সিলেট- ৩ আসনের আওয়ামী লীগের মনোনয়ন চান এহতেশামুল হক চৌধুরী

প্রকাশিত: ১১:০৯ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ১৬, ২০২১

সিলেট- ৩ আসনের আওয়ামী লীগের মনোনয়ন চান এহতেশামুল হক চৌধুরী

 

আহমেদ বকুল: সিলেট ৩ আসনের উপনির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন চান এহতেশামুল হক চৌধুরী দুলাল। দুলাল একজন স্বনামধন্য চিকিৎসক। দক্ষ স্মার্ট ও অমায়িক ব্যবহারের অধিকারী তিনি।
একজন দক্ষ সংগঠক হিসেবে তাঁর সুনাম রয়েছে সারাদেশব্যাপী।
সিলেট জেলার বালাগঞ্জ থানার এখ অভিজাত পরিবারে তার জন্ম। তার বড় ভাই  এনামুল হক চৌধুরী (বীর প্রতীক) ছিলেন এই আসনের সংসদ সদস্য।

দুলাল পারিবারিকভাবেই আওয়ামী লীগ রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত। তিনি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা বিষয়ক উপ-কমিটির সদস্য,বাংলাদেশ মেডিকেল এসোসিয়েশন এর মহাসচিব হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন ২০১৭ সাল থেকে এই অবধি। তিনি স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদ কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি হিসেবে ২০০৫ সাল থেকে এখন পর্যন্ত এই পদে অধিষ্ঠিত আছেন। তিনি সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন সম্মিলিত পেশাজীবী সংগ্রাম পরিষদ সিলেট , বাংলাদেশ ডায়াবেটিক এসোসিয়েশন ও হার্ট ফাউন্ডেশন সিলেটের সদস্য। এছাড়া তিনি যেসব পদে দায়িত্ব পালন করেছেন তার অংশবিশেষ এখানে তুলে ধরছি।

তিনি মহাসচিব বাংলাদেশ মেডিকেল এসোসিয়েশন ২০১৭ থেকে অদ্যাবধি দায়িত্বে অধিষ্ঠিত, স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা বিষয়ক উপ-কমিটির বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সদস্য, সহ সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদ কেন্দ্রীয় কমিটির (২০০৫ থেকে অদ্যাবধি), প্রকৌশলী কৃষিবিদ চিকিৎসক (প্রকৃচি) কেন্দ্রীয় স্টিয়ারিং কমিটি এর সদস্য সচিব, এছাড়া তিনি দায়িত্ব পালন করছেন সম্মিলিত পেশাজীবী সংগ্রাম পরিষদ সিলেটের সভাপতি হিসেবে, তিনি বাংলাদেশ ডায়াবেটিস অ্যাসোসিয়েশন ফর রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি সিলেটের সদস্য, তাছাড়া তিনি হার্ট ফাউন্ডেশন সিলেট এর কার্যকরী পরিষদের সদস্য হিসেবে বিভিন্ন সামাজিক কর্মকাণ্ডে অবদান রেখে যাচ্ছেন।

তিনি সাবেক সহ-সভাপতি বাংলাদেশ মেডিকেল এসোসিয়েশন কেন্দ্রীয় কমিটি ২০২১ -২০১৬,
সাবেক সাধারন সম্পাদক বাংলাদেশ মেডিকেল এসোসিয়েশন, সিলেট শাখা, (২ বার), সভাপতি স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদ, সিলেট শাখা, (ডিসেম্বর ১৯৯৯ -২০১৯),
প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক, স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদ, সিলেট শাখা(১৯৯৩-১৯৯৮),
বাংলাদেশ মেডিকেল এসোসিয়েশন সিলেট শাখা। এছাড়া তিনি কার্যকরী পরিষদ সদস্য বাংলাদেশ মেডিকেল এসোসিয়েশন সিলেট শাখা, (২বার), আহ্বায়ক (ভারপ্রাপ্ত) বাংলাদেশ ছাত্রলীগ, সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ শাখা (১৯৮১),
সদস্য, এমসি কলেজ ছাত্র সংসদ, সিলেট, ১৯৭৫।

ছাত্রজীবন থেকে রাজনৈতিক সংগঠন এর সাথে করে তাঁর সাংগঠনিক দক্ষতা অর্জন এর পাশাপাশি সংগঠন পরিচালনায় ও তিনি অভিজ্ঞতা অর্জন করেছেন।

