সিলেটে নৌকা ও ধানের শীষের মধ্যে শক্ত লড়াই

প্রকাশিত: ৯:৩৮ অপরাহ্ণ, জুলাই ৩০, ২০১৮

সিলেটে নৌকা ও ধানের শীষের মধ্যে শক্ত লড়াই

সিলেট সিটি করপোরেশন নির্বাচনের প্রাথমিক ফলাফলে নৌকা ও ধানের শীষের মধ্যে শক্ত লড়াই বোঝা যাচ্ছে ।সেখানে ভোটগ্রহণ শেষে ভোট গণনা চলছে ।

বরিশাল ও রাজশাহীর সঙ্গে সোমবার সিলেট সিটির ১৩৪টি কেন্দ্রে একযোগে ভোটগ্রহণ হয়। বিকাল ৪টায় ভোটগ্রহণ শেষ হওয়ার পর কেন্দ্রে কেন্দ্রে চলছে গণনা।

নগরীর উপশহরে আবুল মাল আবদুল মুহিত ক্রীড়া কমপ্লেক্সে স্থাপিত রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয় থেকে ফল ঘোষণা করছেন রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. আলীমুজ্জামান।

রাত সোয়া ৯টা পর্যন্ত ৫৩টি কেন্দ্রের ফল ঘোষণা হয়। তাতে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের প্রার্থী বদর উদ্দিন আহমদ কামরান সামান্য ব্যবধানে এগিয়ে রয়েছেন।

নৌকা প্রতীকে কামরান পেয়েছেন ৩৪ হাজার ৪৯৬ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির আরিফুল হক চৌধুরী ধানের শীষ প্রতীকে পেয়েছেন ৩৪ হাজার ২৫২ ভোট।

ভোটগ্রহণ শেষ হওয়ার পরপরই অনিয়মের অভিযোগ তুলে নির্বাচন প্রত্যাখ্যান করেন বিদায়ী মেয়র আরিফুল হক । তিনি বলেন, ফল যাই হোক না কেন, তিনি তা প্রত্যাখ্যান করছেন।

তবে ফল ঘোষণার কেন্দ্রে উপস্থিত হয়েছেন আরিফুল । রাত ৯টায়ও সেখানে ছিলেন তিনি।

সিলেট দুটি কেন্দ্রে ইভিএমে ভোটগ্রহণ হয়। তাতে আরিফুল হক তার প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী কামরানের চেয়ে ৭৪২ ভোটে এগিয়ে ছিলেন।

সিলেটে মোট ভোটার ৩ লাখ ২১ হাজার ৭৩২ জন। এর মধ্যে পুরুষ ১ লাখ ৭১ হাজার ৪৪৪ জন এবং নারী ১ লাখ ৫০ হাজার ২৮৮ জন।

একজন মেয়র, ২৭ জন ওয়ার্ড কাউন্সিলর এবং ৯ জন নারী কাউন্সিলর নির্বাচনে ভোট দেন ভোটাররা।

সিলেট সিটি কর্পোরেশনের যাত্রা শুরু হয় ২০০২ সালে।

২০১৩ সালে অনুষ্ঠিত নির্বাচনে আওয়ামী লীগের কামরানকে প্রায় ৩৫ হাজার ভোটের ব্যবধানে হারিয়ে মেয়র হন বিএনপির আরিফুল হক চৌধুরী। সেবার ভোট পড়েছিল ৬২%।

২০০৮ সালে ভোটে জিতে কামরান মেয়র নির্বাচিত হয়ে পরের বার হেরেছিলেন। এবার নিয়ে টানা তিনবার প্রতিদ্বন্দ্বিতা করলেন তিনি।