় বাংলা একাডেমির নীতিমালা ভঙ্গের কারণে শেষের দিকে দুইটি স্টল বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে এবং ২২টি স্টলকে সতর্ক করা হয় বলেও জানান তিনি।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ বলেন, “আপনারা সকলেই জানেন অমর একুশে গ্রন্থমেলা ২০২০ বঙ্গবন্ধুকে উৎসর্গ করা হয়েছিল। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবর্ষে ঘোষিত মুজিববর্ষে তাকে উৎসর্গ করে আয়োজন করা এই গ্রন্থমেলা ছিল তাকে উৎসর্গিত এখন পর্যন্ত সবচেয়ে বড় বুদ্ধিবৃত্তিক ও সাংস্কৃতিক আয়োজন। কারণ অমর একুশে গ্রন্থমেলা বিশ্বের দীর্ঘসময়ব্যাপ্ত জ্ঞানের মেলা হিসেবে স্বীকৃত।”

স্বাগত ভাষণে হাবীবুল্লাহ সিরাজী বলেন, “আমরা আমাদের এবারের সীমাবদ্ধতা ও ঘাটতি পর্যালোচনা করে আগামীর আয়োজন আরও সার্থক ও সুন্দর করতে সচেষ্ট থাকব এবং সে প্রচেষ্টায় নিশ্চয়ই আপনাদের সবাইকে সাথে পাব।”

সভাপতির বক্তব্যে জাতীয় অধ্যাপক আনিসুজ্জামান বলেন, “একুশে গ্রন্থমেলায় মানুষের মাঝে বই নিয়ে যে আগ্রহ দেখা গেছে তাতে প্রমাণ হয় প্রযুক্তির ব্যাপক বিকাশেও মুদ্রিত বইয়ের গুরুত্ব কিছুমাত্র হ্রাস পায়নি।”

রাত সাড়ে ৮টার দিকে স্বাধীনতাস্তম্ভ সংলগ্ন মঞ্চে সাংস্কৃতিক আয়োজন করা হয়। সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে আবৃত্তি পরিবেশন করেন আবৃত্তিশিল্পী রূপা চক্রবর্তী এবং হাসান আরিফ। রবীন্দ্রসংগীত পরিবেশন করেন শিল্পী রেজওয়ানা চৌধুরী বন্যা এবং নজরুলগীতি পরিবেশন করেন খায়রুল আনাম শাকিল। সবশেষে ছিল লেজার শো।

ছড়িয়ে দিন

Calendar

December 2021
S M T W T F S
 1234
567891011
12131415161718
19202122232425
262728293031