২০২১ সালের মধ্যে ফাইভ-জি সেবা চালু করার সব প্রস্তুতি সম্পন্ন : ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী

প্রকাশিত: ৩:০১ অপরাহ্ণ, মে ৭, ২০২১

২০২১ সালের মধ্যে ফাইভ-জি সেবা চালু করার সব প্রস্তুতি সম্পন্ন : ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী

ডিজিটাল সংযুক্তি হচ্ছে ডিজিটাল যুগের মহাসড়ক।ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার বলেন, উন্নত গ্রাহক সেবার বিষয়টি এখনও পর্যাপ্ত নয়। মোবাইল ফোন অপারেটরসহ সংশ্লিষ্ট সবাইকে এ বিষয়ে আরও তৎপর হতে হবে।

‘ডিজিটালাইজেশন হচ্ছে বাংলাদেশের অগ্রগতির লাইফ লাইন’—এ কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, এরই ধারাবাহিকতায় টেলিযোগাযোগ খাত ব্যক্তিগত পর্যায় থেকে এখন রাষ্ট্রীয় জীবনের মুখ্য বিষয়ে দাঁড়িয়েছে। তিনি গ্রাহক সেবার মানোন্নয়নে টেলিযোগাযোগ খাত সংশ্লিষ্টদের আরও যত্নশীল হওয়ার প্রয়োজনীয়তার ওপর গুরুত্ব আরোপ করেন।

 

মোস্তাফা জব্বার গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেলে জিএসএমএ’র বাংলাদেশ মোবাইল ইন্ডাষ্ট্রির ট্যাক্স স্টাডির উদ্বোধন উপলক্ষে ভার্চুয়ালি আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন।

‘গেস্ট অব অনার’ হিসেবে প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি খাত বিষয়ক উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান অনলাইনে এ অনুষ্ঠানে বক্তৃতা করেন।

জিএসএমএ টিমের জুলিয়ান গোরম্যানের উপস্থাপনায় অনুষ্ঠানে বিডা‘র নির্বাহী চেয়ারম্যান মো. সিরাজুল ইসলাম, ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের সচিব মো. আফজাল হোসেন, বিটিআরসি চেয়ারম্যান শ্যামসুন্দর সিকদার, জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের সদস্য প্রদ্যুৎ কুমার সরকার, জিএসএমএ’র টিম কর্মকর্তা জেনস বেকার এবং অ্যামটবের সেক্রেটারি জেনারেল ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) এসএম ফরহাদ বক্তৃতা করেন।

টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী বলেন, ফাইভ-জি হচ্ছে চতুর্থ শিল্প যুগের প্রযুক্তি। ২০২১ সালের মধ্যে ফাইভ-জি সেবা চালু করার সব প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে বলেও তিনি জানান।

আগামী দিন হচ্ছে ডাটার যুগ—এ কথা উল্লেখ করে মোস্তাফা জব্বার বলেন, ভয়েস সার্ভিসের তুলনায় ডাটা সার্ভিসের চাহিদা ক্রমেই বাড়ছে। তিনি ইন্টারনেট সহজলভ্য করতে সরকারের গৃহীত বিভিন্ন উদ্যোগ তুলে ধরে বলেন, ‘২০০৮ সালে এক এমবিপিএস ইন্টারনেটের দাম ছিল ২৭ হাজার টাকা, তা আমরা কমিয়ে বর্তমানে ২৮৫ টাকায় নির্ধারণ করেছি।’

ছড়িয়ে দিন