হিন্দু মহাজোট সিলেট জেলার বিক্ষোভ সমাবেশ

প্রকাশিত: ৫:০৫ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ১৭, ২০১৭

হিন্দু মহাজোট সিলেট জেলার বিক্ষোভ সমাবেশ

রংপুরের ঠাকুরপাড়ায় ফেসবুকে ধর্ম অমাননার গুজব রুটিয়ে হিন্দু সম্প্রদায়ের বাড়িঘরে হামলা, ভাংচুর, লুটপাট ও অগ্নিসংযোগের প্রতিবাদে বাংলাদেশ জাতীয় হিন্দু মহাজোট সিলেট জেলার উদ্যোগে শুক্রবার সিলেট কেন্দ্রীয় শহিদমিনারে এক মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।


হিন্দু মহাজোট সিলেট বিভাগীয় সম্পাদক ও সিলেট জেলার আহ্বায়ক এডভোকেট মিলন ভট্টাচার্যের সভাপতিত্বে ও সদস্য সচিব সুজিত দাশের পরিচালনায় বিক্ষোভ কর্মসুচীতে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ জাতীয় হিন্দু মহাজোট’র কেন্দ্রীয় নেতা সুমন দে, সিলেট মহানগর শাখার সভাপতি এডভোকেট সুশীল চন্দ্র দাস, সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট গঙ্গেশ দাস, সিলেট জেলার যুগ্ম আহ্বায়ক গণেশ দেব, যুব মহাজোট জেলা শাখার সভাপতি এডভোকেট রঞ্জু দেবনাথ, ছাত্র মহাজোট সিলেট মহানগর শাখার সভাপতি রূপন দে, সাধারণ সম্পাদক অনু দেব, ছাতক উপজেলা মহাজোটের সাংগঠনিক সম্পাদক অশিত কুমার দাস, ছাতক যুব মহাজোটের সাধারণ সম্পাদক রঞ্জন কুমার দাস। এসময় উপস্থিত ছিলেন মোহন ধর, মুন্না দেব, পরিমল দেব, অর্পনা সূত্রধর, অভিজিৎ দাস, শুভ্রজিত তালুকদার, রাজেশ রায়, সৌরভ রায়, জয় দেব, রনি চক্রবর্তী, সুজিত সরকার, উজ্জ্বল মালাকার, সজীব চৌধুরী, বিমল দাস, মঞ্জু চন্দ্র, রাজু দেব নাথ, সানু আচার্য্য, জয় আচার্য্য, প্রভাষ কুমার শর্মা, সুনীল চন্দ্র বর্মন, বিশাল মালাকার, চন্দন সুত্রধর, উৎপল দাশ, বিমল চন্দ, বিক্রম চন্দ, শ্যামল দাস প্রমুখ। এছাড়াও উক্ত মানববন্ধনে শারদাঞ্জলী ফোরাম বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
মানববন্ধন ও বিক্ষোভ কর্মসূচীতে, কেন্দ্রীয় নেতা সুমন দে বক্তব্যে সু স্পষ্ট ভাবে বলেন, বাংলাদেশে বার বার একই ধারায় ফেইসবুককে কেন্দ্র করে হিন্দুদের ওপর অত্যাচার, নির্যাতন চলছে। সরকার বার বার ঘটে যাওয়া ঘটনার যদি  সুবিচার দৃষ্টান্ত মূলক ভাবে শাস্তি ও জনগনের জান মালের নিরাপত্তা না দিতে পারে তবে এই সরকারও এসকল অপরাজনীতি, অপপ্রচারকারীর কারনে টিকে থাকতে পারবেন না। এটা সরকারের জন্য হুমকি হিসেবে বার বার হিন্দু জনগুষ্ঠির ওপর হামলা চালাচ্ছে। তাই কেন্দ্রীয় নেতা তার বক্তব্যে সরকারকে হিন্দু নির্যাতন বন্ধের আহবান জানান।
মানববন্ধন ও বিক্ষোভ কর্মসূচীতে আরও বক্তব্য রাখেন জেলা আহ্বায়ক এডভোকেট মিলন ভট্টাচার্য। তার বক্তৃতায় বলেন, অতি দ্রুত উস্কানীদাতা ও প্রকৃত অপরাধীকে আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি প্রদান করা হোক এবং ভবিষ্যতে যাতে এমন কোন ঘটনার পূণরাবৃত্তি না ঘটে সেই দিকে প্রশাসনকে সজাগ দৃষ্টি রাখার দাবি জানান।