কর্ম জীবনে এসেছে তিনি সুনামের সাথে চিকিৎসাসেবা প্রদান করেন।
তিনি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শ ও জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ৭৫ পরবর্তী স্বৈরাচারবিরোধী (১৯৯৬) এর ভোট ও ভাতের অধিকারের আন্দোলন, ২০০১ পরবর্তী আন্দোলন সহ সকল গণতান্ত্রিক আন্দোলনে সক্রিয় ভূমিকা পালন করেন।

১৯৭৮ সালে সিলেট মেডিকেল কলেজে জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল কর্তৃক দায়েরকৃত রাজনৈতিক মামলার তাঁকে প্রধান আসামি করা হয়।

এরশাদের গণবিরোধী স্বাস্থ্যনীতি বাতিল আন্দোলন ও নব্বইয়ের স্বৈরাচারবিরোধী গণঅভ্যুত্থানেও তিনি সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করেন ।
বিএনপি নেতৃত্বাধীন জোট সরকারের মেয়াদকালে মার্চ ২৯৯১ -১৯৯৬ এবং অক্টোবর ২০০১ থেকে (২০০৬) পর্যন্ত তিনি সরকারি চাকরিতে নিগৃহীত ছিলেন।

এক প্রশ্নের জবাবে দুলাল বলেন, আমার বেড়ে ওঠা একটি রাজনৈতিক পরিবার থেকে। আমার জৈষ্ঠ ভ্রাতা সাবেক সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা মরহুম এনামুল হক চৌধুরী
(বীর প্রতীক) । তিনি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ কর্তৃক মনোনীত হয়ে দ্বিতীয় জাতীয় সংসদ নির্বাচনে (১৯৭৯-৮২) ২২৮, সিলেট -৬ (বালাগঞ্জে ফেঞ্চুগঞ্জ) তৃতীয় জাতীয় সংসদ নির্বাচনে (১৯৮৬-৮৭) ২২৯, সিলেট -২ (বিশ্বনাথ- কোতোয়ালি থানার অংশ) থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন,
বড় ভাইয়ের পদাঙ্ক অনুসরণ করে আমার রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডের অভিযাত্রা। বিভিন্ন রাজনৈতিক ও সামাজিক কর্মকান্ড করতে গিয়ে মানুষের সমস্যা কাছে থেকে দেখার সুযোগ হয়েছে এবং তা সমাধানের জন্য ও কাজ করেছি নিরলসভাবে। এখনো করছি। বালাগঞ্জে -ফেন্সুগঞ্জ ও দক্ষিণ সুরমা নিয়ে গঠিত নির্বাচনী এলাকা -৩ থেকে আমি এবার বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী। জননেত্রী শেখ হাসিনা আমার কাজ সম্পর্কে সম্পূর্ণ অবহিত।
আমি আশাবাদী আওয়ামী লীগের সমর্থন এবং মনোনয়ন আমার পক্ষে থাকবে।

অন্য এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন-
সিলেট ৩ আসনের মনোনয়ন যদি পাই আর জনগণ আমাকে নির্বাচিত করে তাহলে সর্বপ্রথমে সাবেক এমপি জনাব মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরী কয়েসের অসমাপ্ত কাজগুলো সমাপ্ত করব।
তারপর নির্বাচনী এলাকার যে কাজগুলো অতীব জনগুরুত্বপূর্ণ তা চিহ্নিত করে ক্রমান্বয়ে তা বাস্তবায়নের চেষ্টা করব।

দুলাল তাঁর নির্বাচনী এলাকার জনসাধারণের অকুণ্ঠ সমর্থন চান। অতীতে তার ভাই বীর মুক্তিযোদ্ধা এনামুল হক চৌধুরী (বীর প্রতীক) যেভাবে মানুষের পাশে থেকে জনস্বার্থ মূলক কাজ করেছেন আমিও চেষ্টা করব আমার নির্বাচনী এলাকার মানুষের পাশে থেকে তাঁদের সুখ-দুঃখের অংশীদার হয়ে সমস্যাগুলোর সমাধান করার লোককে লক্ষে কাজ করব।

এহতেশাম উল হক চৌধুরী দুলাল বালাগঞ্জ থানার গহরপুর ইউনিয়নের সুলতানপুর গ্রামের বশিরুল হক চৌধুরীর সন্তান। তাঁর মাতা সাবেরা খানম চৌধুরী। তাঁর স্ত্রী তাহমিন ফারহানা চৌধুরী পেশায় একজন শিক্ষক। তিনি দুই পুত্র -কন্যার জনক। মেয়ে নুসরাত ফারহানা চৌধুরী পেশায় একজন চিকিৎসক, পুত্র আকিব ইহতেশাম চৌধুরী- পেশায় একজন প্রকৌশলী।