১ এপ্রিল থেকে হাজারীবাগে কাঁচা চামড়া প্রবেশ নিষিদ্ধ

প্রকাশিত: ১২:৫১ অপরাহ্ণ, মার্চ ২১, ২০১৬

১ এপ্রিল থেকে হাজারীবাগে কাঁচা চামড়া প্রবেশ নিষিদ্ধ

এসবিএন ডেস্কঃ এপ্রিলের প্রথম দিন থেকে ঢাকার হাজারীবাগে কাঁচা চামড়া প্রবেশ করতে না দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার।

রোববার সচিবালয়ে নৌমন্ত্রী শাজাহান খানের সভাপতিত্বে বুড়িগঙ্গা, শীতলক্ষ্যা, বালু ও তুরাগ নদীর দূষণ রোধে আন্তঃমন্ত্রণালয় সভায় এই সিদ্ধান্ত হয় বলে নৌ মন্ত্রণালয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়।

এতে বলা হয়, ঢাকার শিল্পবর্জ্যের ৬০ শতাংশ চারপাশের নদীগুলোর দূষণের কারণ। আর এই বর্জ্যের ৪০ শতাংশ আসে ট্যানারি থেকে।

ট্যানারির দূষণ বন্ধ করতে চামড়া প্রক্রিয়াকরণ কারখানাগুলোকে সাভারের শিল্প নগরীতে চলে যাওয়ার জন্য সরকার একাধিকবার সময় বেঁধে দিলেও তাতে কাজ হয়নি।

বিসিক ও ট্যানারি মালিকদের ২ সংগঠনের মধ্যে সই হওয়া সমঝোতা স্মারক অনুযায়ী, ট্যানারি মালিকদের ২০১৪ সালের ডিসেম্বরের মধ্যে হাজারীবাগের সব ট্যানারি সাভারে স্থানান্তরের কথা ছিল।

পরে আরও ২ দফা সময় বাড়িয়ে ট্যানারি স্থানান্তরের গত ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত সময় নির্ধারণ করা হয়।

ওই সময়ের মধ্যেও হাজারীবাগ থেকে কারখানা স্থানান্তরে ট্যানারি মালিকদের খুব একটা অগ্রগতি না থাকায় গত ১০ জানুয়ারী ট্যানারি স্থানান্তরে ৭২ ঘণ্টা সময় বেঁধে দেন শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু।

যেসব ট্যানারি ওই সময়ের মধ্যে স্থানান্তর হবে না, সেগুলো বন্ধ করে দেওয়ারও হুমকি দেন তিনি।

শিল্পমন্ত্রীর হুমকির পরও ট্যানারিগুলো সাভারে স্থানান্তর না হওয়ায় হাজারীবাগে কাঁচা চামড়া প্রবেশে সরকারি নিষেধাজ্ঞা এলো।

নৌ মন্ত্রণালয়ের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, “আগামী ১ এপ্রিল থেকে হাজারীবাগের ট্যানারিতে কোনো কাঁচা চামড়া প্রবেশ করতে দেওয়া হবে না।”

সভায় বুড়িগঙ্গা, শীতলক্ষ্যা, বালু ও তুরাগ নদীর দূষণরোধে ‘ক্র্যাশ প্রোগ্রাম’ নেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়।

নদী দখল ও দূষণ রোধে নৌবাহিনী আগামী ১ মাসের মধ্যে একটি ধারণাপত্র তৈরি করবে জানিয়ে বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, সে অনুযায়ী পরবর্তী কার্যক্রম নেওয়া হবে।

অন্যদের মধ্যে প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব আবুল কালাম আজাদ, নৌ বাহিনী প্রধান ভাইস অ্যাডমিরাল নিজামউদ্দিন আহমেদ, পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের সচিব জাফর আহমেদ খান এবং নৌ সচিব অশোক মাধব রায় বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন।