৮০ বছর ধরে জনশূন্য বাংলাদেশের যে গ্রাম!

প্রকাশিত: ১২:৪৫ অপরাহ্ণ, জুলাই ১৮, ২০২১

৮০ বছর ধরে জনশূন্য বাংলাদেশের যে গ্রাম!

অন্য ১০টি গ্রামের মতোই মসজিদ থেকে শুরু করে ঈদগাহ, গাছ-পালা থেকে বাড়িঘর- সবই আছে এখানে, নেই শুধু মানুষ।

এমন অবস্থা এক-দুই বছর নয়, সুদীর্ঘ ৮০টি বছর ধরে দেখে আসছেন পার্শ্ববর্তী গ্রামের মানুষেরা। লোকশূন্য এই গ্রামটির নাম মঙ্গলপুর, ঝিনাইদহের কোটচাঁদপুরের এলাঙ্গী ইউনিয়নে যার অবস্থান।

জানা যায়, প্রায় আট দশক আগে কলেরা মহামারির সময় গ্রামটিতে অনেকেই মারা যান, বাকিরা ভয়ে গ্রাম ছেড়ে অন্য এলাকায় আশ্রয় নেয়।

পরবর্তীতে তারা আর গ্রামে না ফিরলে লোকমুখে মঙ্গলপুরে ‘অমঙ্গলের’ বিষয়টি রটে যায়। সেই থেকে রহস্যময় এই গ্রামে দিনের বেলায়ও ঢুকতে ভয় পান বহিরাগতরা।

তবে গ্রামটির আবাদি জমিতে ধান চাষ হয়, ফসলি জমিতে বিভিন্ন ধরনের ফল ও ফসল ফলান, পুকুরে মাছ করেন জমির মালিকেরা। দিনের বেলায় একসঙ্গে কয়েকজন মিলে গ্রামটিতে যান তারা, কাজ শেষে সংঘবদ্ধভাবেই ফিরে আসেন দিনের আলো থাকতেই। একা একা বা রাতের বেলায় ভুলেও কেউ যান না গ্রামটিতে।

ইতিহাস বলছে, মঙ্গল পাঠান নামের এক প্রভাবশালী ব্যক্তির নামানুসারে গ্রামটির নাম রাখা হয় মঙ্গলপুর। ৩ একর জমির ওপর বিশাল বাড়ি তৈরি করেন তিনি, যার চারদিকে ৩০-৪০ ইঞ্চি চওড়া মাটির প্রাচীর ছিল।

পরিবারের নারীরা পর্দানশীল হওয়ায় বেশ উঁচু দেয়াল তৈরি করা হয়। মঙ্গল পাঠান মারা গেলে গ্রামেই তাকে কবর দেয়া হয়, যা এখনো বিদ্যমান।

জনশূন্য মঙ্গলপুরের কোলাহল ফেরাতে মুজিববর্ষ উপলক্ষে ৭টি ভূমিহীন পরিবারের জন্য পাকা ঘর তৈরি করা হচ্ছে। সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানান, গ্রামটিতে এরইমধ্যে একটি কমিউনিটি ক্লিনিক প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে।

মাস খানেকের মধ্যে শেষ হবে ভূমিহীনদের ঘর নির্মাণ। এই প্রকল্পের সূত্র ধরে গ্রামটিতে আবারো শুরু হতে যাচ্ছে মানুষের স্থায়ী বসবাস।

ছড়িয়ে দিন