সিলেটে বিশাল প্রতিবাদ সমাবেশে বক্তারা সাব রেজিস্ট্রার কার্যালয়ে হামলাকারীদের শাস্তি না দিলে কঠোর আন্দোলন

প্রকাশিত: ১:০৫ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ২৯, ২০১৬

সিলেটে বিশাল প্রতিবাদ সমাবেশে বক্তারা সাব রেজিস্ট্রার কার্যালয়ে হামলাকারীদের শাস্তি না দিলে কঠোর আন্দোলন

এসবিএন: সিলেট সাব রেজিস্ট্রার কার্যালয়ে হামলাকারীদের শাস্তি না দিলে কঠোর আন্দোলনের হুমকি দিয়েছেন দলিল লেখকরা।

সোমবার দুপুরে সিলেটের ঐতিহাসিক রেজিস্ট্রারী মাঠে আয়োজিত বিশাল প্রতিবাদ সমাবেশে তারা এ হুমকি দেন। এ সময় বক্তারা বলেন, সিলেট জেলা রেজিস্ট্রার কিংবা সাব রেজিস্ট্রার কার্যালয় প্রশাসনিক দপ্তর।

অত্যন্ত স্পর্শকাতর দপ্তর হলেও হামলার ঘটনার ১২ দিন পেরিয়ে গেলেও কোনো কাউকে আইনের আওতায় না আনা দু:খজনক। এতে সাব রেজিস্ট্রার কার্যালয়ে নির্বিঘেœ দাপ্তরিক কার্যক্রম সম্পাদন ব্যহত হচ্ছে।

সিলেট সদর দলিল লেখক সমিতির সভাপতি হাজী মাহমুদ আলীর সভাপতিত্বে ও সাধারন সম্পাদক মঈনুল ইসলাম খান সায়েকের পরিচালনায় প্রতিবাদ সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে দলিল লেখক সমিতির কেন্দ্রীয় সহ সভাপতি ও সিলেট বিভাগীয় সভাপতি প্রদীপ পাল নিতাই বলেন, হাইকোর্টের সাম্প্রতিক রায়ে রয়েছে দলিল লেখকরা ছাড়া আর কেউ দলিলে মুসাবিদা কিংবা দলিল সম্পাদন করতে পারবেন না।

কিন্তু সিলেটে আইনজীবি সহকারীরা এসে জোরপূর্বক দলিল সম্পাদনের চেষ্টা চালায়। আর বিষয়টি বেআইনী হওয়ায় সাব রেজিস্ট্রার প্রভাকর সাহা ও অফিস সহকারী আব্দুর রব সেটি ফিরিয়ে দিলে তার সঙ্গে অসদাচরন ছাড়াও সাব রেজিস্ট্রার কার্যালয়ে হামলা চালায় আইজীবি সহকারীরা।

দলিল লেখক সমিতির সিলেট জেলার সাধারন সম্পাদক ও কেন্দ্রীয় নেতা ফরিদুর রহমান অভিযোগ করেন, দলিল সম্পাদনে ব্যর্থ হয়ে আইনজীবি সহকারীরা এখন অপপ্রচার রটাচ্ছে।

বর্তমান সরকারের উদ্যোগের ফলে যেখানে দুর্নীতি কমছে সেখানে মিথ্যা দুর্নীতির অভিযোগ তুলে পরিস্থিতি ঘোলাটে করে তোলার অপচেষ্টা চালাচ্ছে। তিনি বলেন, সাব রেজিস্ট্রার কার্যালয়ে হামলা কোনোভাবে সহ্য করার নয়। এ ব্যপারে সচেতন সিলেটবাসীকেও সোচ্চার হওয়ার আহবান জানান তিনি।

সমাবেশে বিশেষ অতিথি ছিলেন, সিলেট জেলা দলিল লেখক সমিতির সভাপতি আজিজুর রহমান লাল মিয়া, সিলেট বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক এম ইকবাল হোসেন, সদরের সাবেক সভাপতি সুলতান মিয়া বাদশা, আ কা ম রফিকুজ্জামান, সদরের সাবেক আহবায়ক হাজী কুতুব উদ্দিন, দক্ষিন সুরমা দলিল লেখক সমিতির সভাপতি ফজলুর রহমার ফয়েজ, সদরের সহ-সভাপতি মুহিবুর রহমান জিলু, সাবেক সহ সভাপতি দারা মিয়া, সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক হাজী শেখ লোকমান মিয়া, ফয়সল আহমদ, অজিত কুমার দাশ, কবির আলী গাজী মাইজভান্ডারী, সদরের সহ সাধারন সম্পাদক শামসুল ইসলাম আনা, সাংগঠনিক সম্পাদক ইউসূফ আহমদ, সাবেক অর্থসম্পাদক দিলোয়ার হোসেন, অর্থ সম্পাদক আব্দুর রহিম, প্রচার সম্পাদক মাহবুবুর রহমান এরশাদ, আবুল হাসনাত, আব্দুল মুকিত-২, হারুনুর রশীদ, আলাউদ্দিন, মিসবাহ উদ্দিন-১, আজহার আলম ইমন, হেলাল উদ্দিন, শাবুল মিয়া, জালাল উদ্দিন, ওয়ারিস মিয়া, আজম আলী, দেলওয়ার হোসেন চৌধুরী, সদস্য শাহীন আহমদ, রাশেদুজ্জামান রাশেদ, সাদেক আহমদ, জাহাঙ্গীর হোসেন মান্না, ইকবাল আহমদ ইমন, সিরাজ উদ্দিন, আব্দুল মালিক মনু, গৌছ উদ্দিন, ফখর উদ্দিন, আলম মিয়া, আবু হায়দর, আব্দুর রহমান প্রমুখ। অনুষ্টানের শুরুতেই পবিত্র কোরআন থেকে তেলাওয়াত করেন দলিল লেখক মুকতাবিস উন-নূর।