হরিপুর সদর হাসপাতালে তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণী কর্মচারীর অভাবে চরম সংকটে-

প্রকাশিত: ১০:০৬ পূর্বাহ্ণ, মে ৮, ২০২২

হরিপুর সদর হাসপাতালে তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণী কর্মচারীর অভাবে চরম সংকটে-
হরিপুর (ঠাকুরগাঁও) প্রতিনিধিঃ
ঠাকুরগাঁও জেলায় হরিপুর উপজেলা সদর হাসপাতালে চিকিৎসা  কার্যক্রম  স্বাভাবিক থাকলেও তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণীর কর্মচারীর অভাবে অফিসিয়াল কার্যক্রম চলছে খুড়িয়ে খুড়িয়ে ।
পরিস্কার পরিছন্নতা কাজে সুইপার পদে পাচঁ জন লোকবল থাকার কথা থাকলেও আছে একজন। বেগতিক অবস্থা থেকে রেহাই পেতে  হাসপাতালের কর্তৃপক্ষের নিজস্ব অর্থায়নে দুই জন সুইপার পদে নিয়োগ দেওয়া হয়।  সুইপার সুব্রত চন্দ্র দাস সরকারি ভাবে নিয়োগ প্রাপ্ত হলেও তিনি অদৃশ্য শক্তির  ক্ষমতা বলে,ঠাকুরগাঁও বসে বেতন ভাতা উত্তোলন করেন এবং  নিজ দায়িত্ব অন্য জনের মাধ্যমে মাঝে মাঝে  করিয়ে নেন। এমনটাই দাবি করেছেন  স্থানীয় জনসাধারণ।
আরেক ক্ষমতা ধর ওয়াড বয়
আসাদুর রহমান নিজ কর্মস্থলে থেকে ডেপুটেশন নিয়ে অন্যত্র সুবিধাজনক স্থানে চাকুরী করছেন।
এদিকে আবার হাসপাতালে কর্মচারীর অভাবে প্রশাসনিক কাজের  টালমাটাল অবস্থা।
শূন্য পদে সংখ্যাঃ
( গাইনি ডাক্তার-০১)।
(স্টোরকিপার -১),( প্রধান সহকারী  কাম হিসাবরক্ষক-০১)
(ক্যাসিয়ার-০১),(প্রধান সহকারী- ০১),( ফার্মাসিস্ট- ০৩) , (পরিসংখ্যান বিদ -০১)(। মাঠকর্মী -০৭) (জুনিয়র মেকানিক-০১)।
(অফিস সহায়ক পদ -৫  ) (শূন্য পদ রয়েছে- ০৩)  দুই জনের একজন আবার  অসুস্থ।
হরিপুর সদর হাসপাতালের চলমান সমস্যা  সম্পর্কে  উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স কর্মকর্তা মোঃ মনিরুল হক কে জিজ্ঞেস করা হলে তিনি জানান, সুইপারের অভাবে পরিস্কার পরিছন্নতা অভাবে টয়লেট গুলো নোংরা দূর্গন্ধে ব্যবহার অনুপযোগী হওয়ায় নিজস্ব অর্থায়নে লোক নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। সুইপার সুব্রত চন্দ্র দাসের বিরুদ্ধে অভিযোগ  অনিয়মিত হাজির হয়ে বেতন ভাতা উত্তোলনের  বিষয় সম্পর্কে জিজ্ঞেস করা হলে তিনি জানান, কিছু টা সত্যি হলেও বিষয়টি খতিয়ে  দেখা হবে । দীর্ঘদিন ধরে তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণির পদে শূন্য রয়েছে, এই বিষয়টি উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষে অবহিত  করেছি।