ঢাকা ১৪ই জুলাই ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ৩০শে আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ৮ই মহর্‌রম ১৪৪৬ হিজরি


সৌহার্দ্যের পুষ্পিত নির্যাস

redtimes.com,bd
প্রকাশিত সেপ্টেম্বর ১৭, ২০১৯, ১১:১৯ পূর্বাহ্ণ
সৌহার্দ্যের পুষ্পিত নির্যাস

সৌমিত্র দেব

সীতেশ ধর , আমেরিকা প্রবাসী একজন সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব । বয়সে কিছুটা সিনিয়র হলেও আমার বন্ধু । প্রায় ৩ দশক আগে আমরা একসঙ্গে মৌলভীবাজারের সাংস্কৃতিক অঙ্গণে কাজ করতাম । মনু থিয়েটারের সভাপতি আ স ম সালেহ সুহেল ,কৃষ্টির সাধারণ সম্পাদক সীতেশ ধর এবং সংস্কৃতি সংসদের সৌমিত্র দেব । আমাদের মধ্যে প্রতিযোগিতা ছিল। আবার গভীর বন্ধনও ছিল । আমাদের ৩ জনেরই অভিভাবক ছিলেন সে সময়ের পৌরসভা চেয়ারম্যান, পরবর্তীকালে সমাজকল্যাণ মন্ত্রী সৈয়দ মহসিন আলী । ডিভি লটারী পেয়ে ১৯৯৬ সালে সীতেশ জীবিকার প্রয়োজনে আমেরিকা চলে যান । ২০০৩ সালে আমি চলে যাই ঢাকা। আর সুহেল এখনো মৌলভীবাজারের সাংস্কৃতিক অঙ্গণকে ধরে রেখেছেন । মাঝখানে তিনি হুমায়ূন আহমেদের দূটো চলচ্চিত্রেও অভিনয় করেছেন । তিন জন এখন আমরা ৩ জায়গায় বাস করি । সঙ্গত কারণেই আমাদের যোগাযোগটা শিথিল হয়ে গেছে ।
২০০৫ সালে একটা সাহিত্য সম্মেলনে যোগ দিতে আমেরিকায় যাই । টেক্সাসের হিউস্টন শহরে । সম্মেলন শেষে মনে হলো নিউইয়র্ক না ঘুরলে আমেরিকা সফর সম্পূর্ণ হয় না । কিন্তু সেখানে কার কাছে যাবো। অনেক পরিচিত স্বজন নিউইয়র্ক আছেন । তাদের কারো ঠিকানা সঙ্গে নেই । তখনও ফেসবুক বা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম এতো জনপ্রিয় হয় নি । মনে পড়লো সীতেশ ধরের কথা । নিউইয়র্ক সিলেটি কমিউনিটি লীডার রানা ফেরদৌসের সঙ্গে ফোনালাপ করিয়ে দিলেন হিউস্টন থেকে আমার ফুপি সৈয়দা কুসুম কলি । খুব দ্রুতই সীতেশ ধরের ফোন পেলাম । আবেগের উত্তাপ স্পষ্ট । আমন্ত্রণে ঝরে পড়ছিল সৌহার্দ্যের পুষ্পিত নির্যাস । কিন্তু নিউইয়র্ক যাওয়ার ভাড়া তো অনেক । বাংলাদেশ এসোসিয়েশন অব হিউস্টন দর্শনীর বিনিময়ে আমার কবিতা পাঠের আয়োজন করলো। উঠে গেলো খরচ। আমার সফরসঙ্গী কবি নাসির আহমেদ । তিনি তখন জনকণ্ঠের সাহিত্য সম্পাদক। বর্তমানে বিটিভির বার্তা বিভাগে আছেন ।আমরা যেদিন যাত্রা করলাম প্রকৃতি খুব বিরূপ ছিল । আবহাওয়ার কারণে সেদিন দেরি করে পৌঁছে ছিলাম নিউইয়র্কের বিমানবন্দরে ।কিন্তু তবু সেখানে সব কাজ ফেলে অপেক্ষায় ছিলেন সীতেশ । টানা ১০ দিন ছিলাম তার সানিসাইটের বাসায় । সীতেশের স্ত্রী মুক্তা ধরও আপ্যায়নে এক বেনজির দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন ।
সেই সীতেশ ধর যখন বাংলাদেশে এবার অনেক বছর পর এলেন আমি ছুটে গেলাম মৌলভীবাজার । চারদিকে তার বিপুল সংবর্ধনা । আমিও অংশ নিলাম কয়েকটিতে । বিশেষ করে মনু থিয়েটারের সভাপতি আ স ম সালেহ সুহেল শিল্পকলায় আয়োজন করলেন এক আড্ডার। সেখানে উঠে এলো অনেক পুরনো দিনের কথা । আমরা দুজনেই এক সময় রোটার‍্যাক্ট ক্লাবের সঙ্গে যুক্ত ছিলাম । রোটার‍্যাক্ট ক্লাব অব মৌলভীবাজার সেন্ট্রালো আমাদের নিয়ে একটি অনুষ্ঠানের আয়োজন করে । আমাদের মায়া ছবি সমাজকল্যাণ সংস্থার এক অনুষ্ঠানেও অতিথি হলেন সীতেশ ধর । কিন্তু মন ভরছিল না। আবার আমার সময় ছিল কম । ভেবেছিলাম ঢাকায় তাকে নিয়ে একটা বড় অনুষ্ঠান করবো । প্রতিশ্রুতিও আদায় করেছিলাম তার কাছ থেকে ।


কিন্তু তিনি যখন ঢাকায় এলেন তখন তার হাতে সময় নেই ।তড়িঘড়ি একটা আড্ডার আয়োজন করলাম কবিতা ক্যাফেতে । নিমন্ত্রিতদের অনেকেই আসতে পারলেন না ।যারা কোন কিছু না জেনে না বুঝেই আমার ডাকে যারা সাড়া দিলেন, বুঝতে হবে আমার প্রতি তাদের গভীর আস্থা ও বিশ্বাস আছে ।একে একে এলেন সাবেক সমাজকল্যাণ মন্ত্রী সৈয়দ মহসিন আলীর কন্যা সৈয়দা সানজিদা শারমিন, সাংবাদিক আনহার সামসাদ,আইনজীবী বকশী জুবায়ের আহমেদ ও রোকসানা রোজি । অল্প কজন । কিন্তু জমে গেল আড্ডা । প্রাণবন্ত । সীতেশ ধর জানালেন,মৌলভীবাজারে তিনি সৈয়দ মহসিন আলীর পরিবারের সদস্যদের অনেক খুঁজেছেন । শেষ মুহূর্তে সৈয়দা সানজিদা শারমিনের সঙ্গে দেখা হওয়াটা তার পরম প্রাপ্তি । সৈয়দ মহসিন আলীর স্মারক গ্রন্থ প্রকাশে তিনি সহযোগিতা করবেন বলে জানান । মহসিন আলীর স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে সীতেশ বলেন, কিছু কিছু ঋণ আছে , যা কোন দিন শোধ করা যায় না ।সানজিদা শারমিন ও কিছুটা সময়ের জন্য আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েন । বাবার আদর্শকে লালন করে সামনে এগুতে চান তিনি । আড্ডার মধ্যেই প্রত্যয়দীপ্ত হয়ে জানান এ কথা ।

সংবাদটি শেয়ার করুন

July 2024
S M T W T F S
 123456
78910111213
14151617181920
21222324252627
28293031